Alexa
সোমবার, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩

সেকশন

epaper
 

বাংলাদেশে ১০ বছরেও আমার উত্তরসূরি দেখি না

আপডেট : ০২ জুলাই ২০২১, ২২:০৯

সিদ্দিকুর রহমান। ফাইল ছবি কিছুদিন আগেও আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলতে না পারার আক্ষেপে পুড়ছিলেন গলফার সিদ্দিকুর রহমান। মহামারিতে বাংলাদেশ প্রায় সব খেলায় ফিরলেও গলফ একপ্রকার নিভৃতেই ছিল। কণ্ঠে সুর থাকার পরও একজন শিল্পীর গান গাইতে না পারার যে আক্ষেপ, অনেকটা সেই বেদনা পেয়ে বসেছিল সিদ্দিকুরকে!

আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট খেলতে না পারার কষ্ট এবার দূর করার সুযোগ পাচ্ছেন সিদ্দিক। কর্ন ফেরি পিজিএ ট্যুর খেলতে দুই দিন আগে যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছেন সিদ্দিক। যাওয়ার আগে আজকের পত্রিকার সঙ্গে আলাপচারিতায় জানিয়ে গেছেন দেশের গলফের ভবিষ্যৎ, নিজের উত্তরসূরি নিয়ে তাঁর ভাবনার কথা।  

কর্ন ফেরি ট্যুর খেলতে যুক্তরাষ্ট্রে যাওয়ার আগে সিদ্দিক সর্বশেষ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেছেন ২০২০ সালের মার্চে, বানদার মালয়েশিয়া ওপেনে। এরপর দেড় বছর একপ্রকার প্রতিযোগিতামূলক টুর্নামেন্টের বাইরেই ছিলেন। কেমন ছিল এই সময়টা? সিদ্দিক বলছেন, ‘করোনার প্রভাব সারা বিশ্বেই পড়েছে। তবে এশিয়ান গলফে বোধ হয় সবচেয়ে বেশি। সবকিছু মিলিয়ে যা বুঝি, জীবনটা আগে। খেলা পরে। মহামারির শুরুতে ভেবেছিলাম, আগে বাঁচি, পরে খেলা নিয়ে ভাবা যাবে। এখন যা দেখছি, পিঠ দেয়ালে ঠেকে গেছে! আমাদের সবার টুর্নামেন্ট খেলা দরকার। এখানেই যে জীবিকা নির্বাহ করি।’

যুক্তরাষ্ট্রের কর্ন ফেরি ডেভেলপমেন্ট ট্যুর দিয়ে সিদ্দিক অবশেষে যে খেলায় ফেরার সুযোগটা পাচ্ছেন, বলাই হলো। এখানে বাছাইপর্ব হবে ১৫ জুলাই ও ৫ আগস্টে। ভালো করতে পারলে সিদ্দিক পাবেন কর্ন ফেরির অধীনে একাধিক পিজিএ ট্যুরের আমন্ত্রণ। প্রস্তুতি নিতে আগেভাগেই যুক্তরাষ্ট্রে গেছেন সিদ্দিক। কাজ করেছেন দেশেও। পরিশ্রম করেছেন ফিটনেস নিয়ে। মানসিকভাবে যেন ভেঙে না পড়েন, তা নিয়ে কাজ করছেন মনস্তত্ত্ববিদদের সঙ্গেও। নিজের প্রস্তুতি নিয়ে বললেন, ‘আমার মনে সেই অশান্তিটা নাই। বিষয়টি নিয়ে অনেক কাজ করি। মানসিক বিষয় নিয়ে কাজ করতে আমার একজন কোচ আছেন। দেশের অনেক গলফার আছে, করোনায় তারা অনেকটাই ভেঙে পড়েছে। সবাই অনেক দুশ্চিন্তায় আছে।’

সতীর্থদের এই মনস্তাত্ত্বিক বিষয়গুলো নিয়ে সিদ্দিককে অনেক চিন্তিতই মনে হলো। বললেন, ‘যদি মানসিকভাবে কেউ পরিণত না হয়, আর আমি যদি তাকে পরামর্শ দিই, সে হয়তো সহজভাবে নিতে পারবে না। যেকোনো বিষয় সহজভাবে নেওয়ার মানসিকতা থাকতে হবে। আমার মনে হয় আমাদের খেলোয়াড়েরা এখানে অনেক পিছিয়ে আছে।’
বোঝা গেল স্বদেশি গলফারদের নিয়ে কিছুটা হতাশা আছে সিদ্দিকের। কেন এই হতাশা, সেটিও সবিস্তারে বললেন দেশসেরা গলফার, ‘আমাদের বেশির ভাগ গলফারের লক্ষ্য-প্রত্যাশা কম। যারা এখন গলফার আছি, তারা একেবারেই তৃণমূল থেকে উঠে এসেছি। কারও হয়তো ১০ হাজার টাকা বেতন পাওনা, সে পাচ্ছে ৫০ হাজার টাকা। তাতেই সে খুশি! তার পক্ষে যে ৫০ লাখ ডলার আয় করা সম্ভব, সেটাই অনেকে বুঝতে পারে না। চেষ্টা থাকলে যে বড় সাফল্য বা আয় করা সম্ভব, এই চিন্তাটাই অনেকে করে না।’ 
তাহলে কি নিকট ভবিষ্যতে গলফে আরও ‘সিদ্দিকুর রহমান’ পাবে না বাংলাদেশ? দেশের সেরা এই গলফার অকপটেই বলছেন, ‘যাদের সম্ভাবনা আছে, তাদের যদি বড় স্বপ্ন, প্রত্যাশা, উচ্চাকাঙ্ক্ষা পরিষ্কার করে না দেওয়া হয়, কেউই বড় জায়গায় যেতে পারবে না। সত্যি বলতে, এমন কাউকে দেখি না আমি যে পর্যন্ত এসেছি এতটুকুও আসতে পারবে! আমার আশপাশে যারা আছে, তাদের মধ্যে এমন কোনো সম্ভাবনা দেখতে পাই না। এমনকি আগামী ১০ বছরেও আমার মনে হয় না এমন কাউকে দেখা যাবে!’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    ফুটবলারদের হাসপাতাল পাঠাচ্ছে কমলাপুরের টার্ফ 

    বিপিএলের মাঝে ওমরাহ করতে গেলেন সাকিব 

    কাবাডির এই মেয়েরাই গড়ে দিতে পারেন এশিয়াডের স্বপ্ন

    হাথুরুসিংহেকে ফেরানোর ব্যাখ্যা দিলেন পাপন

    সৌদিতে গিয়েই মেসিকে ছাড়িয়ে গেছেন রোনালদো

    মেসিদের শিরোপা রক্ষার লড়াই যুক্তরাষ্ট্রে

    টাকা পাচার বন্ধে এনবিআরকে শক্তিশালী ভূমিকা রাখতে হবে: কৃষিমন্ত্রী

    ডিএমপির ৪ এডিসিকে বদলি

    সিরাজদিখানে আবাসন ব্যবসা নিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, পুলিশের ফাঁকাগুলি

    বোলিং ভালো না হলে ১৮০ রান করে লাভ নেই

    চালুর ৯ দিন পর যমুনা সার কারখানার উৎপাদন ফের বন্ধ