মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

মিষ্টির উপকরণের দাম চড়া

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:১৭

নোয়াখালীর চাটখিলে মিষ্টি তৈরির উপকরণের দাম বাড়ায় ব্যবসায়ীরা দিশেহারা হয়ে পড়েছেন। চিনি, তেল, দুধ, ময়দা ও জ্বালানি সামগ্রীর দাম বাড়লেও ক্রেতা হারানোর শঙ্কায় মিষ্টির দাম বাড়াতে পারছেন না তাঁরা। ফলে লোকসান দিয়েই ব্যবসা চালাতে হচ্ছে ব্যবসায়ীদের।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিতে চাটখিলের মিষ্টি ব্যবসায়ীরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। ২ মাস আগে ৫০ কেজির ১ বস্তা চিনির দাম ছিল ২ হাজার ৬০০ টাকা।

এখন দাম বেড়ে ৩ হাজার ৯০০ টাকা হয়েছে। একইভাবে ইন্ডিয়ান আমুল পাউডার দুধের ২৫ কেজির বস্তা ৭ হাজার থেকে বেড়ে ১০ হাজার ৬০০ টাকা, সয়াবিন তেল ১ লিটার ৭৫ টাকা থেকে বেড়ে ১৪০ টাকা, সিলিন্ডারের এলপি গ্যাস ৮০০ টাকা থেকে বেড়ে ১ হাজার ২০০ টাকা হয়েছে।

দশঘরিয়া বাজারের হেঞ্জার মিষ্টি দোকানের মালিক আব্বাস ও মানিক জানান, মিষ্টি আগের দামেই লোকসান দিয়েই বিক্রি করছেন তাঁরা।

আরেক মিষ্টি বিক্রেতা নাসির উদ্দিন জানান, আগের দামে মিষ্টি বিক্রি করায় প্রতিদিন তিনি ৩-৪ হাজার টাকা লোকসান দিচ্ছেন।

চিটাগাং হোটেলের দুলাল মিয়া বলেন, মিষ্টির দাম আগের চেয়ে সামান্য বাড়িয়েছেন তিনি। তবে গ্রাহকের বেশি দামে মিষ্টি কিনতে চান না।

এ ব্যাপারে চাটখিল উপজেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক কর্মকর্তা মো. খোরশেদুল আলমের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয়। তবে তিনি পণ্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

চাটখিল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এ এস এম মোসা আজকের পত্রিকাকে জানান, পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণ জেলা পর্যায় থেকে করা হয়। এরপরও নিয়মের বাইরে মূল্যবৃদ্ধির কোনো অভিযোগ আসলে বাজারে অভিযান চালানো হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ১৩ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

    বিলপাড়ার সুস্বাদু চমচম

    ঘাটাইলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে ট্রাক, আহত ২

    আওয়ামী লীগকে গদি ছেড়ে রাস্তায় নামার পরামর্শ মির্জা আব্বাসের

    এ এইচ এম হাবিবুর রহমান ভূঁইয়ার দায়িত্ব গ্রহণ

    কাউখালীতে অগ্নিকাণ্ডে ৯ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ৩ বসতঘর পুড়ে ছাই 

    সহিংসতায় জড়িতদের ধরতে প্রধানমন্ত্রীর কড়া নির্দেশ 

    ইউরোপীয় পরাশক্তিদের চোখ রাঙাচ্ছে ‘পুঁচকেরা’

    কবি ফররুখ আহমদের নামে ঢাকায় রাস্তার নামকরণের দাবি