মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

মজুরির চেয়ে বকশিশ বেশি সরকারি খাদ্যগুদামে

আপডেট : ১৩ অক্টোবর ২০২১, ১২:৩৫

চট্টগ্রামের দেওয়ানহাটে অবস্থিত সরকারি কেন্দ্রীয় খাদ্যগুদাম। ছবি: আজকের পত্রিকা সরকারি খাদ্যগুদামে চাল-গম রাখা কিংবা তোলার জন্য (হ্যান্ডলিং) মজুরির বেশি অর্থ ‘বকশিশ’ দিতে হয় শ্রমিকদের। নইলে কোনো ট্রাকের চাল কিংবা গম গুদামে ঢুকবে না কিংবা বেরও হবে না। সম্প্রতি নগরের হালিশহর ও দেওয়ানহাটের সরকারি কেন্দ্রীয় খাদ্যগুদাম (সিএসডি) ঘুরে এই চিত্র পাওয়া গেছে।

চাল-গমের হ্যান্ডলিং কাজের জন্য সরকারই শ্রমিক মজুরি পরিশোধ করে। সেই মজুরির বাইরে শ্রমিকেরা জোর করেই এই বকশিশ আদায় করছেন বলে পরিবহন ঠিকাদারেরা গত ২১ আগস্ট খাদ্য বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের লিখিতভাবে জানিয়েছেন। প্রতিটি খাদ্য চালানে সিএসডি ও স্থানীয় খাদ্যগুদামে (এলএসডিতে) ৯০০-১২০০ টাকা পর্যন্ত শ্রমিককে বকশিশ দিতে হচ্ছে বলে ওই চিঠিতে অভিযোগ করা হয়।

জানা যায়, চট্টগ্রাম বন্দর দিয়ে আমদানি করা চাল-গমের বেশির ভাগই বন্দর থেকে সরাসরি দেশের বিভিন্ন স্থানের এলএসডিতে পাঠানো হয়। তবে আপৎকালের জন্য কিছু অংশ জমা রাখা হয় সিএসডিতে। আবার সরকারি বিভিন্ন প্রকল্প কিংবা কর্মসূচির চাল ও গম সিএসডি ও এলএসডি থেকেই নেওয়া হয়। এভাবে সারা দেশের ৬৩২টি এলএসডি এবং ১১টি সিএসডিতে খাদ্য আনা-নেওয়া (হ্যান্ডলিং) চলে প্রায় সারা বছরই। তালিকাভুক্ত হ্যান্ডলিং লেবার ঠিকাদার প্রতিদিনের সরকারের নির্ধারিত শ্রমিক মজুরি নিজ তহবিল থেকে শ্রমিকদের পরিশোধ করেন। মাস শেষে জেলা বা বিভাগের খাদ্যনিয়ন্ত্রক ওই ঠিকাদারকে বিল পরিশোধ করেন। এ খাতে সরকারের খরচ বছরে ৭০-৭৫ কোটি টাকা। এটি নিশ্চিত করেছেন খাদ্য বিভাগের হিসাব ও অর্থ বিভাগের উপপরিচালক সহিদুর রহমান।

আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, হ্যান্ডলিং ঠিকাদারকে সরকার মাসে মাসে এই বিল দেয়।

সরেজমিন দেখা গেছে, দেওয়ানহাট সিএসডিতে একটি ট্রাক ঢোকার পর তিন জায়গায় বকশিশ দিতে হয়। প্রথমে গেটের নিরাপত্তাকর্মীকে ৫০ টাকা, ওজন স্কেলকর্মীকে ১০০ টাকা এবং হ্যান্ডলিং শ্রমিককে ১০০০-১৩০০ টাকা পর্যন্ত দিতে হয়।

দেওয়ানহাট সিএসডি গুদামের লেবার সর্দার মুসলিম মিয়া বকশিশ নেওয়ার কথা স্বীকার করেন। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, একটি খাদ্য চালানে আমরা ৫২০ টাকা বকশিশ নিই, যার ২০ টাকা ঝাড়ুদারের, ৫০০ টাকা লেবারের।

দেওয়ানহাট সিএসডি গুদামের হ্যান্ডলিং লেবার ঠিকাদার মাহমুদুল হক বলেন, ট্রাকে ওজনের বেশি মাল থাকে বলেই লেবারদের বকশিশ দিতে হয়।

একই কথা হালিশহর সিএসডি গুদামের হ্যান্ডলিং ঠিকাদার মো. আব্দুর রাজ্জাকের। আজকের পত্রিকাকে তিনি বলেন, পরিবহন ঠিকাদারেরা অতিরিক্ত লোভের আশায় লেবারদের দিয়ে নিয়মের বেশি খাদ্যশস্য ওঠা-নামা করান, এ জন্য বকশিশ দেন।

হ্যান্ডলিং শ্রমিকদের মাধ্যমে চাল-গম ওঠানো-নামানোর জন্য একজন শ্রমিক প্রতি টনে মজুরি পান দেওয়ানহাট সিএসডি গুদামে ৯৫ টাকা ও হালিশহর সিএসডি গুদামে ৯৭ টাকা। সে হিসাবে ১৫ টন খাদ্যশস্য খালাস কিংবা তোলায় মজুরি ১৪২৫-১৪৫৫ টাকা। আবার প্রতি ট্রাক (১৫ টন পরিমাণ) চাল-গম হ্যান্ডলিংয়ে বকশিশও দিতে হয় ১ হাজার ৫০০ টাকা। এটাই শ্রমিক বকশিশের নির্ধারিত দর বলে জানান একাধিক পরিবহন ঠিকাদার।

চট্টগ্রাম দেওয়ানহাট সিএসডি গুদামের সহকারী ব্যবস্থাপক মো. নাসির উদ্দিন শ্রমিক বকশিশের নামে ঠিকাদারদের কাছ থেকে টাকা নেওয়ার কথা স্বীকার করে বলেন, দেশের সব গুদামে এটা নেয়, এটা অন্যায় কিছু নয়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    তফসিল ঘোষণার সাত দিন পরও মনোনয়ন ফরম না পাওয়ায় প্রার্থীদের ক্ষোভ 

    তিতাসে সড়কের দুপাশে অবৈধ স্থাপনা, দুর্ভোগ চরমে

    ভুতুড়ে নয়, জমিদারবাড়ি

    মহেশখালীতে এক ব্যক্তিকে কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা

    করোনার টিকা কি বাধ্যতামূলক হওয়া উচিত

    সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের উসকানি ভারতের মুসলমানদের জীবন বিপাকে ফেলছে: কাদের

    আওয়ামী লীগকে গদি ছেড়ে রাস্তায় নামার পরামর্শ মির্জা আব্বাসের

    এ এইচ এম হাবিবুর রহমান ভূঁইয়ার দায়িত্ব গ্রহণ

    কাউখালীতে অগ্নিকাণ্ডে ৯ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ৩ বসতঘর পুড়ে ছাই 

    সহিংসতায় জড়িতদের ধরতে প্রধানমন্ত্রীর কড়া নির্দেশ