মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

কবর দেওয়ার মাটিও নেই

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১০:৩১

সুনামগঞ্জের মধ্যনগর উপজেলার আরিফপুরের স্থায়ী গোরস্থান এখন পানির নিচে। গতকাল তোলা ছবি। আজকের পত্রিকা মধ্যনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের ছয় গ্রামে নেই কোনো স্থায়ী গোরস্থান। প্রায় পাঁচ হাজার মুসলিম জনগোষ্ঠীর বসবাস এই গ্রামগুলোতে। দুর্গম হাওরাঞ্চল হওয়ায় এখানে কোনো স্থায়ী গোরস্থান গড়ে ওঠেনি। বর্ষাকালে কেউ মারা গেলে ঘরের ভিটের মাটি কেটে কবর দিতে হয়। এমনকি শিশু মারা গেলে খাঁচার মধ্যে মাটিচাপা দিয়ে বিলের মধ্যে রেখে আসেন স্বজনেরা। এ দুরবস্থা থেকে মুক্তি পেতে স্থায়ী গোরস্থান চান গ্রামবাসী।

স্থানীয়রা জানান, মধ্যনগর উপজেলার সদর ইউনিয়নের শাইলানি, আরিফপুর, আনোয়ারপুর, অনন্তপুর, শিবরামপুর ও নতুন গ্রাম রাজাপুরে নেই স্থায়ী গোরস্থান। দুর্গম হাওরাঞ্চল হওয়ায় এখানে কোনো স্থায়ী গোরস্থান গড়ে ওঠেনি। যে দুটি অস্থায়ী গোরস্থান রয়েছে, সেগুলোতে হেমন্তকালে যেটুকু সময় পানি না থাকে, ওই সময় শুধু কবর দেওয়া যায়। বর্ষাকালে সেখানে আর কবর দেওয়া যায় না। উপজেলার মধ্যনগর অথবা পার্শ্ববর্তী উপজেলা কলমাকান্দা গোরস্থানে যেতে হয়।

অনন্তপুর গ্ৰামের মো. শহীদ মিয়া বলেন, ‘আমাদের একটি গোরস্থান খুবই প্রয়োজন। অর্থনৈতিক অবস্থা ভালো না হওয়ায় হাওরে মাটি কেটে আমাদের পক্ষে স্থায়ী গোরস্থান তৈরি করা সম্ভব হচ্ছে না। এমন অবস্থায় আমরা সরকারের কাছে সাহায্য চাই।’

স্থানীয়রা আরও জানান, এই ইউনিয়নের ৯ নম্বর ওয়ার্ডে সাতটি গ্ৰাম রয়েছে। একটি গ্রাম বাদে সব কটিতেই মুসলিম জনগোষ্ঠীর বসবাস। এমনকি বর্ষাকালে কেউ মারা গেলে তাঁদের কবর দিতে হয় পার্শ্ববর্তী উপজেলায়। এমন অবস্থায় ভোগান্তিতে পড়তে হয় তাঁদের।

আনোয়ারপুর গ্রামের শিক্ষক মো. আনোয়ার হোসেন বলেন, ‘আমরা জন্মের পর থেকেই গোরস্থানের সমস্যা দেখে আসছি। এই ওয়ার্ডে বর্ষায় উপযোগী ব্যবহারের জন্য স্থায়ী গোরস্থান স্থাপন করা হলে এলাকাবাসী উপকৃত হবে।’

কয়েকজন এলাকাবাসী জানান, তাঁদের স্থায়ী কোনো গোরস্থান না থাকায় বর্ষাকালে বিপাকে পড়তে হয়। কেউ মারা গেলে ঘরের ভিটে কেটে কবর দিতে হয়। ছোট বাচ্চা মারা গেলে খাঁচার মধ্যে মাটিচাপা দিয়ে বিলের মাঝে ফেলে দিয়ে আসতে হয়। এ গ্রামগুলোর এমন দুরবস্থা দেখার যেন কেউ নেই।

এদিকে এসব এলাকার মানুষের আর্থিক অবস্থা অসচ্ছল ও গ্রামগুলো হাওরাঞ্চলে অবস্থিত। যে পরিমাণ টাকা খরচ করে একটি স্থায়ী গোরস্থান করতে হয় তা তাঁদের পক্ষে সম্ভব নয়। বর্ষাকালে কোনো ব্যক্তি মারা গেলে কবর দিতে হয় ১০ কিলোমিটার দূরে মধ্যনগর অথবা ২০ কিলোমিটার দূরে নেত্রকোনা জেলার কলমাকান্দা উপজেলা গোরস্থানে।

৯ নম্বর ওয়ার্ড সদস্য মো. মীর হোসেন বলেন, ‘আমার ওয়ার্ডে সারা বছর মাটি দেওয়ার মতো কোনো গোরস্থান নেই, বিশেষ করে বর্ষাকালে কেউ মারা গেলে পাশের উপজেলার গোরস্থানে দাফন করতে হয়। এমন অবস্থায় স্থায়ী একটি গোরস্থান করার জন্য সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করছি।’

মধ্যনগর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রবীর বিজয় তালুকদার বলেন, ‘আমার ইউনিয়নের প্রত্যন্ত ওয়ার্ড এটি। এখানে স্থায়ী একটি গোরস্থান খুবই জরুরি। এ ব্যাপারে জেলা পরিষদের কাছে আবেদন দেওয়া আছে, অর্থপ্রাপ্তি সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

ধর্মপাশা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. মুনতাসির হাসান বলেন, তাঁদের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    সিমেন্ট বোঝাই ট্রাক পুকুরে

    টাঙ্গাইলে অপরাধ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

    সখীপুরে নিত্যসঙ্গী যানজট

    ঢাবিতে সাম্প্রদায়িক হামলার বিরুদ্ধে মশাল মিছিল 

    মহেশখালীতে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা

    খেয়াঘাটে দুই বোনকে শ্লীলতাহানি ও মারধরের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১

    পূজামণ্ডপ সংশ্লিষ্ট সহিংসতায় গ্রেপ্তার ৪৫০, মামলা ৭১

    সাফারি পার্কে জেব্রা পরিবারে নতুন শাবকের জন্ম

    গাজীপুরে বিবস্ত্র অপ্রকৃতিস্থ অবস্থায় উদ্ধার স্বামী-স্ত্রীর মৃত্যু