বুধবার, ২০ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

রেফারি আমাদের প্রতি অবিচার করেছে

আপডেট : ১৪ অক্টোবর ২০২১, ১৫:৫৩

দুর্দান্ত হেডে বাংলাদেশকে এগিয়ে দেওয়ার পর সতীর্থ বিশ্বনাথ ঘোষের সঙ্গে আনন্দে মাতোয়ারা সুমন রেজা। তাঁদের উচ্ছ্বাসটা শেষে পরিণত হয়েছে হতাশায়। ছবি: টুইটার রেফারির ‘প্রশ্নবিদ্ধ’ এক সিদ্ধান্ত। তাতেই ভাঙল ১৬ বছর পর সাফের ফাইনাল খেলার স্বপ্ন। ৯ মিনিটে সুমন রেজার গোলে এগিয়ে যাওয়ার পরও নেপালের সঙ্গে ১-১ গোলের ড্রয়ে হৃদয় ভাঙার দায়টা উজবেক রেফারি রিসকুলায়েভ আখরোলের কাঁধেই চাপালেন বাংলাদেশ কোচ অস্কার ব্রুজোন।

মালেতে গতকাল বাংলাদেশ-নেপাল ম্যাচের ৮৬ মিনিটের খেলা চলছিল তখন। তাজ তামাংয়ের ক্রসে হেড নিতে লাফিয়ে উঠেছিলেন নেপালি ফরোয়ার্ড অঞ্জন বিস্তা। বাংলাদেশের সাদ উদ্দিন ও বিশ্বনাথ ঘোষের মাঝখান থেকে হেড নিতে গিয়ে বিস্তা পড়ে গেলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান উজবেক রেফারি। ঠিক কিসের ভিত্তিতে পেনাল্টির বাঁশি বাজিয়েছিলেন তিনি সেটা পরিষ্কার ছিল না। টিভি রিপ্লেতে দেখা গেছে, হেডে লাফানোর সময় নিয়ন্ত্রণ ছিল না অঞ্জন বিস্তার। এমনকি বল লাগেনি হাতেও। বাজে রেফারিংয়ের প্রতিবাদ করে ম্যাচ শেষে বাংলাদেশ কোচ বললেন, ‘রেফারি আমাদের প্রতি অবিচার করেছে। সে সঠিক সিদ্ধান্ত দেয়নি। এর আগে ভারত ম্যাচেও রেফারির সিদ্ধান্ত ঠিক ছিল না। আজও (গতকাল) সেটাই হলো।’

ভারত ম্যাচে ডি-বক্সের বাইরে লিস্টন কোলাকোকে ফাউল করায় লাল কার্ড দেখেছিলেন বিশ্বনাথ ঘোষ। অস্কারের দাবি ছিল, সেটা লাল কার্ড দেখার মতো ফাউল ছিল না। গতকাল ম্যাচের ৭৯ মিনিটে রাকিব হোসেনের এক ভুল পাসে ডি-বক্সের বাইরে হঠাৎ বল পেয়ে যান নায়ুগ শ্রেষ্ঠা। বিপদ বুঝতে পেরে বক্সের বাইরে এসে হ্যান্ডবল করে বল থ্রো-লাইনের বাইরে পাঠান বাংলাদেশ গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো। বক্সের বাইরে এসে ফাউল করার দায়ে জিকোকে লাল কার্ড দেখান উজবেক রেফারি। জিকো লাল কার্ড দেখার মতো কোনো অপরাধ করেননি বলেও কাল দাবি করলেন অস্কার ব্রুজোন, ‘বল আগে জিকোর পায়ে লেগেছে, পরে হাতে। এটা লাল কার্ড দেখার মতো অপরাধ ছিল না। আর পেনাল্টি ছিল সম্পূর্ণ ভুল সিদ্ধান্ত। এর বেশি কথা বললে আমি এক বছরের নিষেধাজ্ঞা পেতে পারি।’

রেফারিং নিয়ে বাজে অভিজ্ঞতার শিকার হওয়া অস্কার ব্রুজোনের জন্য নতুন কিছু নয়। গত আগস্টে বসুন্ধরা কিংসের হয়ে এই মালদ্বীপেই এএফসি কাপে সরব হতে হয়েছিল তাঁকে। বসুন্ধরা কিংসের ম্যাচটার সঙ্গে গতকালের ম্যাচটার মিলও প্রায় একই রকম। আঞ্চলিক সেমিফাইনাল খেলতে হলে সেই ম্যাচে জিততেই হতো বসুন্ধরাকে। প্রথমে এগিয়ে থেকেও রেফারির ‘বিতর্কিত’ সিদ্ধান্তে সুশান্ত ত্রিপুরার লাল কার্ডে শেষ পর্যন্ত ড্রয়ে পরের রাউন্ডে যাওয়া হয়নি বাংলাদেশের লিগ চ্যাম্পিয়নদের। কালও হলো তাই। সুমন রেজার গোলে এগিয়ে থেকেও জিকোর লাল কার্ড আর উজবেক রেফারির সিদ্ধান্তে ফাইনালে উঠতে পারেনি বাংলাদেশ। দুই বিষয়টিকেই কাল চক্রান্ত বললেন বাংলাদেশ কোচ, ‘বাংলাদেশর ক্লাব বসুন্ধরা কিংস যেন ওপরে উঠতে না পারে সে জন্য এই সিদ্ধান্ত। জাতীয় দলের ক্ষেত্রেও তাই হলো।’

জাতীয় দলের খেলা দেখতে এসে এভাবে হৃদয় ভাঙার গল্পে কাল মাঠেই কাঁদতে দেখা গেছে দর্শকদের। আবেগের বাঁধ ভেঙেছে বাংলাদেশের ফুটবলারদের। মাঠেই কেঁদেছেন তপু বর্মণ-রাকিব হোসেনরা। ড্রেসিংরুমে গিয়েও সতীর্থদের সান্ত্বনা দেওয়ার শক্তিটা যেন ছিল না কারোরই। টিম স্টাফ মহসীনের মাঠে কান্নার ছবি ছুঁয়ে গেছে বাংলাদেশের ফুটবলপ্রেমীদের মনেও।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ১৩ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মনোনয়নপত্র জমা

    বিলপাড়ার সুস্বাদু চমচম

    ঘাটাইলে নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে হোটেলে ট্রাক, আহত ২

    এক ঘণ্টার পৌর মেয়র স্কুলছাত্রী লামিয়া

    নকলায় ৯ ইউপিতে নৌকা চান ৬১ জন

    হিন্দুদের ঘরবাড়িতে হামলার প্রতিবাদে জাসদের মানববন্ধন

    বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে প্রেমিকার অনশন

    নিখোঁজ নয় পরিকল্পিত আত্মগোপনের নাটক করেছিলেন ভাঙ্গারি ব্যবসায়ী

    কলিন পাওয়েল বিশ্বাসঘাতক: ট্রাম্প

    টেক্সাসে উড্ডয়নের পরই উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত

    নৌকার এমপি হয়ে লাভবান হয়েছেন: শাহজাহানকে জেলা আ. লীগ সভাপতি

    অভাবের তাড়নায় কৃষকের আত্মহত্যার অভিযোগ