রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

মনোনয়ন নিয়ে আ.লীগের একাংশের বিক্ষোভ অবরোধ

আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০২১, ০৯:৪২

কালকিনিতে গত সোমবার সড়ক অবরোধ করে আওয়ামী লীগের একাংশের বিক্ষোভ। ছবি: আজকের পত্রিকা মাদারীপুরের কালকিনি উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগে বিরোধ দেখা দিয়েছে। উপজেলার চর দৌলত খান (সিডি খান) ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী চাঁন মিয়া শিকদারের বিরুদ্ধে দফায় দফায় বিক্ষোভ মিছিল করেছেন দলটির স্থানীয় নেতা-কর্মীরা।

গত সোমবার সন্ধ্যায় এক দফা ও গতকাল মঙ্গলবার সকালে আরেক দফা আন্দোলনে নামেন বিক্ষুব্ধরা। এ সময় ভূরঘাটা-মোল্লারহাট সড়কের বটতলা মোড়ের সড়কে ঘণ্টাব্যাপী টায়ার জ্বালিয়ে অবরোধ করে পথসভা করেন তাঁরা। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

সরেজমিনে জানা যায়, আগামী ১১ নভেম্বর কালকিনি উপজেলার ১৩টি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। এরই মধ্যে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ থেকে দলীয় মনোনীত প্রার্থীদের নামের তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। এর মধ্যে সিডি খান ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পান বর্তমান চেয়ারম্যান চাঁদ মিয়া শিকদার। তবে তাঁর বিরুদ্ধে মাঠে নেমেছে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের একটি অংশ। শুরু হয় প্রতিবাদসহ বিক্ষোভ-সমাবেশ। গত সোমবার বিকেল ৫টার দিকে প্রায় ৫০০ নেতা-কর্মী ও সাধারণ ভোটারদের নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল বের করেন এই ইউনিয়ন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন বঞ্চিত মিলন মিয়া। তাঁরা সিডি খান ইউনিয়ন থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে এলাকার প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে ভূরঘাটা-মোল্লারহাট সড়কের বটতলা মোড়ে এসে শেষ করে। সেখানে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে তাঁরা। এ সময় চাঁন মিয়া শিকদারের বিরুদ্ধে কটূক্তিমূলক স্লোগান নিতে শোনা যায়। এ সময় প্রায় দেড় ঘণ্টা সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে কালকিনি থানা-পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। গতকাল মঙ্গলবার সকালেও বটতলা এলাকায় থেমে থেমে বিক্ষোভ করে আওয়ামী লীগের একাংশের নেতা-কর্মীরা।

পথসভায় বক্তব্য দেন কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান সরদার, সিডি খান ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি রশীদ কবিরাজ, সাধারণ সম্পাদক ওয়াজেদ সরদার, ইউনিয়ন যুবলীগ সভাপতি রাসেল সরদার, মনোনয়ন বঞ্চিত মিলন মিয়া প্রমুখ।

এ ব্যাপারে কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মান্নান সরদার বলেন, ‘আমরা ইউনিয়ন থেকে যাচাই-বাছাই করে মিলন মিয়ার নাম পাঠিয়েছি। কিন্তু কোনো অপশক্তির জোরে চাঁন মিয়া নৌকার মনোনয়ন পাইল, বুঝি না। যদি নৌকা টাকার কাছে বিক্রি হয়ে যায়, তাহলে আর দল করে কোনো লাভ নেই। আমরা আওয়ামী লীগের লোকজন মিলন মিয়াকেই প্রার্থী করব। নৌকা না পাইলেও তিনি আওয়ামী লীগের লোক।’

দলীয় মনোনয়নপ্রাপ্ত প্রার্থী চাঁন মিয়া শিকদার বলেন, ‘আমি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। আমি তো উড়ে এসে জুড়ে বসি নাই। যাঁরা আমার বিরোধিতা করছেন, তাঁদের প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হবে। প্রধানমন্ত্রী আমাকে নৌকা প্রতীক দিয়েছেন, আমি সেটা রক্ষা করে বিজয়ী হব। কোনো শক্তি আমাকে দমাতে পারবে না। এখন কিছু নেতা আমাকে হেয় করার চেষ্টা করছেন। তাঁদের আশা পূরণ হবে না।’

কালকিনি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইশতিয়াক আসফাক রাসেল বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে ওই এলাকায় পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। নির্বাচনের আগ থেকেই সিডি খান ইউনিয়নকে অধিক ঝুঁকিপূর্ণ হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। আমরা শান্তি বজায় রাখার জন্য চেষ্টা করছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    খেতের পেঁপে খেতেই নষ্ট

    ২১ হাজারে চিকিৎসক ১

    নিজ ক্যাম্পাসে ভর্তি পরীক্ষা শুরু আজ

    পেশার স্বীকৃতি চান মোবাইল ফোন মেরামতকারীরা

    চোখ থাকবে যাঁদের ওপর

    একসময়ের ‘বেকার’ গোলরক্ষকই বাঁচালেন চেলসিকে

    নবরূপে এল আলতাফ শাহনেওয়াজের ‘আলাদিনের গ্রামে’

    সরকারের এজেন্টরাই পূজামণ্ডপের ঘটনা ঘটিয়েছে: মির্জা ফখরুল

    গোপালগঞ্জে ৭টি দোকান পুড়ে ছাই, কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি