মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

স্মরণসভা রূপ নিল নির্বাচনী সমাবেশে

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১২:৫১

জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার গোপীনাথপুর দ্বিমুখী উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে স্মরণসভায় আসা মানুষ প্যান্ডেলের নিচে বসে আছেন। ছবি: আজকের পত্রিকা। জয়পুরহাটের আক্কেলপুর উপজেলার গোপীনাথপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের চারজন নেতা-কর্মীর স্মরণসভার আয়োজন করা হয়। প্রায় ৬০০ থেকে ৭০০ মানুষকে খিচুড়ি খাওয়ানোর ব্যবস্থা করা হয়। এই অনুষ্ঠানেই চালানো হয় ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীর প্রচার।

গতকাল বুধবার দুপুরে গোপীনাথপুর দ্বি-মুখী উচ্চবিদ্যালয় মাঠে স্মরণসভা ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন গোপীনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ জোয়ারদার। তিনি এবারের নির্বাচনে আবার চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন। তাই এলাকার লোকজনকে জানান দিতেই এবং নির্বাচনী প্রচার চালাতেই এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গোপীনাথপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কর্মী প্রয়াত কানাই চন্দ্র ঘোষ, নয় নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল ওয়াদুদ মাস্টার, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য ইসমাইল হোসেন এবং কছিম উদ্দিনের স্মরণে এই দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

ওই বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা গেছে, বিদ্যালয়ের একটি কক্ষে খাবারের ওয়ান টাইম প্লেট রাখা আছে। আরেকটি কক্ষের মেঝেতে দুপুরের খাবার হিসেবে রাখা হয়েছে খিচুড়ি। সেখানে কয়েকজনকে এই খিচুড়ি পাহারা দিতে দেখা যায়। আলোচনা সভা শেষে বেলা দুইটার দিকে বিদ্যালয়ের মাঠে অনুষ্ঠানে অংশ নেওয়া লোকজনকে খিচুড়ি পরিবেশন করা হয়।

এর আগে ওই অনুষ্ঠানে আলোচনাসভা বক্তব্য দেন জেলা আওয়ামী লীগের মহিলা বিষয়ক সম্পাদক মাহফুজা সুলতানা মলি, জেলা পরিষদের সদস্য আব্দুর রহিম স্বাধীন, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আহসান কবির, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমান মিঠু প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন গোপীনাথপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল পেস্তা।

জানতে চাইলে গোপীনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যান আবু সাঈদ জোয়ারদার বলেন, ‘আমার ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীরা মারা গিয়েছেন। করোনাকালীন তাঁদের জন্য কোনো দোয়া অনুষ্ঠান করতে পারিনি। তাই আজ দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছি। একই অনুষ্ঠানে নির্বাচনী প্রচারও চালানো হয়। অনুষ্ঠানে আগত লোকজনের জন্য আনা খাবার রাখতে আমি বিদ্যালয়ের কক্ষ ব্যবহার করেছি। এটা আমি অন্যায় করেছি। আমি বিষয়টির জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসএম হাবিবুল হাসানের কাছে ক্ষমা চেয়েছি।’

উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সুদীপ কুমার রায় বলেন, ‘আমাকে ওই এলাকা থেকে এক ব্যক্তি মোবাইল ফোনে বিষয়টি জানিয়েছেন। এরপর আমি তাৎক্ষণিক গোপীনাথপুর ইউপি চেয়ারম্যানকে বলেছি, আপনি নির্বাচনের সময় আইন ভঙ্গ করে এই অনুষ্ঠান করতে পারেন না। তিনি তখন জানান, তিনি মৃত ব্যক্তির অনুষ্ঠান করছেন। তিনি ভুল করেছেন। এরপর আমি ঘটনাটি ইউএনওকে জানিয়েছি। যেহেতু ধর্মীয় বিষয়ে অনুষ্ঠানের কথা বলেছেন এবং কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি, সেহেতু ইউপি চেয়ারম্যানকে মৌখিকভাবে সতর্ক করা হয়েছে।’

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এসএম হাবিবুল হাসান বলেন, ‘ঘটনাটি জানার পরে নির্বাচন কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে বলেছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    সিমেন্ট বোঝাই ট্রাক পুকুরে

    টাঙ্গাইলে অপরাধ বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন

    সখীপুরে নিত্যসঙ্গী যানজট

    এই অসুরকে বধ করতে হবে: মির্জা ফখরুল

    ঢাবিতে সাম্প্রদায়িক হামলার বিরুদ্ধে মশাল মিছিল 

    মহেশখালীতে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা

    খেয়াঘাটে দুই বোনকে শ্লীলতাহানি ও মারধরের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১

    পূজামণ্ডপ সংশ্লিষ্ট সহিংসতায় গ্রেপ্তার ৪৫০, মামলা ৭১

    সাফারি পার্কে জেব্রা পরিবারে নতুন শাবকের জন্ম