Alexa
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১

সেকশন

 

নন্দীগ্রামে বৃদ্ধি পাচ্ছে পরিবেশ বিপর্যয়কারী ইউক্যালিপটাস গাছের উৎপাদন ও বিপণন

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৫:৫২

নন্দীগ্রাম উপজেলার অধিকাংশ সড়কে ইউক্যালিপটাস গাছ লাগানো হয়েছে। ছবি: আজকের পত্রিকা  বগুড়ার নন্দীগ্রামে দিনদিন বৃদ্ধি পাচ্ছে পরিবেশ বিপর্যয়কারী ইউক্যালিপটাস গাছের উৎপাদন ও বিপণন। ইউক্যালিপটাস গাছের করালগ্রাসে কৃষিজমি ও পরিবেশের ওপর মারাত্মক প্রভাব পড়ছে। কোনোভাবেই ইউক্যালিপটাস গাছের উৎপাদন ঠেকানো যাচ্ছে না। ফলে আবাদি জমি, বসতবাড়ি ও সড়কগুলোতে এই গাছের বিস্তৃতি ক্রমেই বাড়ছে। 

দ্রুত বেড়ে ওঠার কারণে এই গাছ অল্প দিনেই বিক্রি করা যায়। এ জন্য সাধারণ মানুষ পরিবেশের কথা না ভেবে লোভে পড়ে ক্ষতিকর ইউক্যালিপটাস গাছ লাগাচ্ছে। সরকার মানুষ ও পরিবেশের কথা চিন্তা করে ২০০৮ সালে ইউক্যালিপটাস গাছের চারা উৎপাদন ও বিপণন নিষিদ্ধ করে। কিন্তু সঠিক মনিটরিং না থাকায় কোনো ক্রমেই বন্ধ হচ্ছে না এই গাছের উৎপাদন ও বিপণন। 

এ উপজেলার কৃষকেরা বাড়তি আয়ের আশায় আবাদি জমি, বসতবাড়ি, জমির আইলে ও পতিত জমিতে ইউক্যালিপটাস গাছ লাগান। এ ছাড়া সড়কগুলোতেও চোখে পড়ে সারি সারি ইউক্যালিপটাস গাছ। এই গাছ লাগানোর কারণে ওই অঞ্চলে ফলদ বৃক্ষের চারার সংকট এবং আশপাশের আবাদি জমির ফলন বিপর্যয়সহ জীববৈচিত্র্যে পড়েছে নানা নেতিবাচক প্রভাব। ফলদ গাছ কমে যাওয়ায় পুষ্টির অভাবে পাশাপাশি বাড়ছে অ্যাজমা, হাঁপানিসহ শ্বাসকষ্টজনিত রোগের প্রভাব। 

পরিবেশ বিপর্যয়কারী ইউক্যালিপটাস গাছ মাটি থেকে অতিমাত্রায় পানি শোষণ করে। এই গাছ আশপাশের প্রায় ৫০ থেকে ৬০ ফুট এলাকার পানি শোষণ করে ফেলে। একটি পূর্ণবয়স্ক ইউক্যালিপটাস গাছ ২৪ ঘণ্টায় ভূগর্ভ থেকে প্রায় ৯০ লিটার পানি শোষণ করে। ফলে জলবায়ুর জন্য এই গাছ মারাত্মকভাবে পরিবেশের বিপর্যয় ঘটাচ্ছে।

বেঁচে থাকার জন্য মানুষের প্রয়োজন অক্সিজেন, তেমনি ইউক্যালিপটাস গাছও বেশি পরিমাণে খাদ্য উৎপাদন করার জন্য অক্সিজেন গ্রহণ করে এবং অধিক পরিমাণে কার্বন ডাই-অক্সাইড ত্যাগ করে। সাধারণত গাছ কার্বন ডাই-অক্সাইড গ্রহণ করে আর অক্সিজেন সরবরাহ করে পরিবেশ নির্মল ও প্রাণীকুলের স্বাভাবিক শ্বাস-প্রশ্বাসে সহায়তা করে। অথচ ইউক্যালিপটাস গাছ অক্সিজেন গ্রহণ করে এবং কার্বন ডাই-অক্সাইড নির্গমন করে। এর পাতা ও ডালপালা অজৈব পদার্থের মতো কাজ করে জমিকে অনুর্বর করে থাকে। এতে ফসলের উৎপাদন কমে যায়। 

নন্দীগ্রাম উপজেলার অধিকাংশ সড়কে ইউক্যালিপটাস গাছ লাগানো হয়েছে। ছবি: আজকের পত্রিকা  উপজেলার বিজরুল গ্রামের কৃষক হেলাল উদ্দিন বলেন, 'আমার পতিত জমিতে ইউক্যালিপটাস গাছ লাগাইছি। এ গাছ লাগালে যে ক্ষতি হয় তা জানি না। ইউক্যালিপটাস গাছ তাড়াতাড়ি বড় হয়, সে জন্য লাগাইছি।' 

দলগাছা গ্রামের কৃষক মুনিরুজ্জামান বলেন, 'এত গাছ থাকতে সড়কের দুই পাশে ইউক্যালিপটাস গাছ লাগানো হয়েছে। এই গাছ লাগানোর পর থেকে জমির ফলন কমে গেছে। সব সময় ধানখেতে গাছের পাতা পড়ে।'

উপজেলা বন কর্মকর্তা রফিকুল ইসলাম বলেন, 'ইউক্যালিপটাস গাছের উৎপাদন কিংবা বিপণনে আমরা মানুষকে নিরুৎসাহিত করছি। আমাদের নার্সারিগুলোতে ইউক্যালিপটাস গাছের উৎপাদন করা হয় না।' এ উপজেলার অধিকাংশ সড়কে ইউক্যালিপটাস গাছ লাগানো হয়েছে এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, 'এই গাছগুলো অনেক আগেই লাগানো হয়েছে। নতুন করে আমরা এই গাছ লাগানো বন্ধ করেছি এবং সাধারণ মানুষকে এই গাছ লাগাতে নিষেধ করি।' 

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আদনান বাবু বলেন, 'ফসলি জমির জন্য ইউক্যালিপটাস গাছ খুবই ক্ষতিকর। এই গাছের পাতা পড়ে মাটির স্তর বিষাক্ত করে ফেলে। সড়ক ও জমির আইলে ইউক্যালিপটাস গাছের কারণে কৃষকদের সোনালি ফসল অনেকাংশে কমে যাচ্ছে। ইউক্যালিপটাস গাছের কারণে মাটির পুষ্টি-প্রবাহও নষ্ট হয়। এতে ওই স্থানে ঘাস ও লতাপাতা জন্মাতে পারে না। ইউক্যালিপটাস গাছ বিভিন্ন পোকামাকড় ও পাখিদের জন্য যথেষ্ট ক্ষতিকর।'

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    চলতি বছরে ঢাকার সড়কে প্রাণ ঝরেছে ১১৯টি

    উত্তরখানে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও পুলিশ ক্যাম্প তৈরির নির্দেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

    তৃতীয় লিঙ্গের চেয়ারম্যান প্রার্থীর কাছে নৌকার ভরাডুবি

    নীলফামারীতে ভোট কেন্দ্রে সংঘর্ষে বিজিবি সদস্য নিহত

    মুহুর্মুহু বোমাবাজিতে শেষ হলো গোসাইরহাটের ভোটগ্রহণ

    জ্যান্ত প্রতীক নিয়ে হাজির সমর্থক

    দেশে তামাক কোম্পানির হস্তক্ষেপ বেড়েছে

    ডিএসইতে সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন

    চলতি বছরে ঢাকার সড়কে প্রাণ ঝরেছে ১১৯টি

    নরসিংদীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আরও একজনের মৃত্যু  

    উত্তরখানে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও পুলিশ ক্যাম্প তৈরির নির্দেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

    ক্ষীণ আশা নিয়ে শুরু হচ্ছে ইরান পরমাণু আলোচনা