Alexa
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

এগিয়ে যাচ্ছে ‘পদ্মাকন্যা’

আপডেট : ৩০ জুন ২০২১, ১৭:১৩

নাসরীন আক্তার প্রভাষক, সরকারি গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম কলেজ পদ্মা নদীবেষ্টিত হওয়ায় রাজবাড়ীকে পদ্মাকন্যা বলা হয়। ১৮৩৩ থেকে ১৮৩৮ সালের মধ্যে ঢাকা-জালালপুর ভেঙে ফরিদপুর জেলা গঠিত হলেও পরবর্তী সময়ে ১৯৮৪ সালের ১ মার্চ রাজবাড়ী জেলার নাম ঘোষণা করা হয়। ব্রিটিশ শাসনামলে ‘গেটওয়ে অব বেঙ্গল’ বা বাংলার দ্বারপথ বলে পরিচিত রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ মহকুমা।

১৮৯৯ সালে ফরিদপুর জেলা সৃষ্টি হলে নাটোরের রাজা রাজবাড়ীকে এর অন্তর্ভুক্ত করেন। ১৭৯৩ সালে চিরস্থায়ী বন্দোবস্তকালে রাজবাড়ী যশোর জেলার অন্তর্ভুক্ত ছিল। গোয়ালন্দ মহকুমা আলাদা থানা ছিল, রাজবাড়ী নামে কিছুই ছিল না। তবে লক্ষ্মীকোলের রাজা সূর্যকুমার ও বানীবহ জমিদার গিরিজা শংকর মজুমদার বর্তমান রাজবাড়ী পৌর এলাকার সীমানায় নানা স্থাপনা গড়ে তুলে উন্নত জনপদে পরিণত করেন। ১৮৯০ সালে রাজবাড়ী রেলস্টেশনটি স্থাপিত হয় বলে এল এন মিশ্র একটি বইতে উল্লেখ করেন।

১১১৮ দশমিক ৮ বর্গকিলোমিটার বা ৪৩১ দশমিক ১৭ বর্গমাইল এলাকাজুড়ে গঠিত পাঁচটি উপজেলা, তিনটি পৌরসভা ও ৪২টি ইউনিয়ন নিয়ে গঠিত রাজবাড়ী জেলার বর্তমান লোকসংখ্যা প্রায় ১২ লাখ। ঢাকা বিভাগে অবস্থিত আয়তনের দিক থেকে বিভাগের জেলাসমূহের ১৫তম এবং দেশের সব জেলার মধ্যে ৫৬তম। এর উত্তরে প্রবহমান প্রমত্ত পদ্মা। পদ্মার ওপারে পাবনা ও মানিকগঞ্জ জেলা। দক্ষিণে গড়াই নদী। গড়াই নদীর পারে মাগুরা ও ঝিনাইদহ। পশ্চিমে কুষ্টিয়া ও পূর্বে ফরিদপুর জেলা অবস্থিত।

জেলার পদ্মার রুপালি ইলিশ, চমচমসহ নানা জাতের মিষ্টি সারা দেশে বিখ্যাত। একসময়কার গোয়ালন্দের ইলিশ ও কালো তরমুজ গোটা ভারতবর্ষে বিখ্যাত ছিল। কিন্তু কালের গহ্বরে কালো তরমুজ হারিয়ে গেছে। মাঝেমধ্যে রুপালি ইলিশের দেখা মিললেও আকাশচুম্বী দামের কারণে এই অঞ্চলের মানুষ সেই স্বাদ নিতে পারে না। তবু পিছিয়ে পড়া সেই রাজবাড়ী জেলায় বর্তমানে গড়ে উঠেছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, মিল, কলকারখানাসহ আরও অনেক প্রতিষ্ঠান।

পাল, সেন, সুলতান, পাঠান, মোগল, ইংরেজ শাসন স্মৃতি ও ঐতিহ্যের ভূমি রাজবাড়ী। রাজা সীতারাম, মোরাদ খাঁ, মুকুন্দ রাম, সংগ্রাম শাহ, প্রতাপাদিত্য, রাজা রামজীবন, রানীভবানী, রাজা সূর্যকুমার, নবাব মীর মোহাম্মদ আলী, আলীমুজ্জামান চৌধুরী সিআইই, গিরীজাশংকর মজুমদার প্রমুখ ভূপতির শাসন ও স্মৃতিচিহ্ন ধারণ করে আছে জেলাটি। উত্তাল পদ্মার মতো নীল বিদ্রোহ থেকে শুরু করে ফকির-সন্ন্যাস আন্দোলন, খেলাফত-অসহযোগ, ফরাজি, প্রজামুক্তি, আজাদ হিন্দ, কমিউনিস্ট, পাকিস্তান প্রতিষ্ঠা, ভাষা আন্দোলন, রেলশ্রমিক আন্দোলন, ৬ দফা, ৬৯ সালে গণ-আন্দোলন, মুক্তিযুদ্ধ প্রতিটি ক্ষেত্রে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখে এ জেলার মানুষ। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের বিচরণভূমি এবং বাংলা সাহিত্যে ‘বিষাদসিন্দু’র রচয়িতা মীর মশারফ হোসেন চিরনিদ্রায় শায়িত আছেন পদমদিতে। উপমহাদেশের একসময়ের শ্রেষ্ঠ দাবাড়ু অধ্যাপক কাজী মোতাহার হোসেনের পৈতৃক বাড়ি পাংশার বাগমারা গ্রামে। শিল্প-সাহিত্য-সংস্কৃতিতে দেশ ও দেশের বাইরে বিশেষ খ্যাতি অর্জন করেছেন কবি মীর মশারফ হোসেন, মোহাম্মদ এয়াকুব আলী চৌধুরী, কাজী আব্দুল ওদুদ, কাজী মোতাহার হোসেন, রাস সুন্দরী দেবী, রোকনুজ্জামান খান দাদাভাই, চিত্রশিল্পী কাজী আবুল কাশেম, রশিদ চৌধুরী, ডা. আবুল হোসেন, কাঙ্গালিনী সুফিয়া প্রমুখ।

গত কয়েক বছরে রাজবাড়ীতে গড়ে উঠেছে জেলার বৃহৎ শিল্পপ্রতিষ্ঠান গোয়ালন্দ টেক্সটাইল মিলস, রাজবাড়ী জুট মিলস, গোল্ড এশিয়া জুট মিলস, সাগর অটো রাইস মিলস ও গোয়ালন্দ হ্যাচারিজ লিমিটেড, দৌলতদিয়া রেকটিফাইড স্পিরিট প্রস্তুত কারখানা, ভিক্টর ফিডস অ্যান্ড ভিক্টর ব্রিডার্স লিমিটেড নামক প্রতিষ্ঠান। রয়েছে বিভিন্ন ট্রেডে কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ।

গোয়ালন্দ উপজেলার প্রত্যন্ত কাশিমা গ্রামে ব্যক্তি উদ্যোগে গড়ে ওঠে ‘মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি সংরক্ষণ জাদুঘর’ প্রভৃতি। পদ্মাকন্যা রাজবাড়ী পর্যটনের জন্য এক অপার বিস্ময়। দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের অন্যতম প্রবেশদ্বার জেলার গোয়ালন্দ ঘাট। ঢাকা থেকে দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সড়কযোগাযোগের অন্যতম মাধ্যম এটি। গোয়ালন্দ ঘাট দিয়ে প্রতিদিন অসংখ্য যানবাহন পারাপার হয়। তদানীন্তন ব্রিটিশ ভারতের পশ্চিম আর পূর্বের সেতুবন্ধ হিসেবে বাংলার প্রবেশদ্বার নামে পরিচিত গোয়ালন্দ ঘাট। দৌলতদিয়া ও পাটুরিয়া রুটে প্রস্তাবিত দ্বিতীয় পদ্মা সেতু নির্মিত হলে এখানে ইকো ট্যুরিজম গড়ে তোলা সম্ভব হবে।

পরিশেষে বলব, সেদিন বেশি দূরে নয়, পদ্মাকন্যা খ্যাত রাজবাড়ী জেলা একদিন সামাজিক, রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক দিক দিয়ে দেশের অন্যান্য জেলাকে ছাড়িয়ে যাবে। 

নাসরীন আক্তার
প্রভাষক, সরকারি গোয়ালন্দ কামরুল ইসলাম কলেজ

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    বঙ্গবন্ধু: সময়ের ধারায় চির অম্লান

    কেউ কেউ ঘটনা আগেই জানত

    মুজিব রাজনীতির চার বাঁক

    বঙ্গবন্ধু হত্যা ও পথভ্রান্তির ষড়যন্ত্র

    সেই রাতের কথা

    বঙ্গবন্ধুর দাফনে খুনিদের ছিল তড়িঘড়ি

    রিকশাচালককে মারধর করে ২ চীনা নাগরিক জেলহাজতে, একজন পলাতক

    নালিতাবাড়ীতে ইউনিয়ন পরিষদের ৬টি কক্ষের তালা ভেঙে চুরির অভিযোগ

    কক্সবাজারে হোটেল থেকে পর্যটকের মরদেহ উদ্ধার

    সরাইলে কাশেম হত্যা মামলার প্রধান আসামি গ্রেপ্তার 

    সেনবাগে পঞ্চম শ্রেণির মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণ, আদালতে ২২ ধারায় জবানবন্দি 

    শুভর স্ত্রীর কেমন লাগল ‘মিশন এক্সট্রিম’