মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

মৌসুমে অনাবৃষ্টি, সুপারি ফলনে ধস

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১০:৫৪

বরগুনায় গত মঙ্গলবার সুপারি নিয়ে বসে আছেন বিক্রেতা। ছবি: আজকের পত্রিকা উপকূলীয় জেলা বরগুনায় এ বছর সুপারির ফলন কম হয়েছে। গত বছরের কার্তিক থেকে বৈশাখ মাস পর্যন্ত অনাবৃষ্টি থাকায় সুপারির ফলন কমে গেছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। এ ছাড়া বর্তমান বাজারদর অনুযায়ী সুপারির দাম কম থাকায় শঙ্কা প্রকাশ করেছেন কৃষক, গৃহস্থ ও ব্যবসায়ীরা।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য মতে, বৈশাখ–জ্যৈষ্ঠ মাসে সুপারি গাছে ফুল আসে। কার্তিক–অগ্রহায়ণ মাসে ফুল পাকাপোক্ত সুপারিতে পরিণত হয়। মূলত কার্তিক আর অগ্রহায়ণ মাসই সুপারির ভরা মৌসুম। এখানকার সুপারির প্রায় ৭০ ভাগ নদী–নালা, খাল–ডোবা, পুকুর ও পানিভর্তি পাকা হাউসে ভিজিয়ে রাখেন স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। আর ৩০ ভাগ সুপারি দেশের বিভিন্ন জেলায় সরবরাহ করা হয় বা রোদে শুকিয়ে সংরক্ষণ করা হয়। জেলায় এবার ১ হাজার ১৮১ হেক্টর জমিতে মোট ৫ হাজার ১৯ দশমিক ২৫ মেট্রিকটন সুপারির উৎপাদন হয়েছে।

বাগান মালিকেরা জানান, এ বছর অনাবৃষ্টির কারণে সুপারির ফলন কম হয়েছে। স্থানীয় বাজারগুলোতে এবার আশানুরূপ দামও নেই।

বরগুনা বাজারের সুপারি ব্যবসায়ী কামাল হোসেন, জহিরুল ইসলাম ও আবদুর রশিদ বলেন, এ বছর সুপারির ফলন কম এবং বাজার দরও গত বছরের তুলনায় কম।

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক আব্দুর রশীদ বলেন, ‘এ বছর অনাবৃষ্টি ছিল। বেশির ভাগ বাগানমালিকই নির্দিষ্ট দূরত্বে সুপারি গাছ রোপণ করেননি। তা ছাড়া সঠিক সময়ে পরিচর্যা ও সার প্রয়োগ করতে না পারায় সুপারির ফলন আশানুরূপ হয়নি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    সিমেন্ট বোঝাই ট্রাক পুকুরে

    টাঙ্গাইলে অপরাধ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

    সখীপুরে নিত্যসঙ্গী যানজট

    এই অসুরকে বধ করতে হবে: মির্জা ফখরুল

    ঢাবিতে সাম্প্রদায়িক হামলার বিরুদ্ধে মশাল মিছিল 

    মহেশখালীতে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা

    খেয়াঘাটে দুই বোনকে শ্লীলতাহানি ও মারধরের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১

    পূজামণ্ডপ সংশ্লিষ্ট সহিংসতায় গ্রেপ্তার ৪৫০, মামলা ৭১

    সাফারি পার্কে জেব্রা পরিবারে নতুন শাবকের জন্ম