Alexa
সোমবার, ২৯ নভেম্বর ২০২১

সেকশন

 

রাস্তা বিলীন হয়ে যাচ্ছে খালে

Tushar Miah
আপডেট : ১৯ অক্টোবর ২০২১, ১৭:৩০

বন্দরের কলাগাছিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণে পুনাইনগরের একটি খালের পাড়ে রাস্তা। ছবি: আজকের পত্রিকা  বন্দরের কলাগাছিয়া ইউনিয়নের ২ নম্বর ওয়ার্ডের দক্ষিণে পুনাইনগর। এক বছর আগে এ এলাকায় খালের পাশের একটি মাটির রাস্তার সংস্কারকাজ শুরু হলেও পরে বন্ধ হয়ে যায়। উল্টো রাস্তার মাটি কাটায় চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়েছে রাস্তাটি। রাস্তাসহ আশপাশের বাড়ির জমি খালে বিলীনের পথে।

জানা যায়, পুনাইনগর ছাড়াও ২ নম্বর ওয়ার্ডের উত্তরে আলীনগর, মধ্যে মাধবপাশা ও পূর্বে কান্দিপাড়া অবস্থিত। পুরো ওয়ার্ডে প্রায় দেড় হাজারের বেশি মানুষের বসবাস। এই ওয়ার্ডেই ইউনিয়ন পরিষদ অবস্থিত। সেই বিবেচনায় উন্নয়নের চিত্র মাধবপাশা ও কান্দিপাড়া এলাকায় চোখে পড়ার মতো থাকলেও অবহেলিত থেকে গেছে আলীনগর ও পুনাইনগর।

স্থানীয় লোকজন জানায়, পুনাইনগরে ৩-৪ ফুট চওড়া রাস্তা দিয়ে পুরো এলাকার সাড়ে চার শতাধিক মানুষের যাতায়াত। জনপ্রতিনিধিরা সড়ক সংস্কার করে পাঁচ ফুট চওড়া রাস্তা নির্মাণের প্রতিশ্রুতি দিলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি পাঁচ বছরেও। নেই কোনো সড়কবাতি। পুনাইনগরের পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া খালের পাশের একটি সড়ক সংস্কারের কাজ শেষ না করেই বন্ধ রাখা হয়। এতে বাড়িঘরের মাটি ভেঙে খালে বিলীন হচ্ছে।

পুনাইনগর এলাকার বাসিন্দা শাহাবউদ্দিন (৬৭) বলেন, ‘মেইন রোড থেকে পুনাই গ্রামে ঢোকার রাস্তা ৫ ফুট চওড়া কইরা বানাইবো বলছিল। পাঁচ বছর আগে বাঁধ দিসে। এরপর আর কোনো কাজ হয় নাই। তারপরেও মেম্বার কয়দিন আগে কয় এখানে নাকি ১১ লাখ টাকার কাজ হইসে। কী কাজ করছে হেরাই ভালো জানে। পুরো গ্রামের ভেতর একটিও রাস্তার লাইট নাই। খালপাড় দিয়া আগে মাটির রাস্তা আছিলো। সেই রাস্তায় ৯৬ লাখ টাকার কাজ হইবো বইলা রাস্তা কাইটা শ্যাষ কইরা ফেলসে। বাড়িঘরের মাটি ভাইঙ্গা খালে পড়তাছে। এক বছর আগে একটু কাজ ধরছিলো। এখন কোনো কাজও হয় না, আমরা ঠিকমতো চলতেও পারি না।’

অন্যদিকে আলীনগরের বেশির ভাগই মূল সড়কের পাশে। বাসিন্দাদের চলাচলের প্রধান পথই হচ্ছে উপজেলা পরিষদের পাশ থেকে ধামগড় ও আলীসার্দির দিকে যাওয়া সড়ক। সড়কটি বেহাল। সিএনজিচালিত অটোরিকশা ও অন্যান্য যানবাহন চলাচলে অসুবিধা হচ্ছে ভীষণ। রাত নেমে এলে এই এলাকায় দোকান আর বাড়িঘরের আলোই একমাত্র ভরসা। সড়কেও নেই কোনো সড়কবাতির ব্যবস্থা।

আলীনগর এলাকার বাসিন্দা নজরুল (৫৫) বলেন, ‘আমাদের মেইন রোডটা ভালো করে বানাইলে এই সমস্যা হয় না। রাস্তায় কোনো লাইটও নাই। খালি চেয়ারম্যান মেম্বাররা কয় লাখ টাকার কাজ হইবো। কবে হইবো হেরাই ভালো জানে।’

তবে তুলনামূলক ভালো আছেন মাধবপাশা ও কান্দিপাড়া এলাকার বাসিন্দারা। স্থানীয় মেম্বার এবং ইউপি অফিস দুটোই কান্দিপাড়ায়। আর তাই এখানে ভালো সড়ক এবং সড়কবাতি দুটোই রয়েছে। মাধবপাশা এলাকাতেও নেই দুর্ভোগের তেমন চিত্র।

যোগাযোগ করা হয় ওয়ার্ডের মেম্বার জামান মিয়ার মুঠোফোনে। একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। তাঁর বাড়িতে গিয়েও পাওয়া যায়নি।

তবে এর জবাবে কলাগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেন প্রধান বলেন, ‘আমাদের অধিকাংশ প্রকল্প পাস ও টেন্ডার হওয়ার পর সেসবের বিল আটকে আছে। সরকারি তহবিলে টাকা নেই। এ বিষয়গুলো ঠিকাদারেরা জানতে পেরেছেন। সে কারণে তারা কাজ অর্ধেক করে ফেলে রেখেছেন। টাকা ছাড় পেলেই কাজ শুরু হয়ে যাবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    রসায়নের মূল হলো সমীকরণ

    কোনো বাধ্যতামূলক প্রশ্ন থাকবে না

    পাঁচটি অধ্যায় থেকে প্রশ্ন হবে

    সময়টা কাজে লাগাতে হবে

    সময়ের দিকে লক্ষ রাখবে

    তোমরাই সফল হবে

    ধুনটে ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান হলেন যারা

    দেশে তামাক কোম্পানির হস্তক্ষেপ বেড়েছে

    ডিএসইতে সাত মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন লেনদেন

    চলতি বছরে ঢাকার সড়কে প্রাণ ঝরেছে ১১৯টি

    নরসিংদীতে নির্বাচনী সহিংসতায় আরও একজনের মৃত্যু  

    উত্তরখানে ফায়ার সার্ভিস স্টেশন ও পুলিশ ক্যাম্প তৈরির নির্দেশ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর