বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

আবারও বাংলাদেশের কান্নাভেজা বিদায়

আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০২১, ২০:৪৪

সাফ চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে বিদায়ের পর মাথায় হাত বাংলাদেশ দলের স্টাফ মহসীনের (বাঁয়ে), কেঁদে মাঠ ছাড়েন মিডফিল্ডার রাকিব (ডানে)। আজ মালের জাতীয় স্টেডিয়ামে। ছবি: সংগৃহীত  এত কাছে, তবু কত দূরে—মাথায় হাত দিয়ে বাংলাদেশ দলের স্টাফ মহসীনের হাহুতাশের দৃশ্যটি যেন সে কথায় বলছে!

মাঝমাঠের সৈনিক রাকিব হোসেনের কান্না তো থামানো যাচ্ছিল না কিছুতেই। এক অফিশিয়াল ও দলের ফিজিওর কাঁধে ভর দিয়ে তাঁকে নেওয়া হয়েছে মাঠের বাইরে।

‘দক্ষিণ এশিয়ার বিশ্বকাপ’ খ্যাত সাফ চ্যাম্পিয়নশিপে ১৬ বছর পর ফাইনালে ওঠার হাতছানি বাংলাদেশের। স্বপ্নটা প্রায় বাস্তবায়ন করেই ফেলেছিলেন জামাল ভূঁইয়া-তপু বর্মণরা। কিন্তু রেফারির বিতর্কিত সিদ্ধান্তে সব স্বপ্নের সমাধি। ১-১ গোলে ড্র হলো ম্যাচ। আবার কান্নাভেজা বিদায় সঙ্গী হলো লাল-সবুজ প্রতিনিধিদের।

মালের জাতীয় স্টেডিয়ামে আজ বিকেলে নেপালের বিপক্ষে ‘অঘোষিত সেমিফাইনালে’ নেমেছিল বাংলাদেশ। শ্রেষ্ঠত্বের মঞ্চে পা রাখতে হলে জয়ই ছিল একমাত্র সমীকরণ।

ম্যাচের নবম মিনিটেই অধিনায়ক জামালের ফ্রি কিকে দুর্দান্ত হেডে বাংলাদেশকে এগিয়েও দিয়েছিলেন সুমন রেজা। দেশের জার্সিতে প্রথম গোল করে ফরোয়ার্ডদের ভূমিকা নিয়ে ওঠা প্রশ্নের জবাবটাও দিয়ে দেন ২৬ বছর বয়সী স্ট্রাইকার। 

লিডটা ধরে রেখে ফাইনালের সুবাস পাচ্ছিল বাংলাদেশ। কিন্তু ৭৯ মিনিটে গোলরক্ষক আনিসুর রহমান জিকো লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়তেই বদলে যায় দৃশ্যপট। অগত্যা জিকোর জায়গায় নামতে হয় দ্বিতীয় পছন্দের গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানাকে। তাঁকে নামাতে বাধ্য হয়ে উঠে যেতে হয় মিডফিল্ডার বিপলু আহমেদকে। 

দশ জনের বাংলাদেশ তবু শেষ ১৫ মিনিট অনায়াসেই কাটিয়ে দিতে পারত। কিন্তু এদিন ‘খলনায়কের’ ভূমিকায় অবতীর্ণ হলেন উজবেক রেফারি রিসকুলায়েভ আখরোল। 

বাংলাদেশের বক্সে ভেসে আসা ক্রসে হেড করতে চেয়েছিলেন নেপালের অঞ্জন বিস্টা। তাঁর দুই পাশে ছিলেন সাদ উদ্দিন ও বিশ্বনাথ ঘোষ। দুজন বিস্টাকে সামান্য ট্যাকল বা চ্যালেঞ্জ জানানোরও চেষ্টা করেননি। বরং বিস্টাই নিজের ভারসাম্য হারিয়ে পড়ে যান বক্সে। সেটিকেই ফাউল ধরে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। স্পট কিক থেকে জাল কাঁপিয়ে বাংলাদেশের হৃদয় ভাঙেন বিস্টাই। 

শেষ বাঁশি বাজতেই মেজাজ হারান বাংলাদেশের ফুটবলাররা। তেড়ে যান রেফারি আখরোলের দিকে। মাঠে পুলিশ এসে শান্ত করেন জামাল-তপুদের। ততক্ষণে ক্ষতি যা হওয়ার হয়েই গেছে। আরও একবার কান্নাভেজা চোখে, আক্ষেপ নিয়ে শেষ হয় বাংলাদেশের সাফ অভিযান।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ম্যারাডোনার স্মরণে মাঠে নামছে তাঁরই সাবেক দুই ক্লাব

    ক্ষিপ্ত সমর্থকেরা ঘেরাও করলেন বার্সা কোচের গাড়ি

    রোনালদোদের গোলের মালা পরালেন সালাহরা

    এল ক্ল্যাসিকোয় রিয়ালের সঙ্গে পেরে উঠল না বার্সা

    সমর্থকদের আরব ‘লেবাস’ বিতর্কে পিঠটান নিউক্যাসলের

    নতুন কোচ খুঁজছে বাফুফে

    সংশোধিত ফলেও গরমিল, লাইভে প্রবেশপত্র পোড়াল শিক্ষার্থী

    বন্দীদশা থেকে মুক্ত হলেন সুদানের প্রধানমন্ত্রী

    নয়াপল্টনে সংঘর্ষে বিএনপি নেতা কর্মীর নামে মামলা 

    প্রয়োজনে সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করবে সেনাবাহিনী: প্রধানমন্ত্রী

    বনানীতে ভবনে লাগা আগুন নিয়ন্ত্রণে

    চাটখিলে বয়লার মুরগির দাম বৃদ্ধি, বিপাকে ক্রেতারা