Alexa
মঙ্গলবার, ২৪ মে ২০২২

সেকশন

epaper
 

সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রতিবাদে রাজপথে শিল্পীরা

আপডেট : ৩০ অক্টোবর ২০২১, ২২:৫৯

সাম্প্রদায়িক সহিংসতার প্রতিবাদে রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে শিল্পীদের সমাবেশ। ছবি: আজকের পত্রিকা  দেশের বিভিন্ন স্থানে সাম্প্রতিক সাম্প্রদায়িক হামলার প্রতিবাদে সরব হয়েছেন শিল্পী-কলাকুশলীরা। আজ শনিবার সকালে ‘ঐতিহ্য ও কৃষ্টির এই দেশে, থাকি সবাই মিলেমিশে’ স্লোগানে রাজধানীর মানিক মিয়া অ্যাভিনিউতে সমাবেশ করছেন তাঁরা।

ধারাবাহিক সহিংসতার ঘটনায় ১৩ অক্টোবর কুমিল্লার রাজেশ্বরী কালীবাড়ি মন্দিরে হামলার শিকার হন দৃষ্টিপাত নাট্যদলের সদস্য অধরা প্রিয়ার বাবা দিলীপ দাস। মাথায় ইটের আঘাত পাওয়া দিলীপ দাস ২১ অক্টোবর ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। অধরা প্রিয়া কান্নায় ভেঙে পড়ে বলেন, ‘আজ আট দিন ধরে বাবা নেই। আমি বিশ্বাসই করতে পারি না, আমার সংস্কৃতিমনা, অসাম্প্রদায়িক বাবাকে আঘাত করে করে মারা হয়েছে। আমার বাবা এমন একজন মানুষ, যিনি ধর্ম নিয়ে কোনো ভেদাভেদ করেননি। অনুগ্রহ করে সবাই মিলে আমার বাবা হত্যার বিচার এনে দিন।’ 

প্রতিবাদ সমাবেশে নাট্যকার ও অভিনেতা মামুনুর রশীদ বলেন, ‘অপশক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর সময় হয়েছে। এদের রুখতে এটাই আমাদের প্রথম সমাবেশ, কিন্তু এটাই শেষ নয়। শারদীয় দুর্গোৎসবে হামলার প্রতিবাদে প্রতিটি সাংস্কৃতিক সংগঠনকে আলাদা কর্মসূচি নিতে হবে। সম্মিলিতভাবে প্রতিবাদ করতে হবে।’ 

অভিনেতা তারিক আনাম খান বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত ছিলাম। এমন ঘটনা দেখে ব্যক্তি হিসেবে খুব কষ্ট হয়। অধরা প্রিয়ার সামনে মাথা নত হয়ে যায়। ক্ষমতার রাজনীতি থেকে সরে এসে উন্নত সমাজ তৈরি করতে না পারলে আমরা কেউই নিরাপদ না।’ নির্মাতা ও অভিনয়শিল্পী গাজী রাকায়েত বলেন, ‘সংস্কৃতিবিহীন মানুষ শুধুই একটা প্রাণী। সংস্কৃতি ছাড়া কোনো শিক্ষা পূর্ণ হতে পারে না।’ তিনি সংস্কৃতিকে পাঠ্যধারায় নম্বরসহ যুক্ত করার দাবি জানান। 

ডিরেক্টরস গিল্ড এর সভাপতি, নির্মাতা ও অভিনেতা সালাহউদ্দিন লাভলু বলেন, ‘সংস্কৃতি চর্চার যে জায়গা ছিল, সেটা এখন আর আগের মতো নেই। শিল্পীরা মানুষের মনন গঠনের কাজ করেন।’ সাম্প্রদায়িক চক্রের বিরুদ্ধে মানুষকে সচেতন করা এখন শিল্পী সমাজের দায়িত্ব বলে জানান তিনি। 

নাট্যকার মাসুম রেজা বলেন, ‘সম্প্রীতি নষ্টের ভেতর দিয়ে বাংলাদেশকে বিভাজন করা হচ্ছে। কিছু স্বার্থান্বেষী মহল এটা করার চেষ্টা করছে। দেশের সব আন্দোলনে শিল্পীরা লেখনী, অভিনয়, গান, নির্মাণ দিয়ে ও রাজপথে থেকে আন্দোলন করেছে। আমরা শিল্পীরা যাদের জন্য কাজ করি, তাদের মধ্যেই যদি সম্প্রীতি না থাকে, তাহলে আমাদের কাজের মূল্য নেই। সেই জায়গা থেকেই সশরীরে আজকে শিল্পী ও কলাকুশলীরা সম্প্রীতির জন্য রাস্তায় দাঁড়িয়েছি।’ 

সমাবেশের প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক অভিনয়শিল্পী ইরেশ যাকের বলেন, ‘এ হামলার ঘটনা কেন ঘটল? আমরা সবাই কোনো না কোনোভাবে ব্যর্থ। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরেও আমরা মানুষের হৃদয়ে পৌঁছাতে পারিনি।’ 

প্রতিবাদ সমাবেশে আরও অংশ নেন আবুল কালাম আজাদ, মীর সাব্বির, শমী কায়সার, তারিন, দীপা খন্দকার, শাহেদ আলী সুজন, আহসান হাবিব নাসিম, মীর সাব্বির, সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটের পক্ষ থেকে গোলাম কুদ্দুছ, বাংলাদেশ নাট্যকার সংঘের সাধারণ সম্পাদক এজাজ মুন্না, সম্প্রীতির বাংলাদেশের সভাপতি পীযুষ বন্দ্যোপাধ্যায়, চয়নিকা চৌধুরী, নৃত্যাঞ্চলের অন্যতম পরিচালক শিবলী মোহাম্মদ, শিহাব শাহীন, কামরুজ্জামান সাগর, পিকলু চৌধুরী, দেবাশীষ বিশ্বাস, কণ্ঠশিল্পী জয় শাহরিয়ার, গীতিকার মাহমুদ মানজুর সহ প্রমুখ।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     
     

    আপিল করলেন হাজী সেলিম, চাইলেন জামিন 

    ঢাবি সিনেটে শিক্ষক প্রতিনিধি নির্বাচনে নীল দলের নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা

    এডিস নিয়ন্ত্রণে দক্ষিণ সিটিতে ১৫ জুন থেকে ভ্রাম্যমাণ আদালত

    জুয়ায় ১০০ টাকা হেরে আত্মগোপনে ১২ বছর 

    উন্নত চিকিৎসার জন্য সিঙ্গাপুরে গেলেন মির্জা আব্বাস

    ফজলি আম কার, জানা যাবে বিকেলে

    আপিল করলেন হাজী সেলিম, চাইলেন জামিন 

    বাংলাদেশ থেকে অ্যাপোলো হসপিটালস হায়দরাবাদে সরাসরি ফ্লাইট চালু

    মাদারগঞ্জে তিন সহোদরকে হত্যা চেষ্টার ঘটনায় মামলা দায়ের

    স্বামী-সতিনকে ফাঁসাতে শিশু সন্তানকে হত্যার অভিযোগ, আদালতে মামলা

    কিশোরের বিরুদ্ধে ৫ বছরের শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ

    ফেসবুক-টিকটক সূত্রে পরিণয়, তরুণীকে ভারতে পাচার