Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

আসছে মাংসল দেশি ব্রয়লার

আপডেট : ১৮ অক্টোবর ২০২১, ০৮:৩০

নতুন জাতের নাম দেওয়া হয়েছে মাল্টি কালার টেবিল চিকেন। ছবি: আজকের পত্রিকা ব্রয়লার মুরগির দাম বাড়ছে। বেড়েই চলেছে। গরিব মানুষের আমিষের প্রয়োজন অনেকটাই মেটায় ব্রয়লার মুরগি। গরিব পড়েছে বিপদে।

তবে আশার কথা শোনাচ্ছে বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএলআরআই)। তাদের দাবি, এমন একটি মুরগির জাত উদ্ভাবন করা হয়েছে, যার মাংস হবে অনেক বেশি। দেশীয় জার্মপ্লাজম, ধারাবাহিক সিলেকশন ও ব্রিডিংয়ের মাধ্যমে এ মুরগির জাত উন্নত করা হয়েছে। প্রাণিজ আমিষের চাহিদা মেটাতে নতুন জাতের নাম দেওয়া হয়েছে ‘মাল্টি কালার টেবিল চিকেন’ বা এমসিটিসি।

দেশের মানুষকে আমিষের জোগান দেওয়ার ভাবনা ছিল বিএলআরআইয়ের গবেষকদের মনে। তাই মাংসের চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে এ প্রকল্প চলছে এখন। দেশের পরিবর্তনশীল আবহাওয়ায় এই মুরগিগুলো টিকে থাকবে ভালো। এমসিটিসির মাংসের স্বাদ ও গুণাগুণ দেশি মুরগির মতোই। মাত্র আট সপ্তাহেই এর ওজন হবে ৯৭৫ গ্রাম থেকে এক কেজি। যেখানে সাধারণ দেশি মুরগির সময়ের প্রয়োজন তিন মাস। এই মুরগির মাংসের স্বাদ হবে দেশি মুরগির মতোই। আর পালকের রং হবে দেশি মুরগির পালকের মতো মিশ্র রঙের। ব্রয়লার মুরগির মতো সাদা নয়।

বিএলআরআইয়ের ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা আতাউল গনি রাব্বানী বলেন, ‘এটি আমাদের নিজস্ব প্রকল্প ছিল। উদ্যোগ নেওয়া ও কার্যক্রম শুরু হয় ২০১৪ সালে। ২০১৬ সালে মাঠপর্যায়ে কাজ শুরু হয়। বর্তমানে এমসিটিসির প্রকল্পটি চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। বর্তমানে ব্যাপক প্রসারের জন্য বেসরকারি ও সরকারি পর্যায়ের খামারে এটিকে নিরীক্ষা করা হচ্ছে। প্রকল্প সফল হয়েছে। পরবর্তীকালে সুবিধাজনক সময়ে প্রাতিষ্ঠানিকভাবে এর জাত উদ্ভাবনের ঘোষণা দেওয়া হবে।’

তিনি বলেন, ‘বিশেষজ্ঞদের মাধ্যমে এমসিটিসির প্যানেল টেস্ট করা হয়েছে। এ-সংশ্লিষ্ট সব ধরনের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হয়েছে। এই জাতের মুরগি পালনে জায়গার পরিমাণ, ব্রিডিং, তাপমাত্রা, আলো ও বায়ু ব্যবস্থাপনা অন্যান্য মুরগির মতোই। আমাদের বিভিন্ন গবেষণায় সর্বোচ্চ ১.৫ শতাংশ মৃত্যুহার পাওয়া গেছে উদ্ভাবিত মুরগির।’

নতুন উদ্ভাবিত মাংসল জাতের মুরগি খামারি পর্যায়ে সম্প্রসারণ সফলভাবে করা সম্ভব। এতে খামারিরা প্রচলিত সোনালি বা অন্যান্য ককরেল মুরগির তুলনায় বাজারমূল্য বেশি পাবেন। ফলে স্বল্পমূল্যে প্রান্তিক খামারিরা অধিক মাংস উৎপাদনকারী মুরগি জাতের বাচ্চা পাবেন।

 মাঠপর্যায়ে সম্প্রসারণের লক্ষ্যে ধারাবাহিক গবেষণার মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ক্ষুদ্র ও প্রান্তিক খামারি পর্যায়ে উৎপাদনক্ষমতা, অভিযোজনক্ষমতা, মৃত্যুহার, রোগ-বালাইয়ের প্রাদুর্ভাব ইতিমধ্যে মূল্যায়ন করা হয়েছে। বাণিজ্যিক খামার পর্যায়ে মূল্যায়ন ও সম্প্রসারণের জন্য প্রথমে ‘আফতাব বহুমুখী ফার্মস লিমিটেড কোম্পানি’র সঙ্গে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয় এবং তাদের সঙ্গে যৌথ গবেষণা এখনো চলমান।

বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক আবদুল জলিল বলেন, ‘এমসিটিসি মুরগির জাতটি “দেশি ব্রয়লার” বলে অভিহিত করা হচ্ছে। এটিকে সাভারের দুটি, চট্টগ্রামে ১টি ও যশোরের ১টি সরকারি ফার্মে এবং প্রাইভেট দুটি ফার্মের মাধ্যমে আউটার ফার্মিং ট্রায়াল দেওয়া হচ্ছে। এর মধ্যে পুরো বাংলাদেশের আবহাওয়া ও জলবায়ুতে মুরগির অভিযোজনসক্ষমতা নিরূপণ করা হবে। এটি দেখভাল করবে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ নিম্নচাপে পরিণত, রাজধানীতে গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি

    জাওয়াদের প্রভাবে কলাপাড়ায় গুঁড়িগুঁড়ি বৃষ্টি

    বঙ্গোপসাগরে ঘূর্ণিঝড় জাওয়াদ, সমুদ্রবন্দরে ২ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত

    আসছে ‘জাওয়াদ’, সাগরে ১ নম্বর দূরবর্তী সতর্কতা

    দেশের চার সমুদ্র বন্দরকে ১ নম্বর দূরবর্তী সতর্কতা সংকেত

    ম্যানইউর জার্সিতে ইতিহাস গড়লেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত জিদান

    এই সরকার হটাতে আন্দোলনের প্রয়োজন হয় না: জিএম কাদের

    কড়াকড়িতেও ক্যাটরিনা-ভিকির বিয়ের ছবি ভাইরাল

    প্রধানমন্ত্রীর উদ্দেশে রিজভীর ‘শেষ কথা’ 

    ওমিক্রন উদ্বেগজনক হলেও মোকাবিলা সম্ভব

    ঘুমন্ত অবস্থায় এসআইয়ের ‘বিশেষ অঙ্গ’ কেটে দিলেন স্ত্রী