Alexa
বৃহস্পতিবার, ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 

দুর্ঘটনার পরও থামেনি সেই চালক

আপডেট : ১৭ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫২

দুর্ঘটনায় কবলিত বাস। ছবি: আজকের পত্রিকা  ড্রাইভার শোনেনি  গাড়ি থামানোর আকুতি। আধা কিলোমিটার পেছনে পড়ে ছিল ফজলুল হক সহ তাঁর পরিবারের তিন সদস্যের লাশ। দুর্ঘটনার কিছুক্ষণ আগেও ৮ বছরের শিশু আজমিনা বেঁচে ফেরা তার দাদার কোলে ছিল। সে তার মায়ের কোলে ফেরার কিছুক্ষণ পরই ঘটে এই ভয়াবহ দুর্ঘটনা। এখন ফজলুল হকের পরিবারে রইল শুধু তার বৃদ্ধ দুই বাবা-মা।

এমনই এক হৃদয়বিদারক ঘটনার বর্ণনা দিচ্ছিলেন ময়মনসিংহ জেলার ফুলপুর উপজেলার ছনধরা ইউনিয়নের ফজলুল হকের চাচা গাড়িতে থাকা রফিক মন্ডল।

তিনি বলেন, আমিও তাদের সঙ্গে গাড়ির ডানে ছিলাম। কিছু দূর আগে আমি ডানপাশ থেকে গাড়ির বামপাশে এসে বসি। আমি ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। গাড়িতে ধাক্কা লাগার পরে সজাগ হয়ে দেখি আমার ভাতিজা, ভাতিজা বউ, ও তাদের দুই ছেলেমেয়ে গাড়ির ডানপাশের অংশ ভেঙে অনেক পেছনে পড়ে রয়েছে। নেমে আধা কিলোমিটার পেছনে গিয়ে দেখি তারা আর বেঁচে নেই। একেকজন পড়ে রয়েছে একেক জায়গায়, এসব বলে হাউমাউ করে কাঁদতে লাগল সে। 

সে কান্না কিছুটা থামিয়ে আবার বলল, আমি এখন আমার বাড়ির লোকজনকে কীভাবে বলব এই পরিবারের সবাই এভাবে চলে যাওয়ার কথা। পরে অন্য যাত্রীদের কাছ থেকে শুনলাম ড্রাইভারকে গাড়িতে থাকা অক্ষত যাত্রীরা গাড়ি থামাতে বললেও ড্রাইভার শোনেনি তাদের কথা। 

মো. আজমল মন্ডল জানায়, ফজলুল হক ও সে ঢাকায় বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে গিয়ে ফেরি করে আচার বিক্রি করত। ওইখানেই তাঁর ভাতিজার বউ ও তাদের দুই ছেলেমেয়ে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকত। ১৫ বছর ধরে তারা ওইখানে এই ব্যবসা করত। 

ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের চেলেরঘাটে দাঁড়িয়ে থাকা ড্রাম ট্রাকে যাত্রীবাহী বাস ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের চারজনসহ ৭ জন নিহত হয়। এতে আহত হয় আরও ৯ জন। 

ত্রিশাল থানা-পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিস সূত্রে জানা যায়, আজ শনিবার বিকেলে শেরপুরগামী রহিম পরিবহন ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের ত্রিশাল উপজেলার চেলেরঘাট নামক স্থানে ওভারটেক করার সময় দাঁড়িয়ে থাকা পাথর ভর্তি ড্রাম ট্রাককে ধাক্কা দিলে বাসের পেছনের অংশ দুমড়ে মুচড়ে যায়। এতে ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের পিতা মাতা দু-শিশু সন্তানসহ মোট ৫ জন নিহত হয়েছে। এ সময় আহত হয়েছে দশজন। 

আহতদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করলে হাসপাতালে আরও দু'জন মৃত্যুবরণ করেন। 

নিহতরা হলেন ফুলপুর উপজেলার একই পরিবারের ফজলুল হক (ফজু) (৩০), তার স্ত্রী ফাতেমা বেগম (২৮), ছেলে আব্দুল্লাহ (৬) ও মেয়ে মারিয়া বেগম (০৮)। 

এছাড়াও হেলেনা (৪০), মিরাজ (৩৫) ও অজ্ঞাত একজন (৩৫) মারা গেছে। 

আহতদের ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এদের মধ্যে উপজেলার নিগোরকান্দা গ্রামের ফাহাদ, বাবুল ও ফুলপুর উপজেলার রফিককে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ভর্তি করা হয়েছে।

ত্রিশাল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাইন উদ্দিন জানান, উপজেলার চেলেরঘাট নামকস্থানে দাঁড়িয়ে থাকা ড্রাম ট্রাকে পেছন দিকে আসা শেরপুরগামী বাস ধাক্কা দিলে ঘটনাস্থলেই একই পরিবারের চারজনসহ সাতজন নিহত ও দশজন আহত হয়েছে। আহতদের মধ্যে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে দুজন নিহত হয়েছে। মহাসড়কে গাড়ি চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    দুর্গাপুরে শহীদ বুদ্ধিজীবী অধ্যাপক আরজ আলী স্মৃতি রক্ষায় মানববন্ধন

    মেলান্দহে সরিষা ফুলে ছেয়ে গেছে মাঠ

    হিজলায় দুই অটোরিকশার সংঘর্ষে যুবকের মৃত্যু, আটক ১ 

    ঝিনাইগাতীতে বিএনপি ও ছাত্রদল নেতা পেলেন নৌকার মনোনয়ন

    বুড়িচংয়ে অটোরিকশার চাকায় চাদর পেঁচিয়ে স্কুলছাত্রের মৃত্যু

    রামগড়ে অটোরিকশার ধাক্কায় শিশুর মৃত্যু 

    চবিতে ইমামকে গণপিটুনির ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন

    ডাকাতির পর রাতভর ২ নারীকে ধর্ষণ, ৫ আসামির দুবার যাবজ্জীবন

    ভাঙ্গুড়ায় রোকেয়া দিবসে চার জয়িতাকে সংবর্ধনা

    ম্যানইউর জার্সিতে ইতিহাস গড়লেন পাকিস্তানি বংশোদ্ভূত জিদান

    এই সরকার হটাতে আন্দোলনের প্রয়োজন হয় না: জিএম কাদের

    কড়াকড়িতেও ক্যাটরিনা-ভিকির বিয়ের ছবি ভাইরাল