Alexa
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১

সেকশন

 

হাগের আডির মতো ২০-২৫ টেহায় বেচতাছে বন

আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৫:০০

চাহিদার তুলনায় খড়ের জোগান কম থাকায় বিক্রি হচ্ছে দ্বিগুণ দামে। ছবি: আজকের পত্রিকা  গরুর অন্যতম খাবার হচ্ছে খড়। বছরের এই সময়টাতে খড়ের সংকট থাকায় প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকসহ খামারিদের খড়ের জোগান দিতে খানিকটা হিমশিম খেতে হয়। চাহিদার তুলনায় খড়ের জোগান কম থাকায় তুলনামূলকভাবে দামও রয়েছে দ্বিগুণ, যে কারণে শাকসবজির মতো আঁটি সাজিয়ে বিক্রি হচ্ছে খড়। প্রতি আঁটি খড় বিক্রি হচ্ছে ২০-২৫ টাকা দরে।  

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে গোখাদ্যের চাহিদা মেটাতে শাকসবজির মতো আঁটি হিসেবে বিক্রি হচ্ছে খড়। ঈশ্বরগঞ্জ পৌর শহরের কাঁচামাটিয়া নদীর পুরাতন ব্রিজের ওপর গেলেই দেখা মেলে খড় বেচাকেনার এমন দৃশ্য, যেখানে উপজেলার দূরদূরান্ত থেকে ছুটে আসা প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকসহ ছোট খামারিদের সংখ্যাই বেশি। খড় কিনতে আসা ক্রেতারা কেউ নিচ্ছেন ১০ কিংবা ২০ আঁটি, আবার কেউ ভ্যানগাড়ি নিয়ে পুরো সপ্তাহের খড় সংগ্রহ করছেন। প্রতি খড়ের আঁটি বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ২৫ টাকায়। চাহিদার তুলনায় জোগানে সংকট হওয়ায় খড়ের দাম দ্বিগুণ বলে দাবি ক্রেতাদের। 

স্থানীয় খড় বিক্রেতা মো. আব্দুস ছাত্তার বলেন, `পার্শ্ববর্তী উপজেলা কেন্দুয়া থেকে খড়গুলো সংগ্রহ করছি। চাহিদার তুলনায় খড়ের সংকট থাকায় অনেক বেশি দাম দিয়ে তা সংগ্রহ করতে হয়, যে কারণে স্বাভাবিকের চেয়ে দাম একটু বেশি নিতে হচ্ছে। প্রতিদিন ৮-১০ হাজার টাকায় খড় বিক্রি করছি।' 

খড় কিনতে আসা মো. মোস্তফা মিয়া বলেন, `একটা দুধের গাভিসহ ছোটবড় মিলিয়ে আমার চারটি গরু আছে। গাভিটি প্রতিদিন ৩ লিটারের মতো দুধ দেয়। খড়ের দাম বেশি হওয়ায় দুধ বিক্রি করে যে টাকা আসে, তা খড় কিনতেই চলে যায়। প্রতিদিন ১০ আঁটি করে খড় লাগে।' 

ষাটোর্ধ্ব মো. ইদ্রিছ আলী ফকির বলেন, `হাগের (শাক) আডির মতো ২০-২৫ টেহায় বেচতাছে বন (খড়)। যে টেহার বন পত্তিদিন কিইন্ন্যা গরুরে খাওয়াইতাছি। এর চেয়ে বেশিডি তো হাইন্যাবালা গোয়াইলো (গোয়ালঘর) ধোঁয়া দিই। আর কয়ডা দিন পরে ধাওয়ামাড়ি (ধানকাটা) লাগলে বনের আর অভাব থাকত না।'

এ বিষয়ে প্রান্তিক খামারি মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, বর্ষাকালে গোখাদ্যের সংকট প্রতিবছরই কমবেশি হয়ে থাকে। তবে এ বছর দীর্ঘমেয়াদি বর্ষার কারণে বেশির ভাগ কৃষকের খড় নষ্ট হয়ে গেছে। তাই চাহিদা অনুযায়ী খড়ের দাম দ্বিগুণ।  

পৌর এলাকার খামারি সামী উসমান গনি বলেন, `একদিকে প্রতিনিয়ত গোখাদ্যের দাম বাড়ছে, অন্যদিকে খড়ের দাম দ্বিগুণ হলেও তা সংগ্রহ করতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। সব মিলিয়ে আমাদের মতো খামারিদের টিকে থাকা কঠিন হয়ে পড়েছে।' 

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা আবু সাদাত মোহাম্মদ সায়েম বলেন, আমন ধান কাটা শুরু হলেই খড়ের দাম নিয়ন্ত্রণে এসে যাবে। 

প্রান্তিক পর্যায়ের কৃষকসহ খামারিদের উদ্দেশে তিনি আরও বলেন, গোখাদ্যের বিকল্প হিসেবে ঘাসের চাষ করতে হবে। উপজেলায় বিভিন্ন স্থানে উন্নত ঘাসের চাষ হচ্ছে। আর সিজনের সময় খড় সংগ্রহ করতে হবে। ওই সময় খড়ের দাম কম থাকে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    জ্যান্ত প্রতীক নিয়ে হাজির সমর্থক

    মাদারগঞ্জে শিশু ধর্ষণের অভিযোগ, সালিসি বৈঠকে দফারফার চেষ্টা

    ভোটের পর কেন্দ্রেই বৃদ্ধার মৃত্যু

    আ.লীগের মনোনয়নবঞ্চিত দুই নেতা হলেন প্রিসাইডিং অফিসার

    ভিক্ষুক যখন চেয়ারম্যান প্রার্থী

    দেশে তামাক কোম্পানির হস্তক্ষেপ বেড়েছে

    ডিএসইতে সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন

    চলতি বছরে ঢাকার সড়কে প্রাণ ঝরেছে ১১৯টি

    নরসিংদীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আরও একজনের মৃত্যু  

    উত্তরখানে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও পুলিশ ক্যাম্প তৈরির নির্দেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর

    ক্ষীণ আশা নিয়ে শুরু হচ্ছে ইরান পরমাণু আলোচনা