Alexa
বৃহস্পতিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

থ্রি হুইলারের দখলে ফুটপাত

আপডেট : ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৩:০২

ডুমুরিয়ার খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কের ফুটপাত দখল করে থ্রি-হুইলার স্ট্যান্ড করেছে চালকেরা। গতকালের ছবি। আজকের পত্রিকা নিষিদ্ধ হলেও মহাসড়কে দৌরাত্ম্য থামছে না তিন চাকার থ্রি হুইলার যানের। সড়ক দুর্ঘটনার অন্যতম কারণ এ যানবাহনগুলো নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই চলছে।

জানা গেছে, খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে গল্লামারী-চুকনগর পর্যন্ত অবাধে চলাচল করছে থ্রি হুইলার। মহাসড়কের ফুটপাত দখল করে স্ট্যান্ড তৈরি করেছে এ যানবাহন-সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা।

ফিটনেসহীন গাড়ি, ট্রাফিক আইনের কোনো ধারণা নেই—এমন চালক মহাসড়কে থ্রি হুইলার যানবাহন ও মাহেন্দ্র নিয়ে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে যাত্রীদের জীবন। কোনোভাবেই থামছে না তাঁদের দৌরাত্ম্য। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ডুমুরিয়া থেকে গল্লামারী পর্যন্ত প্রায় ১৫০টি মাহেন্দ্র প্রতিদিন চলাচল করে। এগুলো অবৈধভাবে মহাসড়কের ফুটপাত দখল করে স্ট্যান্ড তৈরি করে নিয়েছে ডুমুরিয়ায়। রাজনৈতিক ও প্রশাসনিক আশীর্বাদে এসব যান চলাচল করছে বলে জানা গেছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে অনেক মাহেন্দ্রচালক বলেন, ‘ডুমুরিয়া থেকে গল্লামারী পর্যন্ত আমরা প্রায় ১৫০ জন মাহেন্দ্রচালক। প্রতিদিন গাড়ি প্রতি আপ-ডাউনে ৪০ টাকা করে চাঁদা দিতে হয়। এ ক্ষেত্রে প্রতি চালক তিন-চারটি ট্রিপ পায়। এতে প্রতিদিন চাঁদা ওঠে প্রায় ১৮ থেকে ২৪ হাজার টাকা। এ ছাড়া মাসিক চাঁদা দিতে হয় ১ হাজার টাকা। ১৫০টি গাড়ি থেকে মোট মাসিক চাঁদা আদায় হয় প্রায় দেড় লক্ষ টাকা।

‘এ ছাড়া রয়েছে প্রতিটি গাড়ির ভর্তি-বাণিজ্য। অর্থাৎ একটি গাড়ি রাস্তায় নামানোর শুরুতেই গাড়িপ্রতি ৫ থেকে ১০ হাজার টাকা পর্যন্ত চাঁদা দিতে হয়। যে দিতে পারে না তাকে গাড়ি চালাতে দেওয়া হয় না। এই চাঁদার টাকা কী হয়, কোথায় যায় চালকেরা কিছুই জানে না।’

তাঁরা আরও বলেন, ‘আমরা চালকেরা অসহায় ও গরিব মানুষ। ধারদেনা, কিস্তি করে গাড়ি কিনে আমাদের সংসার চলে না। অথচ প্রতিদিন স্ট্যান্ডের চাঁদা দিতে হয়। এরপরও রয়েছে পুলিশের ঝামেলা। মহাসড়কে চলাচল করতে গিয়ে পুলিশ মামলা দেয় এবং মাহেন্দ্র জব্দ করে। সে ক্ষেত্রে যেসব নেতা টাকা নেন তাঁদের বললে কোনো ফল হয় না।’

খুলনা থেকে ডুমুরিয়ায় চলাচলকারী যাত্রীদের সঙ্গে কথা বললে তাঁরা বলেন, ‘প্রতিনিয়ত জীবনের ঝুঁকি নিয়ে আমাদের ডুমুরিয়া থেকে খুলনায় যাতায়াত করতে হচ্ছে। ডুমুরিয়া এখন সড়ক দুর্ঘটনার মৃত্যুকূপ হিসেবে পরিচিতি লাভ করছে। এখানে যেসব অবৈধ থ্রি হুইলার সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে মহাসড়কে চলাচল করছে, এগুলোকে সহযোগিতা করছেন একশ্রেণির অসাধু রাজনৈতিক নেতা ও পুলিশ প্রশাসন। আমরা এর প্রতিকার চাই।’

গত ২৬ সেপ্টেম্বর মহাসড়কে ট্রাকের ধাক্কায় একটি মাহেন্দ্র খাদে পড়ে ঘটনাস্থলে পাঁচজন নিহত হয়। এ ছাড়া ২৯ সেপ্টেম্বর বাসের ধাক্কায় থ্রি হুইলারের যাত্রী এক বৃদ্ধ মারা যান। ৫ অক্টোবর সড়কে একজন ফুটবল খেলোয়াড় এবং ১৬ অক্টোবর মোটরসাইকেল আরোহী প্রাণ হারান।

‘নিরাপদ সড়ক চাই’ ডুমুরিয়া উপজেলা শাখার আহ্বায়ক খান মহিদুল ইসলাম বলেন, ‘নিরাপদ সড়ক চাই একটি জাতীয় সামাজিক সংগঠন। আমরা প্রতিনিয়ত সড়ক দুর্ঘটনা রোধে কাজ করে চলেছি। কিন্তু কিছু স্বার্থান্বেষী মহল ব্যক্তিস্বার্থের জন্য সড়ক প্রশাসনের সঙ্গে যোগসাজশে সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে সড়কে অনিয়ম করে যাচ্ছে। যে কারণে মহাসড়কে অবৈধ থ্রি হুইলার যানবাহন চলাচল থামছে না। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই। সঙ্গে সঙ্গে সবাইকে সতর্ক ও সচেতন হয়ে পথ চলার আহ্বান জানাই।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    কেঁদে ফেললেন তাজউদ্দীন আহমদ

    যেখানে সবার ওপরে বার্সেলোনা

    জেএসএসে অসন্তোষ,তুষ্টি সরকারে

    ‘জেলা পরিষদ নির্বাচন জরুরি’

    কেলেঙ্কারির জেরে চীনে বন্ধ হলো নারীদের টেনিস প্রতিযোগিতা

    কেঁদে ফেললেন তাজউদ্দীন আহমদ

    যেখানে সবার ওপরে বার্সেলোনা

    এখনই জাতিসংঘে দেখা যাবে না তালেবান-মিয়ানমারের প্রতিনিধিদের

    জাককানইবি এলাকায় লাগামহীন ভাড়ায় ভোগান্তিতে শিক্ষার্থীরা

    আমিনবাজারে ছয় শিক্ষার্থীকে হত্যা মামলায় ১৩ জনের মৃত্যুদণ্ড, ১৯ জনের যাবজ্জীবন