বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

বাল্যবিয়ের শিকার কিশোরীর বিষপানে মৃত্যু, বিচারের দাবিতে মানববন্ধন

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ২০:৫৩

এই হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িতদের শাস্তির দাবিতে বিদ্যালয়ের সামনে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে সহপাঠী ও অন্যান্য শিক্ষার্থীরা। ছবি: আজকের পত্রিকা  শরীয়তপুরে বাল্যবিয়ের শিকার স্বর্ণা আক্তার (১৬) নামে এক কিশোরীর বিষপানে মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনায় আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে বিদ্যালয়ের সামনে শিক্ষার্থীরা মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল করে। এ সময় জেলা প্রশাসকের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে স্মারকলিপি দেওয়া হয়।

স্বর্ণা আক্তার জেলার কালেক্টরেট পাবলিক হাইস্কুলের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী ছিল। সে ভেদরগঞ্জের চরচান্দা হাওলাদারকান্দি গ্রামের হানিফ হাওলাদারের মেয়ে।

শরীয়তপুর সদরের পালং মডেল থানা সূত্রে জানা যায়, গত বছর অক্টোবর মাসে শরীয়তপুর পৌরসভার তুলাসার এলাকার বাসিন্দা আল আমিনের (২৫) সঙ্গে স্বর্ণা আক্তারের বিয়ে হয়। এক বছর যেতে না যেতেই গত মঙ্গলবার সকালে শ্বশুরবাড়িতে বিষপানে আত্মহত্যার চেষ্টা করে সে। পরে দ্রুত তাকে শরীয়তপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। কিন্তু অবস্থার অবনতি হলে গুরুতর অবস্থায় তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ওই দিন রাতেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুর খবরে স্বামী আল আমিন স্বর্ণাকে হাসপাতালে রেখেই পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় ফরিদপুর সদর থানা-পুলিশ একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করেছে। পরে মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এ বিষয়ে স্বর্ণার চাচা ফারুক হাওলাদার বলেন, বিয়ের সময় ও পরে দুই দফায় আল আমিনকে ৫ লাখ টাকা যৌতুক দেওয়া হয়েছে। এরপরেও স্বর্ণাকে যৌতুকের জন্য নির্যাতন করা হত। আমাদের মেয়েটাকে ওরা মেরে ফেলবে বুঝতে পারিনি। আমরা হত্যাকারীদের বিরুদ্ধে মামলা করব। 

স্বর্ণার সহপাঠী মিথিলা বলেন, বাল্য বিয়ের কারণেই এ ঘটনা ঘটেছে। কারণ সংসার, স্কুল, পরিবেশ সবদিক এই বয়সে মানানো যায় না। অনেক চাপ সৃষ্টি হয়। এ কারণেই হয়তো স্বর্ণা আত্মহত্যার পথ বেছে নিয়েছে। তাকে হত্যা করা হয়েছে। স্বর্ণার মৃত্যুর জন্য যারা দায়ী তাদের আইনের আওতায় এনে শাস্তি দেওয়া হোক এটাই আমাদের দাবি। আর বাল্যবিবাহ বন্ধে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়ার জোর পদক্ষেপ নিতে প্রশাসনকে অনুরোধ করছি।

পালং মডেল থানার ওসি আক্তার হোসেন বলেন, এ ঘটনায় ফরিদপুরে একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। ওই কিশোরীর স্বামী আল আমিন এখনও পলাতক রয়েছে। তার মা ও বোনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় নিয়ে আসা হয়েছিল। পরবর্তীতে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ওসি আরও বলেন, ময়নাতদন্তের প্রতিবেদন পাওয়ার পর হত্যার মূল কারণ জানা যাবে। তখন আইনগত পদক্ষেপ নেওয়া হবে। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতআলোচিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

    চাকরির জন্য যৌতুকের টাকা না দেওয়া অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে মারধর

    বাগাতিপাড়ায় নৌকার বিপক্ষ প্রার্থী সংসদ সদস্যের দুই ভাই

    যশোরে রাজাকারের ছেলেকে মনোনয়ন দেওয়ার অভিযোগ, নেতা-কর্মীদের ক্ষোভ

    দুই দফা চুক্তি ভঙ্গ, পাওনার জন্য শ্রম ভবনের সামনে শ্রমিকদের অবস্থান

    প্রতিবন্ধী মেয়ের লাঠির আঘাতে প্রাণ গেল বাবার 

    পশ্চিম তীরে ৩ হাজার বসতি স্থাপনের অনুমোদন দিল ইসরায়েল

    ব্যবসায়িক স্বার্থে দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ে, শ্রমিকদের বেতন বাড়ে না: নজরুল ইসলাম খান

    চাকরির জন্য যৌতুকের টাকা না দেওয়া অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে মারধর

    ভারতকে বিশ্বকাপ এনে দেওয়া কোচকেই নিয়ে আসছে পাকিস্তান! 

    বিধবা নারীর বাড়িতে ঢুকে হামলার অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

    আনোয়ারায় চার দিনে ৮টি গরু চুরি