Alexa
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১

সেকশন

 

বিলুপ্তপ্রায় ১৭ প্রজাতির মাছ

আপডেট : ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৩

চট্টগ্রাম শহরের আশপাশের পাঁচ নদী থেকে গত এক দশকে অন্তত ১৭ প্রজাতির দেশীয় মাছ প্রায় বিলুপ্তির পর্যায়ে চলে গেছে। আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রামের (আইআইইউসি) দুজন শিক্ষকের গবেষণায় এমন চিত্র উঠে এসেছে।

২০০০ সালের মে মাস থেকে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত চট্টগ্রামের কর্ণফুলী, হালদা, সাঙ্গু, শিকলবাহা ও চাঁদখালী নদীতে এ গবেষণা চালানো হয়। গবেষণায় নেতৃত্ব দেন আইআইইউসির সাবেক প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর নদী গবেষক প্রফেসর ড. মোহাম্মদ আলী আজাদী। তাঁর সহযোগী হিসেবে কাজ করেছেন নদী গবেষক ড. মোহাম্মদ আরশাদ উল আলম।

গবেষণায় পাঁচ নদীতে মোট ১৩০ প্রজাতির মাছ, চিংড়ি ও কাঁকড়ার খোঁজ মিলেছে। এর মধ্যে ১১২ প্রজাতির মাছ ও ১৮ প্রজাতির চিংড়ি ও কাঁকড়া রয়েছে। ১১২ প্রজাতির মাছের মধ্যে নাইলোটিকা মাছকে মারাত্মকভাবে বিপন্ন অবস্থায় পাওয়া গেছে। এ ছাড়া ৬ প্রজাতির মাছ বিপন্ন এবং ১১ প্রজাতির মাছ অস্তিত্বের হুমকিতে রয়েছে।

বিপন্ন অবস্থায় থাকা দেশীয় মাছের মধ্যে আছে বাইম, অলুয়া, গ্যাং মাগুর, গুলশা, ট্যাংরা, বাগাড়, চরপমহাল, নাককাটা, ঢেলা, শিং ওয়ালা রুই, ছেপচেলা, কালাবাটা, ঘোড়াচেলা, শিলবাইলা, চ্যাং মাছ, টাকি, ভোটবাইলা, শোলসহ বেশ কিছু মাছ।

গবেষণায় দেখা গেছে, কর্ণফুলী নদীতে ১১০ প্রজাতির মাছ ও ১৮ প্রজাতির চিংড়ি-কাঁকড়া আছে। সাঙ্গু নদীতে আছে ১১১ প্রজাতির মাছ ও ১৮ প্রজাতির চিংড়ি-কাঁকড়া। এ ছাড়া শিকলবাহা নদীতে ৭৪ প্রজাতির মাছ ও ১১ প্রজাতির চিংড়ি-কাঁকড়া এবং চাঁদখালী নদী থেকে ৭২ প্রজাতির মাছ ও ১১ প্রজাতির চিংড়ি-কাঁকড়ার অস্তিত্ব রেকর্ড করা হয়েছে। একইভাবে হালদায় ৮৩ প্রজাতির মাছ ও ১০ প্রজাতির চিংড়ি-কাঁকড়া পাওয়া গেছে। গবেষকেরা এসব মাছ ২০টি বর্গ (Order) ও ৪৭টি পরিবারে (Family) ভাগ করেছেন।

জেলা মৎস্য বিভাগের জরিপ কর্মকর্তা মো. মাহবুবুর রহমান জানান, নদীতে কলকারখানার বর্জ্য প্রবাহের কারণে মাছের খাদ্য ও ডিম নষ্ট হয়। ফলে মাছের উৎপাদন কমে বিলুপ্ত হয়। সাঙ্গু নদীতে এখন ৮ প্রজাতির মাছ একেবারেই পাওয়া যাচ্ছে না। স্বল্প পরিমাণে এখনো টিকে আছে ৩০ প্রজাতির, বিপন্নপ্রায় ১২ প্রজাতির মাছ।

চট্টগ্রামে দেশীয় মাছ বিলুপ্ত হওয়ার কথা স্বীকার করেন মাহবুবুর রহমান। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, ‘আমরা চেষ্টা করছি এসব বিলুপ্ত মাছের কিছু কিছু কালচার তৈরির। এর মধ্যে অনেক মাছের কালচার তৈরি করা হয়েছে। কেসকি মাছের কালচার তৈরি প্রক্রিয়াধীন। গুইল্যা মাছের কালচার এখন চাষ পর্যায়ে রয়েছে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ফেনীতে কেন্দ্র দখলের অভিযোগ, প্রার্থীসহ আটক ১৬

    লক্ষ্মীপুরে নির্বাচনী সহিংসতায় ইউনিয়ন ছাত্রলীগ সভাপতির মৃত্যু

    জামিন পেলেন চমেকের মারামারিতে গ্রেপ্তার হওয়া দুই শিক্ষার্থী

    লক্ষ্মীপুরে দুই প্রার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষে ৬ জন আহত, গ্রেপ্তার ৩০ 

    নৌকায় ভোট না দেওয়ায় যুবলীগ নেতাকে মারধরের অভিযোগ

    উত্তরখানে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও পুলিশ ক্যাম্প তৈরির নির্দেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

    ক্ষীণ আশা নিয়ে শুরু হচ্ছে ইরান পরমাণু আলোচনা

    তৃতীয় লিঙ্গের চেয়ারম্যান প্রার্থীর কাছে নৌকার ভরাডুবি

    নীলফামারীতে ভোট কেন্দ্রে সংঘর্ষে বিজিবি সদস্য নিহত

    ‘গায়ের রং কালো বলে আমাকে আক্রমণ করা হয়েছে’

    মুহুর্মুহু বোমাবাজিতে শেষ হলো গোসাইরহাটের ভোটগ্রহণ