Alexa
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

বিশ্বকাপ জিতে ‘পাওয়ার কাপলের’ অনন্য কীর্তি

আপডেট : ১৬ নভেম্বর ২০২১, ১৮:০০

২০১৬ সালে ভালোবেসে বিয়ে করেন মিচেল স্টার্ক ও অ্যালিসা হিলি। ফাইল ছবি দুজনই খেলাপাগল পরিবারের মানুষ। শিরায় বইছে ‘ক্রিকেটীয়’ রক্ত। সেই টান থেকেই ২০১৬ সালে বিয়ে করেন মিচেল স্টার্ক ও অ্যালিসা হিলি। তখন থেকেই অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেটের ‘পাওয়ার কাপল’ হিসেবে পরিচিত তাঁরা। এবার তো অনন্য এক কীর্তিই গড়ে ফেললেন এই তারকা দম্পতি। 

দুবাইয়ে রোববারের ফাইনালে নিউজিল্যান্ডকে ৮ উইকেটে হারিয়ে প্রথমবার টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ শিরোপা জেতে অস্ট্রেলিয়া। এর মধ্য দিয়ে অজিরা ঘোচায় তাদের একমাত্র আক্ষেপ। স্টার্কও নাম লেখান স্ত্রী অ্যালিসার পাশে। ক্রিকেট ইতিহাসে প্রথম দম্পতি হিসেবে ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জয়ের নজির গড়েন তাঁরা। 

২০১৫ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপ জেতেন স্টার্ক। সে সময় অ্যালিসা ছিলেন তাঁর প্রেমিকা। তবে দুদিন আগে স্টার্ক যখন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জিতলেন, তখন তাঁরা স্বামী-স্ত্রী। 

২০১৫ ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ের পর ড্রেসিংরুমে স্টার্ক-অ্যালিসা। ফাইল ছবি অ্যালিসা নিজেও বিয়ের আগে জিতেছেন ৪টি বিশ্বকাপ। ২০১০,২০১২ ও ২০১৪ সালে টি-টোয়েন্টি আর ২০১৩ সালে ওয়ানডে বিশ্বকাপ জয়ী দলের সদস্য হিলি। আর স্টার্কের সঙ্গে সংসার শুরুর পর জিতেছেন ২০১৮ ও ২০২০ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। 

সমবয়সীদের বিয়েতে নাকি ঝামেলার শেষ নেই। তবে স্টার্ক-অ্যালিসা এখানে ব্যতিক্রম। ৩১ বছর বয়সী এই দম্পতির বোঝাপড়াটা অসাধারণ। হয়তো পেশাদার ক্রিকেটার বলেই একে-অপরকে সবচেয়ে ভালো বোঝেন। 

গত বছর সর্বশেষ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ জেতেন অ্যালিসা। ফাইল ছবি  ক্রিকেটীয় ব্যস্ততায় এমনিতেই এক ছাদের নিচে থাকা হয় কম। তবে সুযোগ পেলেই স্ত্রীর খেলা দেখতে ছুটে যান স্টার্ক। গত বছর মাঠে বসে অ্যালিসার বিশ্বকাপ ফাইনাল ম্যাচ দেখতে দক্ষিণ আফ্রিকায় নিজের খেলা বাদ দিয়ে দেশে ফেরেন স্টার্ক। 

২০১৪ সালে আবার অ্যালিসার ফাইনাল দেখতে থেকে যান বাংলাদেশে। সে বছর পুরুষ ও নারীদের টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপটা যে হয়েছিল এখানেই! অস্ট্রেলিয়া পুরুষ দল সুপার টেন থেকে বিদায় নিলেও চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল নারী দল। ডেভিড ওয়ার্নার-অ্যারন ফিঞ্চরা বিদায় নেওয়ার পরপরই দেশে ফিরলেও রয়ে যান স্টার্ক। সে সময়ের প্রেমিকা অ্যালিসার খেলা মিরপুর শেরেবাংলার গ্যালারিতে বসে দেখেন তিনি। 

স্টার্ক-অ্যালিসার টানটা খেলার প্রতি যেমন, নিজেদের প্রতিও তেমন। স্টার্কের ছোট ভাই ব্রান্ডন স্টার্ক নিজেও একজন ক্রীড়াবিদ। ২০১০ সালে যুব অলিম্পিকে রুপা ও ২০১৮ কমনওয়েলথ গেমসে সোনা জিতেছেন এই হাই জাম্পার।

স্ত্রী অ্যালিসার খেলা দেখতে প্রায়ই মাঠে আসেন স্টার্ক। ফাইল ছবি  আর অ্যালিসার গল্পটা তো সবারই জানা। বিখ্যাত ‘হিলি’ পরিবারের মেয়ে তিনি। বাবা গ্রেগ হিলি ছিলেন কুইন্সল্যান্ড রাজ্য দলের ক্রিকেটার। চাচা ইয়ান হিলি তো সর্বকালের সেরা উইকেটরক্ষকদেরই একজন। চাচাকে দেখে অ্যালিসা নিজেও হয়েছেন উইকেটরক্ষক। মাত্র ৯ বছর বয়সে যখন ‘হবু বর’ স্টার্কের সঙ্গে পরিচয়, তখন তিনিও ছিলেন উইকেটরক্ষক। সেই স্টার্কই পরে হয়ে উঠেছেন ভয়ংকর এক পেসার।  

ক্রিকেটই যাঁদের ধ্যান-জ্ঞান, তাঁরা নিশ্চয়ই চাইবেন পরের প্রজন্মও যুক্ত হবে খেলাটির সঙ্গে। কিন্তু বিয়ের ৫ বছর পেরিয়ে গেলেও স্টার্ক-অ্যালিসার ঘর আলো করে আসেনি কেউ। বছরের বেশির ভাগ সময় পার করে দেন ক্রিকেটীয় ব্যস্ততায়। নতুন সদস্যকে স্বাগত জানানোর সময় কই তাঁদের! তবে যখন সন্তান আসবে, একটা ব্যাপার নিয়ে সংসারে ‘আগুন’ লাগতেই পারে এই সুখী দম্পতির। সন্তান মায়ের মতো কিপার-ব্যাটার হবে নাকি বাবার মতো পেসার—উত্তরটা না হয় সময়ের হাতেই তোলা থাক! 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    এক বছরের বেশি সময় পর মাঠে ফিরলেন মাশরাফি

    বার্সেলোনায় সাবেক সতীর্থদের সঙ্গে মেসির নৈশভোজ

    খেলা দেখতে গিয়ে হুড়োহুড়িতে ৬ দর্শকের মৃত্যু

    মৃত্যুকে জয় করে যেভাবে মাঠে ফিরলেন এই নারী ফুটবলার

    গোল করে স্ত্রীকে স্মরণ, জবাবে পেলেন ভালোবাসা

    ফাইনাল খেলার প্রস্তুতি নেন: গয়েশ্বর 

    এক বছরের বেশি সময় পর মাঠে ফিরলেন মাশরাফি

    শাবিপ্রবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে প্রতীকী অনশনে ছাত্রদল

    শাবিপ্রবির উপাচার্যকে কেন পদত্যাগ করতে হবে

    করোনায় ইবিতে দাপ্তরিক সময়সূচি কমছে ১ ঘণ্টা 

    আশ্রয়ণের অধিকাংশ ঘরে তালা ঝুলছে, থাকেন না বরাদ্দপ্রাপ্তরা