বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

পাইকগাছায় ১৫৮ কিমি বেড়িবাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১৪:০৫

একদিকে নদ-নদীর তলদেশ ভরাট হয়ে বাড়ছে অ পাইকগাছার সোলাদানা ইউনিয়নের ঝুঁকিপূর্ণ বেড়িবাঁধ। গত মঙ্গলবার তোলা ছবি। আজকের পত্রিকা তিরিক্ত পানি; অন্যদিকে নির্মিত ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ। বর্তমানে এ দুই কারণে দুশ্চিন্তায় দিন কাটছে খুলনা জেলার পাইকগাছাবাসীর। এলাকার ৬টি পোল্ডারে ১৫৮ কিলোমিটার ঝুঁকিপূর্ণ বাঁধ রয়েছে। এ কারণে প্লাবনের শঙ্কায় রয়েছেন স্থানীয়রা। দক্ষিণের এই জনপদের মানুষকে বাঁচাতে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি এবং প্রয়োজনে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন তারা।

জানা যায়, পাইকগাছায় পানি উন্নয়ন বোর্ডের ৬টি পোল্ডারে ২৫০ কিলোমিটার ওয়াপদা বাঁধ রয়েছে। এর মধ্যে ১৫৮ কিলোমিটার বাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ। বাঁধের বর্তমান পরিস্থিতি জানতে চাইলে পাইকগাছা উপসহকারী নির্বাহী প্রকৌশলী রাজু আহম্মদ বলেন, উপজেলার ১০ / ১২ নম্বর পোল্ডারে ৪০ কিমি, ১৬ নম্বরে ৩৮ কিমি, ১৮ / ১৯ নম্বরে ২৫.৮ কিমি, ২৩ নম্বরে ২৬ কিমি, ২১ নম্বরে ১৬ কিমি এবং ২২ নম্বর পোল্ডারে ১৩ কিমি বাঁধ ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে।

সুন্দরবনের কোলঘেঁষা দক্ষিণ উপকূলবর্তী জনপদ পাইকগাছা। জলবায়ু পরিবর্তন ও ভৌগোলিক কারণে দুর্যোগের শিকার এ অঞ্চলের মানুষ। বিশেষ করে প্রাকৃতিক দুর্যোগ বেড়িবাঁধ এলাকার মানুষের চরম বিপর্যয়ের মুখে ফেলে দিচ্ছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের ওয়াপদা বাঁধে নিয়মিত মাটির কাজ না হওয়ায় বাঁধের বেশির ভাগ ধসে গেছে। বর্তমানে নাজুক আকার ধারণ করেছে ষাটের দশকের এ বাঁধটি।

এর আগে ২০০৭ সালের সামুদ্রিক ঘূর্ণিঝড় সিডর, ২০০৯ সালে সামুদ্রিক ঘূর্ণিঝড় আইলাসহ ফণী, বুলবুলের জলোচ্ছ্বাসে গদাইপুর ইউনিয়নের বোয়ালিয়া, সোলাদানা ইউনিয়নের হাঁড়িভাঙা, হরিখালী, পাটকেলপোতা, দ্বীপবেষ্টিত দেলুটি ইউনিয়নের গেওবুনিয়া, দারুণ মল্লিক, দেলুটি, কালীনগর, লতা ইউনিয়নের লতা বাজার, গড়ই খালী ইউনিয়নের খুদখালী ও শান্তায় ওয়াপদা বাঁধ ভেঙে এলাকা প্লাবিত হয়। নষ্ট হয় লাখ লাখ টাকার মৎস্য ও জমির ফসল। বন্যা, জলোচ্ছ্বাসের পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে জরুরি ভিত্তিতে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি জানিয়েছেন এলাকাবাসী।

তিনি আরও বলেন, নদীর তলদেশ ভরাট হওয়ার সঙ্গে পানি উন্নয়ন বোর্ড যদি ওয়াপদা বাঁধ উঁচু করা হতো, তাহলে পানি লোকালয়ের পোল্ডারে ঢুকতে পারত না।

এ বিষয় পানি উন্নয়ন বোর্ডের খুলনা নির্বাহী প্রকৌশলী মো. আশরাফুল আলম বলেন, ওয়াপদা বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ পোল্ডারগুলোর তালিকা করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। অর্থপ্রাপ্তি সাপেক্ষে শুষ্ক মৌসুমে কাজ শুরু হবে বলে আশা করছি।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতআলোচিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

    আগাম শীতের সবজি চাষ

    হত্যাকাণ্ডের বিচার দাবি

    পুকুর থেকে এক ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

    পশ্চিম তীরে ৩ হাজার বসতি স্থাপনের অনুমোদন দিল ইসরায়েল

    ব্যবসায়িক স্বার্থে দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ে, শ্রমিকদের বেতন বাড়ে না: নজরুল ইসলাম খান

    চাকরির জন্য যৌতুকের টাকা না দেওয়া অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রীকে মারধর

    ভারতকে বিশ্বকাপ এনে দেওয়া কোচকেই নিয়ে আসছে পাকিস্তান! 

    বিধবা নারীর বাড়িতে ঢুকে হামলার অভিযোগ ইউপি সদস্যের বিরুদ্ধে

    আনোয়ারায় চার দিনে ৮টি গরু চুরি