মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

ডিজিটাল জিনের বাদশাহ

আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০০

প্রতীকী ছবি গ্রেপ্তার হয়েছেন জিনের বাদশাহ। ঠিক ধরেছেন, নকল জিনের বাদশাহ। প্রতারণার মাধ্যমে এক ব্যক্তিকে সর্বস্বান্ত করে ফেলেছেন। শেষমেশ বাঁচার শেষ উপায় হিসেবে তিনি জিনের বাদশার ব্যাপারে থানায় অভিযোগ করেন। তারপরই পুলিশের হাতে ধরা পড়েন এই জিনের বাদশাহ।

জামিরুল ইসলাম নামের এই প্রতারক মোবাইল ফোনে নিজেকে জিনের বাদশাহ নামে পরিচয় দিতেন। এলাকার অনেকের সঙ্গেই জিনের বাদশাহ পরিচয়ে তিনি প্রতারণা করেছেন। এখন জেলহাজত তাঁর ঠিকানা। তাঁর কাছ থেকে টাকা ফেরত পাওয়া যাবে কি যাবে না, সেটা এখনই বোঝার উপায় নেই। থানা-পুলিশ-আদালতের মাধ্যমে তার সুরাহা হবে। সেটা তাদের ওপর ছেড়ে দেওয়াই ভালো। তবে এই ডিজিটাল প্রতারণার ব্যাপারে বিস্মিত হওয়ার জায়গাটা ধরেই কথা বলব।

ঘটনাটি রাজশাহীর বাগমারা থানায় ঘটেছে। বাগমারার এমন কোনো জায়গা নেই, যেখানে জ্ঞানের আলো ঢোকেনি। বাংলা ভাইদের মতো কোনো কোনো দানব কদাচিৎ সেখানে দৃশ্যমান হলেও (অন্য জেলা থেকে উঠে আসা) আদতে বাগমারার মানুষ শান্তিপ্রিয়। কিন্তু তাদের কেউ কেউ কতটা কুসংস্কারাচ্ছন্ন, তার একটা উদাহরণ হয়ে রইল জিনের বাদশাহর ঘটনাটা এবং মোটেও অবাক হব না, আমাদের দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের আনাচকানাচে একের পর এক এই ধরনের জিনের বাদশাহরা উদয় হতে থাকলে। একবিংশ শতাব্দীতে এসেও আমাদের দেশের মানুষ এ ধরনের প্রতারকদের পাতা জালে যে ধরা পড়ছে, এ এক ঘটনা বটে! এতে প্রমাণিত হয়, চোখ খুলে চারদিকটা যেমন দেখা হয় না, তেমনি পৃথিবীর বিভিন্ন জায়গায় যে বিশাল বিশাল ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে বদলে যাচ্ছে সব, সেটাও থেকে যায় ভাবনার বাইরে। এখনো কুসংস্কার আর পশ্চাৎপদতা নিয়ে কায়-কারবার চলছে জোরালোভাবেই।

জাদুটোনা করে মানুষের ওপর প্রভাব ফেলার ব্যবসা তো আজও টিকে আছে। অনেকেই তো এখনো মনে করে, চালপড়া খাওয়ালে চোর ধরা পড়বে, বাণ মেরে ধরাশায়ী করা যাবে শত্রুকে, স্বামী বা স্ত্রীকে উদ্ধার করা যাবে পরকীয়া থেকে। এ রকম কত যে অনাচার এখনো টিকে আছে, তার হিসাব বের করা কঠিন। মানুষ দুটো কারণে এ ধরনের প্রতারকদের বিশ্বাস করে। প্রথমত, যদি নিজেকে অসহায় বোধ করে, এই অসহায়ত্ব থেকে বের হওয়ার কোনো পথ খুঁজে পায় না, দ্বিতীয়ত, সে যদি লোভ করে থাকে।

রাজশাহীর বাগমারায় এই ডিজিটাল জিনের বাদশাহ কীভাবে মোবাইল ফোনে কথা বলে হাতিয়ে নিলেন টাকাপয়সা, গয়নাগাটি, সে বিষয়ে আজকের পত্রিকায় ছাপা হওয়া প্রতিবেদনে কিছু লেখা নেই। যিনি সর্বস্বান্ত হওয়ার পরই কেবল পুলিশের দ্বারস্থ হয়েছেন, তিনি কেন প্রথম যখন ফোন পেলেন, তখন পুলিশকে কিছু জানালেন না? কেন তিনি জিনের বাদশাহর কথায় টাকাপয়সা দিয়ে যেতে লাগলেন?

কাণ্ডজ্ঞানহীন মানুষদের কারণেই আসলে জিনের বাদশাহরা টিকে থাকে। কুসংস্কার হটিয়ে দেওয়া আলো এই প্রতারিত মানুষদের মনেও ঢোকে না। আফসোস সেখানেই।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ২০১১ সালের পর থেকে হামলা তীব্রতর হচ্ছে

    মন্দির-মণ্ডপে হামলা পরিষ্কার ষড়যন্ত্র

    কুমিল্লায় ব্যবস্থা নিলে সারা দেশে ছড়াত না

    ইস্যু এবং ইস্যু; আপনার কোনটি?

    প্রান্তিক সংস্কৃতি ও আমাদের দায়

    ধর্মকে পুঁজি করে আর কত?

    শিবগঞ্জ সীমান্ত থেকে কোটি টাকার ইয়াবা উদ্ধার 

    হাগের আডির মতো ২০-২৫ টেহায় বেচতাছে বন

    ভারত-পাকিস্তান সেমিফাইনালে খেলবে, বলছেন পাকিস্তানি সাবেক 

    তফসিল ঘোষণার সাত দিন পরও মনোনয়ন ফরম না পাওয়ায় প্রার্থীদের ক্ষোভ 

    পিএসসির প্রশ্ন ফাঁস করলে সর্বোচ্চ ১০ বছর জেল

    ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মেয়র আতিকুলের বিরুদ্ধে মামলা