Alexa
মঙ্গলবার, ৩০ নভেম্বর ২০২১

সেকশন

 

বিচারহীনতার কারণে সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতন ঘটছে

আপডেট : ১৬ অক্টোবর ২০২১, ১৫:১২

হিন্দু নির্যাতনের পরিস্থিতি পূর্বের সব নির্যাতনের ইতিহাসকে ছাড়িয়েছে। ছবি: সংগৃহীত আগের নির্যাতনের ঘটনায় শাস্তি ও বিচার না হওয়ায় সংখ্যালঘুদের ওপর নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে। আর কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেশে হিন্দু নির্যাতনের পরিস্থিতি পূর্বের সব নির্যাতনের ইতিহাসকে ছাড়িয়েছে। 

আজ শনিবার সকালে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে এ অভিযোগ করেছেন। তাঁরা দাবি করেন, দুর্গাপূজার সময় অস্থিরতা তৈরির জন্য কুমিল্লার মন্দিরের পূজামণ্ডপে ঘটনাটি ঘটানো হয়েছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে ওই ঘটনায় জড়িতদের গ্রেপ্তার এবং অপরাধ ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে বিচারের দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। 

রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে শনিবার সকালে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি পালন করেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। আটটি হিন্দু সম্প্রদায়ের সংগঠন এসব কর্মসূচি পালন করে। 

বাংলাদেশ হিন্দু মহাজোট এক মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে জানিয়েছে, দেশে এর আগেও ধর্ম অবমাননার অজুহাতে নাসিরনগর, রাউজান, ফটিকছড়ি, কক্সবাজার, দিনাজপুর, সাতক্ষীরা, যশোর ও খুলনায় সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর কয়েক ডজন হামলার ঘটনা ঘটেছে। ওই সব ঘটনার বিচার ও শাস্তি না হওয়ার কারণেই দেশে বারবার সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা-নির্যাতন হচ্ছে। তাঁদের কর্মসূচিতে সংগঠনের মহাসচিব গোবিন্দ চন্দ্র প্রামাণিক বলেন, একটি স্বার্থান্বেষী মহল দূরভিসন্ধিমূলকভাবে কুমিল্লার পূজামণ্ডপে ঘটনাটি ঘটিয়েছে। এরপর চাঁদপুর, কক্সবাজার, চট্টগ্রাম, নোয়াখালী, সিরাজগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কুড়িগ্রাম, সিলেট, মৌলভীবাজার, লক্ষ্মীপুর ও বান্দরবানের বিভিন্ন জায়গায় পূজামণ্ডপ ভাঙচুর, আগুন দেওয়া, বাড়িঘরে হামলা, সনাতনীদের পিটিয়ে আহত করার মতো ঘটনা ঘটেছে। 

মহাজোট বলেছে, এসব ঘটনায় শতাধিক পূজামণ্ডপ ধ্বংস করা হয়েছে। চাঁদপুরে দুজন, কুমিল্লায় একজন এবং নোয়াখালীতে চারজনকে নৃশংসভাবে হত্যা করা হয়েছে। পরিকল্পিতভাবে দেশে অস্থিরতা তৈরির জন্য এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে। আগামী তিন দিনের মধ্যে সব অপরাধীকে দ্রুত গ্রেপ্তার ও মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালের মাধ্যমে বিচার করতে হবে, অন্যথায় হিন্দু মহাজোট সারা দেশে ব্যাপক আন্দোলন গড়ে তুলবে।

আরেকটি মানববন্ধনে বাংলাদেশ হিন্দু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সাজন কুমার বলেন, দেশে বর্তমান হিন্দু নির্যাতনের পরিস্থিতি ইতিহাসকে ছাড়িয়ে যাচ্ছে। অসাম্প্রদায়িক সরকারের কাছে দেশের মানুষ এটি আশা করে না। মানববন্ধন থেকে সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর ভিন্ন ভিন্ন নির্যাতন বন্ধ করা এবং সংখ্যালঘু সুরক্ষা আইন বাস্তবায়নের দাবি জানানো হয়। 

দেশের বিভিন্ন স্থানে পূজামণ্ডপে হামলা, হিন্দু বাড়ি-ঘরের ওপর হামলার প্রতিবাদে এবং জড়িতদের গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবিতে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে একই সময়ে পাশাপাশি মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশ করে বাংলাদেশ হিন্দু ছাত্র জোট, শারদাঞ্জলি ফোরাম, বাংলাদেশ জাতীয় হিন্দু মহাসংঘ, বাংলাদেশ হিন্দু যুব পরিষদ, বাংলাদেশ সনাতন কল্যাণ জোট এবং জাগো হিন্দু পরিষদ। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    সাঁতার শিখতে গিয়ে সদ্য নিয়োগ পাওয়া সেনাসদস্যের মৃত্যু

    ডিআরইউ সভাপতি মিঠু, সম্পাদক হাসিব

    নিরাপদ সড়কের দাবিতে খুবিতে মোমবাতি প্রজ্বালন

    রাবিতে জিল্লুর রহিম রিসার্চ ল্যাবরেটরি উদ্বোধন

    সাঁতার শিখতে গিয়ে সদ্য নিয়োগ পাওয়া সেনাসদস্যের মৃত্যু

    ডিআরইউ সভাপতি মিঠু, সম্পাদক হাসিব

    ১৭ মিলিয়নের গাড়িতে চড়া হবে না রোনালদোর!

    নিরাপদ সড়কের দাবিতে খুবিতে মোমবাতি প্রজ্বালন

    রাবিতে জিল্লুর রহিম রিসার্চ ল্যাবরেটরি উদ্বোধন

    ‘বন্ধুকযুদ্ধে’ নিহতদের এলাকায় দাফন না করার দাবিতে ঝাড়ুমিছিল