Alexa
মঙ্গলবার, ২৫ জানুয়ারি ২০২২

সেকশন

epaper
 

রাবিতে ভেতরে শিক্ষার্থীদের রেখেই পাঁচ কক্ষে তালা দিলেন ছাত্রলীগকর্মী

আপডেট : ০৯ নভেম্বর ২০২১, ২৩:১২

রুমের ভেতরে রেখে তালা দেওয়ার প্রতিবাদে বিক্ষোভ করেন শিক্ষার্থীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা নেতাদের প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী হলে সিট না পাওয়ার ক্ষোভে পাঁচটি কক্ষে তালা লাগিয়ে দেন এক ছাত্রলীগ কর্মী। এতে কক্ষগুলোতে বেশ কয়েকজন শিক্ষার্থী আটকা পড়েন। পরে খবর পেয়ে হল প্রশাসন তালা ভেঙে শিক্ষার্থীদের বের করেন।

আজ মঙ্গলবার দুপুরে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শহীদ জিয়াউর রহমান হলে এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত ছাত্রলীগ কর্মী সাঈদ বিন একরাম বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী। তিনি মুক্তিযুদ্ধ মঞ্চ রাবি শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক ও জিয়াউর রহমান হল ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পদপ্রার্থী। 
 
হল সূত্রে জানা যায়, দুপুর ১২টার দিকে হলের দ্বিতীয় তলার দ্বিতীয় ব্লকে ২১৯ থেকে ২২৩ নম্বর কক্ষে বাইরে থেকে তালা ঝুলিয়ে দেওয়া হয়। পনেরো থেকে কুড়ি মিনিট পর বিষয়টি জানাজানি হলে হল প্রশাসন এসে তালা ভেঙে শিক্ষার্থীদের বের করেন। এ ঘটনার প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা হল গেটে তালা দিয়ে বিক্ষোভ করে।

ঘটনার পর হল প্রাধ্যক্ষ সুজন সেন, প্রক্টর লিয়াকত আলী, বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি গোলাম কিবরিয়া ও সাধারণ সম্পাদক বৈঠকে বসেন। বৈঠক শেষে শিক্ষার্থীদের সঙ্গে কথা বলেন তাঁরা। এরপর বিক্ষোভ স্থগিত করেন শিক্ষার্থীরা।
 
২২২ নম্বর রুমের ভুক্তভোগী শিক্ষার্থী সোহানুর রহমান বলেন, আমি তখন পড়ছিলাম। বাইরে থেকে দরজা নাড়ানোর শব্দ হচ্ছিল। কাছে গিয়ে দেখি দরজা খুলছে না। বুঝতে পারি তালা লাগানো হয়েছে। দরজার ফাঁক দিয়ে সাদা শার্ট পরিহিত একটা ছেলেকে চলে যেতে দেখেছি।

তালা ঝুলানোর কথা স্বীকার করে অভিযুক্ত সাঈদ একরাম বলেন, আমি দীর্ঘদিন ছাত্রলীগের রাজনীতি করি। হলে সিটের জন্য বলেছিলাম। হলের দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা বলেছিলেন ২২০ নম্বর রুম আমাকে দেবেন। কিন্তু দেননি। তাঁরা সিট বিক্রি করে দিয়েছেন বলে শুনেছি। আমার মতো অনেকেই এ রকম সিট বঞ্চিত হয়েছে। তাই আমরা প্রতিবাদ জানিয়ে তালা দিয়েছি।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক ফয়সাল আহমেদ রুনু বলেন, হলে কে বা কারা তালা লাগিয়েছিলেন। প্রতিবাদে শিক্ষার্থীরা আন্দোলন করেছে। আমরা গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেছি। এ ছাড়া অভিযুক্ত সাঈদ ছাত্রলীগের রাজনীতি করেন কি-না সে বিষয়ে তাঁর জানা নেই বলেও উল্লেখ করেন ফয়সাল।

হল প্রাধ্যক্ষ ড. সুজন সেন বলেন, শিক্ষার্থীদের ভেতরে রেখে তালা দেওয়া অবশ্যই একটি নিকৃষ্টতম কাজ। আমরা এরই মধ্যে প্রক্টরিয়াল বডিকে বিষয়টি জানিয়েছি। কে বা কারা তালা দিয়েছে তাদের বিষয়েও খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    শাবিপ্রবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে প্রতীকী অনশনে ছাত্রদল

    আশ্রয়ণের অধিকাংশ ঘরে তালা ঝুলছে, থাকেন না বরাদ্দপ্রাপ্তরা

    মমেকে করোনায় এক নারীর মৃত্যু 

    নিখোঁজের ৬ দিন পর নদীতে মিলল গৃহবধূর মরদেহ 

    আক্কেলপুরে ট্রেনে কাটা পড়ে ভ্যানচালকের মৃত্যু

    শাবিপ্রবি উপাচার্যের পদত্যাগ দাবিতে প্রতীকী অনশনে ছাত্রদল

    শাবিপ্রবির উপাচার্যকে কেন পদত্যাগ করতে হবে

    করোনায় ইবিতে দাপ্তরিক সময়সূচি কমছে ১ ঘণ্টা 

    আশ্রয়ণের অধিকাংশ ঘরে তালা ঝুলছে, থাকেন না বরাদ্দপ্রাপ্তরা

    মমেকে করোনায় এক নারীর মৃত্যু