Alexa
মঙ্গলবার, ১৬ আগস্ট ২০২২

সেকশন

epaper
 

স্বীকারোক্তি দিলেন অক্সিজেন মাস্ক খুলে ফেলা সেই ধলু

আপডেট : ১২ নভেম্বর ২০২১, ২১:৩২

বকশিশ কম পেয়ে রোগীর মাস্ক খুলে ফেলা ধলু আদালতে স্বীকারোক্তি দিয়েছেন। ছবি: ফাইল ছবি বগুড়ায় ৫০ টাকা বকশিশ কম পেয়ে অক্সিজেন মাস্ক খুলে ফেলে বিকাশ বিশ্বাস নামের এক রোগীর মারা যাওয়ার ঘটনায় আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ (শজিমেক) হাসপাতালের অস্থায়ী কর্মচারী আসাদুল ইসলাম মীর ধলু। আজ শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে বগুড়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আসমা মাহমুদের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা বগুড়া সদর থানার উপপরিদর্শক ওসমান গনি এ তথ্য নিশ্চিত করেন। 

অভিযুক্ত ধলুর বরাত দিয়ে এসআই ওসমান গণি জানান, জবানবন্দিতে ধলু রোগীর মুখ থেকে অক্সিজেন মাস্ক খুলে নেওয়ার কথা স্বীকার করেছেন। ধলু বলেন, 'আমি ২০০ টাকা দৈনিক মজুরিতে হাসপাতালে কাজ করি। আমার দায়িত্ব জরুরি বিভাগ আসা রোগীদের বিভিন্ন ওয়ার্ডে পৌঁছে দেওয়া। ঘটনার দিন ৯টার দিকে এই রোগী আসলে তাকে ব্যান্ডেজ করে দেওয়ার পর সিলিন্ডারের অক্সিজেনসহ রোগীকে তৃতীয় তলায় সার্জারি বিভাগে নিয়ে যাই। সেখানে ওয়ার্ডে জায়গা না হলে লিফটের কাছে মেঝেতে রাখি। নিয়ম হলো, ওয়ার্ডে পৌঁছার পর ওয়ার্ড থেকেই অক্সিজেন সরবরাহ করা হবে আর জরুরি বিভাগের অক্সিজেন সিলিন্ডার খুলে নিয়ে যাওয়া হবে। আমি ২০০ টাকা বকশিশ চাই রোগীর স্বজনদের কাছে। তারা ৫০ টাকা কম দিলে আমি রেগে যাই। এরপর ওয়ার্ড থেকে অক্সিজেন আসার আগেই আমি জরুরি বিভাগের অক্সিজেন সিলিন্ডার খুলে নিই। এরপর রোগীর স্বজনদের সঙ্গে বাগ্‌বিতণ্ডার একপর্যায়ে আমি অক্সিজেন না লাগিয়েই সিলিন্ডার রেখে চলে আসি।'  জবানবন্দি শেষে ধলুকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার ভোরে ঢাকার আবদুল্লাহপুর থেকে ধলুকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। এর আগে বিকাশের মৃত্যুর ঘটনায় বুধবার মধ্যরাতে বগুড়া সদর থানায় মামলা করে শজিমেক হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। 

ধলু গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার কুমিরাডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা। তাঁর বাবার নাম মৃত জয়নুদ্দিন মীর। 

মৃত বিকাশ গাইবান্ধা জেলার সাঘাটা উপজেলার পুটিমারী গ্রামের বাসিন্দা। তিনি স্থানীয় একটি ওয়ার্কশপে গ্রিল ওয়েল্ডিংয়ের কাজ করতেন। 

গত মঙ্গলবার রাতে বকশিশ কম পেয়ে অক্সিজেন মাস্ক খুলে দেওয়ায় বিকাশের মৃত্যু হয়। ওই হাসপাতালের অস্থায়ী কর্মচারী ধলু রোগীর অক্সিজেন মাস্ক খুলে দিয়ে তাঁকে হত্যা করেন বলে অভিযোগ উঠে। পরে র‍্যাবের অভিযানে গ্রেপ্তার হন ধলু। র‍্যাব তাকে বৃহস্পতিবার রাতে বগুড়া সদর থানায় তাঁকে হস্তান্তর করেন। শুক্রবার আদালতে তাঁকে হাজির করা হলে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন তিনি। 

জানা গেছে, গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন বিকাশ চন্দ্র কর্মকার। রাতে তাঁকে শজিমেক হাসপাতালে নেওয়া হয়। শজিমেক হাসপাতালের জরুরি বিভাগে (নিচ তলা) চিকিৎসা শেষে বিকাশের মাথায় ব্যান্ডেজ এবং মুখে অক্সিজেন মাস্ক দিয়ে স্ট্রেচারে করে সার্জারি বিভাগে (তৃতীয় তলা) নেন হাসপাতালের কর্মচারী ধলু। তৃতীয় তলায় গিয়ে বিকাশের বাবা বিশু চন্দ্র কর্মকারের কাছে বকশিশ হিসেবে ২০০ টাকা দাবি করেন ধলু। ওই সময় বিশু কর্মচারী ধলুকে ১৫০ টাকা দেন। কিন্তু ৫০ টাকা কম পেয়ে ধলু ক্ষিপ্ত হয়ে মুমূর্ষু রোগী বিকাশের অক্সিজেন মাস্ক খুলে দেন। এতে শ্বাসকষ্টজনিত কারণে বিকাশের মৃত্যু হয়। ওই সময় হাসপাতালে অন্যান্য রোগী ও তাদের স্বজনরা ঘটনাস্থলে জড়ো হন। পরে বিকাশের মুখে অক্সিজেন মাস্ক লাগিয়ে পালিয়ে যান ধলু। 

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে শজিমেক হাসপাতালে এই ঘটনা ঘটে। 

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এসআই ওসমান গনি বলেন, আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দির দেওয়ার পর ধলুকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ছেলেরা মাদকাসক্ত, প্রশাসনের হাতে তুলে দিলেন মা-বাবা

    সাংবাদিকদের ওপর হামলা: ডা. উসমানীর জামিন আবেদন খারিজ

    ঘরের বাইরে তালা, ভেতরে মরদেহর মুখের ওপর বালিশ!

    চাঁদাবাজি করতে গিয়ে গণপিটুনির শিকার পুলিশ কনস্টেবল

    প্রেমের ফাঁদ পেতে মোটরসাইকেল ছিনতাই, স্ত্রী গ্রেপ্তার

    পি কে হালদারসহ ১৪ জনের অভিযোগ গঠন শুনানি পিছিয়েছে

    ৮০ রানেই গুটিয়ে গেলেন সৌম্য-সাব্বিররা

    রাজধানীর যাত্রাবাড়ীতে আওয়ামী লীগ নেতাকে ছুরিকাঘাতে খুন

    ছাদে ওঠার গাছের ডাল কেটে ফেলায় প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে অশ্লীল দেয়াল লিখন

    ছেলেরা মাদকাসক্ত, প্রশাসনের হাতে তুলে দিলেন মা-বাবা

    ছাত্রীকে বেত্রাঘাত করে স্কুল থেকে বের করে দেওয়ার অভিযোগ

    বিহার মন্ত্রিসভায় ৩১ মন্ত্রী, কংগ্রেসের ২