মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

সীমান্তে চোরাচালানের ক্ষত

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১১:৪৮

কড়াইবাড়ী গ্রামের মানিক মিয়া তিন বছর আগে বিএসএফের ছোড়া ককটেলে পঙ্গু হন। তাঁর ডান হাত-পা  অবশ। শরীরে ককটেলের স্প্লিন্টার রয়েছে। কুড়িগ্রামের রৌমারী উপজেলায় ভারতীয় সীমান্তে চোরাচালান করতে গিয়ে প্রাণনাশের মতো ঘটনা ঘটছে। অনেকে পঙ্গু হয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন।

ভারতীয় সীমান্তে গরু ও মাদকসহ বিভিন্ন চোরাচালানির কাজ রুখতে সেদেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী (বিএসএফ) অনেক সময় গুলি ও ককটেল ছোড়ে। এতে মারা যান অনেকে, আবার কেউ কেউ আহত হয়ে পঙ্গুত্ববরণ করছেন। এদিকে বিএসএফের গুলিতে উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নে গত তিন বছরে ১০ জন নিহত হয়েছেন।

সরেজমিনে দেখা যায়, রৌমারী উপজেলার দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ছাট কড়াইবাড়ী গ্রামের যুবক মানিক মিয়া তিন বছর আগে বিএসএফের ছোড়া ককটেলে পঙ্গুত্ববরণ করেন। তাঁর ডান হাত-পা অবশ। শরীরের বিভিন্ন অংশে রয়েছে ককটেলের স্প্লিন্টার। স্প্লিন্টারের যন্ত্রণা এখনো সহ্য করতে হচ্ছে তাঁকে। বর্তমানে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন করছেন মানিক মিয়া।

দাঁতভাঙ্গা ইউনিয়নের ধর্মপুর গ্রামের রেজাউল করিম রেজা দেড় বছর আগে সীমান্ত দিয়ে চোরাচালানে গিয়ে বিএসএফের ককটেলের আঘাতে দৃষ্টি হারান। একই গ্রামের অহিদুর রহমান পাঁচ বছর আগে চোরাচালানে গিয়ে বিএসএফের ককটেল হামলার শিকার হয়ে এক চোখ অন্ধ হয়ে গেছে। অপর চোখটিও নষ্ট হওয়ার উপক্রম। অর্থাভাবে চিকিৎসা করাতে পারছেন না তিনি।

ধর্মপুর গ্রামের বাসিন্দা আফজাল হোসেন বলেন, ‘গত তিন বছরে চোরাচালান করতে গিয়ে বিএসএফের হাতে ১০ জন নিহত হয়েছেন। অনেকে পঙ্গুত্ববরণ করছেন। এখন এসব পরিবার খেয়ে না খেয়ে দিন কাটাচ্ছে। গরু চোরাকারবারি দলে ২৫ থেকে ৩০ জন করে রয়েছে। দলের লোকেরা চোরাচালান করতে পারলে আহত পরিবারগুলোতে এক থেকে দুই হাজার টাকা দিয়ে যান। তা-ই দিয়ে তাঁদের সংসার চলে।’

দাঁতভাঙ্গা ইউপি সদস্য মিজানুর রহমান বলেন, ‘চোরাচালান, গরুর ঘাস কাটতে গিয়ে অনেকেই নিহত হয়েছেন। আবার অনেকেই আহত হয়ে পঙ্গুত্ববরণ করেছেন। আমার ইউনিয়নে ১০ জনের অধিক এমন অন্ধ ও শারীরিকভাবে পঙ্গুত্ববরণ করা ব্যক্তি রয়েছে।’

২০১৮ সালের ৩০ এপ্রিল ফুলবাড়ী উপজেলার গোড়কমন্ডল সীমান্তে বাংলাদেশের ২০ গজ অভ্যন্তরে রাসেল নামের এক স্কুলছাত্র নিজেদের গরুর ঘাস কাটতে যায়। এ সময় ৩৮ বিএসএফ ব্যাটালিয়নের নারায়ণগঞ্জ ক্যাম্পের টহলরত বিএসএফ সদস্য রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেন। এতে রাসেলের মুখমণ্ডল রাবার বুলেটে ক্ষতবিক্ষত হয়। এখন তার ডান চোখ অন্ধ হয়ে গেছে।

রাসেল বলে, বাড়ির গরুর জন্য ঘাস কাটতে গিয়ে নিজ দেশেই বিএসএফের রাবার বুলেটের আঘাতে আজ আমার এক চোখ অন্ধ। বাম চোখ দিয়েও ভালো দেখতে পাচ্ছি না। ভারত সরকার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল কিন্তু করোনায় আর কোনো খোঁজ রাখেনি। যোগাযোগ করার অনেক চেষ্টা করেও কোনো ফল হয়নি। আমার ভবিষ্যৎ এখন পুরোটাই অন্ধ।

চোরাচালানের বিষয়ে রৌমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল-ইমরান বলেন, ‘যোগাযোগ ব্যবস্থা অপ্রতুলতার কারণে সীমান্তে চোরাচালানসহ অপরাধ সংঘটিত হয়ে আসছে। এসব অপরাধে জড়িয়ে যারা পঙ্গু বা অন্ধ হয়ে গেছে, তাঁদের সঠিক হিসাব আমাদের কাছে নেই। তবে সীমান্ত এলাকার যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি করা গেলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর তৎপরতায় সীমান্ত অপরাধ কমিয়ে আনা সম্ভব।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ১৩ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

    বিলপাড়ার সুস্বাদু চমচম

    ঘাটাইলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে ট্রাক, আহত ২

    নন্দীগ্রামে বৃদ্ধি পাচ্ছে পরিবেশ বিপর্যয়কারী ইউক্যালিপটাস গাছের উৎপাদন ও বিপণন

    করোনার টিকা কি বাধ্যতামূলক হওয়া উচিত

    সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের উসকানি ভারতের মুসলমানদের জীবন বিপাকে ফেলছে: কাদের

    আওয়ামী লীগকে গদি ছেড়ে রাস্তায় নামার পরামর্শ মির্জা আব্বাসের

    এ এইচ এম হাবিবুর রহমান ভূঁইয়ার দায়িত্ব গ্রহণ

    কাউখালীতে অগ্নিকাণ্ডে ৯ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ৩ বসতঘর পুড়ে ছাই