Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

ফিশারি পাড়ের সড়ক খাল

আপডেট : ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৭:২৪

ত্রিশাল উপজেলার পোড়াবাড়ী-কান্দানিয়া সড়কে ফিশারির কারণে পানি জমে যাওয়ায় জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হচ্ছে। ছবি: আজকের পত্রিকা ত্রিশালের পোড়াবাড়ী-কান্দানিয়া সড়কের দুই পাশের ফিশারির কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সড়ক। পোড়াবাড়ী বাজার হতে এই সড়কের প্রায় এক কিলোমিটারে সৃষ্টি হয়েছে অসংখ্য খানাখন্দ। ফিশারির পাড় হিসেবে ব্যবহার করায় অল্প বৃষ্টিতেই সড়কে তৈরি হচ্ছে জলাবদ্ধতা। অথচ ত্রিশাল, ফুলবাড়িয়া, ভালুকা ও টাঙ্গাইল জেলার সখীপুর, ঘাটাইলের মানুষ এই সড়ক দিয়ে চলাচল করে। কিন্তু সড়কটি বেহাল হয়ে পড়ার দুর্ভোগ পোহাচ্ছে মানুষ, ব্যাহত হচ্ছে যান চলাচল।

সরেজমিনে দেখা যায়, সড়কের বেশির ভাগ অংশেই দুপাশে ফিশারি রয়েছে। মালিকেরা তাঁদের ফিশারি খননের পর থেকে ওই সড়ক পাড় হিসেবে ব্যবহার করছে। এতে সড়কে জমে থাকা পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে গেছে। ফলে বছরের একটি নির্দিষ্ট সময় পানির নিচে ডুবে থাকে সড়কটি।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, এভাবে সড়কে পানি জমে থাকায় পথচারীদের হেঁটে চলাও দুষ্কর হয়ে পড়েছে। ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের। স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, সড়কের পাশে পাড় ছাড়াই ফিশারি নির্মাণ ঠেকাতে ও সড়কের উচ্চতা বৃদ্ধিতে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা তেমন কোনো উদ্যোগ নেননি। এ নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তাঁরা।

দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী নাইমুর রহমান নাইমের কথায়, ‘আমাদের স্কুলে আসা-যাওয়া করতে খুব কষ্ট হয়। একহাতে জুতা ও আরেক হাতে বই নিয়ে পানি মাড়িয়েই আসা-যাওয়া করতে হচ্ছে। ফিশারির পাড় দিয়ে ঘুরে আসার সুযোগ থাকলেও মালিকেরা বেড়া দিয়ে পথ আটকে দেয়। ফিশারিগুলোর জন্যই সড়কের এই বেহাল দশা।’

পোড়াবাড়ী বাজার এলাকার বাসিন্দা মনিরুজ্জামান তাকরিম বলেন, রাস্তার চেয়ে ফিশারির পাড় উঁচু। ফলে বছরের একটি নির্দিষ্ট সময় বেশ কিছু অংশ পানিতে ডুবে থাকে। পানির নিচে খানাখন্দ থাকায় প্রায়ই বাইসাইকেল, মোটরসাইকেলসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, পিচঢালা এই সড়ক এক বছর আগে মেরামতের উদ্যোগ নেওয়া হয়। কিন্তু নিম্নমানের হওয়ায় এলাকাবাসী বাধা দিলে উপজেলা প্রশাসন গিয়ে কাজ বন্ধ করে দেয়। কিছুদিন বন্ধ থাকার পর আবার কাজ শুরু হয়েছিল। কিন্তু সড়কটি বেহালই রয়ে গেছে।

স্থানীয় বাসিন্দা আনিস বলেন, কয়েক দিন আগেই এই সড়কে দুই পুলিশ সদস্য মোটরসাইকেল নিয়ে পানিতে পড়ে যান। আরও অনেকেই দুর্ঘটনার শিকার হয়েছেন। কিছুদিন পরপরই খানাখন্দে আটকে যাচ্ছে যানবাহন। এতে অনেক সময় বন্ধ থাকছে যানবাহন চলাচল। এলাকার কিছু ফিশারির মালিক পাড় নির্মাণ করে সড়কের দুপাশে উঁচু করে রেখেছে। এতে করে পানি নিষ্কাশনের পথ বন্ধ হয়ে থাকছে।

বৃদ্ধ ছাবেদ আলী ফকির বলেন, ‘অল্প বৃষ্টি হলেই রাস্তায় হাঁটু পানি জমে। গাড়ির চালকেরা যাত্রী নিয়ে দুর্ঘটনার শিকার হয়। তাঁরা ফিশারির মালিকদের গালাগালি করে। এ জন্য অনেক ফিশারির মালিক শ্যালো মেশিন দিয়ে রাস্তা থেকে পানি সরিয়েছে।’

এ বিষয়ে ফিশারির মালিক রেজাউল করীম বলেন, ‘আমি একা পানি নিষ্কাশনের জায়গা রেখে পাড় করলে লাভ কি। আশপাশে কোনো পুকুরেরই পাড় নেই। এ জন্য আমাদেরও অনেক সমস্যা হচ্ছে। বৃষ্টি হলে পুকুর ও সড়ক পানিতে একাকার হয়ে যায়। মাছ আটকে রাখতে জালের বেড়া দিয়েছি।’ আর ভেঙে পড়া সড়ক শুকনো মৌসুমে মাটি দিয়ে ভরাট করে দেবেন বলে জানান তিনি।

উপজেলা প্রকৌশলী মনিরুজ্জামান বলেন, ‘খোঁজ নিয়ে রাস্তাটি মেরামতের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে। আর ফিশারির কারণে রাস্তায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হলে তাঁদের বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে আইন অনুযায়ী।’

ত্রিশাল উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) তরিকুল ইসলাম বলেন, ‘আইনের ব্যত্যয় ঘটিয়ে যদি ফিশারি করা হয় এবং তাতে রাস্তায় স্থায়ী জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়, তবে ফিশারি মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    বিজ্ঞান মেলায় খুদে শিক্ষার্থীদের যত উদ্ভাবন

    মাভাবিপ্রবিসাসের কমিটি বাতিলের দাবি

    টেকনাফে নবজাতকের পরিত্যক্ত মরদেহ উদ্ধার

    করোনায় আরও একটি মৃত্যুশূন্য দিন

    স্বামী বদলানো যায় কিন্তু প্রতিবেশী না—ভারত সম্পর্কে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী    

    দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরি পারের অপেক্ষায় যানবাহনের দীর্ঘ সারি

    চাটমোহরে ৪ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান

    প্রিয় বালিশ নিয়েই দেশে ফিরলেন রিজওয়ান