রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

খালেদা জিয়া ফের হাসপাতালে

আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২১, ১৮:৪১

করোনায় আক্রান্ত হলে গত ২৭ এপ্রিল খালেদা জিয়া হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ফাইল ছবি প্রায় চার মাস পর আবারও হাসপাতালে গেলেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। আজ মঙ্গলবার বিকেলে ৪টার পরে তাঁকে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইং সদস্য শায়রুল কবির খান আজকের পত্রিকাকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য তাঁকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। 

এর আগে বিকেল পৌনে ৪টার দিকে গুলশানের বাসা থেকে বের হয়ে হাসপাতালে উদ্দেশে রওনা দেন খালেদা জিয়া। 

করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পর চলতি বছরের ২৭ এপ্রিল তাঁকে এই হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে ৫৪ দিন চিকিৎসা নিয়ে গত ১৯ জুন বাসায় ফেরেন খালেদা জিয়া। বাসায় ফেরার পর শুরুতে কিছুটা ভালোই ছিলেন খালেদা জিয়া। করোনার টিকাও নিয়েছেন। সেপ্টেম্বরের শুরুতে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আবার হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকেরা। কিন্তু তিনি রাজি না হওয়ায় সেটা সম্ভব হয়নি বলে জানা গেছে। 

বিএনপি চেয়ারপারসনের এক চিকিৎসক আজকের পত্রিকাকে বলেন, ম্যাডামের বর্তমান শারীরিক অবস্থা বিবেচনায় হাসপাতালে থেকে চিকিৎসা নেওয়াই ভালো। কিন্তু উনি রাজি হবেন কি-না জানি না। তিনি রাজি থাকলে আমরা তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করাতে চাই। 

খালেদা জিয়ার ঘনিষ্ঠ একজন জানান, পুরোনো জটিলতা বিশেষ করে লিভার, কিডনি ও হার্টের জটিলতার পাশাপাশি শরীরে ব্যথাসহ আরও কিছু সমস্যা তাঁর নিত্য সঙ্গী হিসেবে রয়েই গেছে। লিভার আর কিডনিৱ সমস্যাটা এখন বেশি ভোগাচ্ছে। করোনার টিকা নেওয়ার পরে বেশ কিছুদিন তিনি ভালোই ‍ছিলেন। তবে এখন মাঝে মাঝেই জ্বর আসছে, শরীরে দুর্বলতাও বাড়ছে। চিকিৎসকেরা আরও আগে তাঁকে হাসপাতালে নেওয়ার পরামর্শ দিয়েছিলেন। তিনি রাজি হচ্ছিলেন না। 

চলতি বছরের ১০ এপ্রিল বিএনপি চেয়ারপারসনের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর জানানো হয়। প্রায় দুই মাস হাসপাতালে থাকতে হয়েছে তাঁকে। ১৯ জুন বাড়ি ফেরার পরে করোনার দুই ডোজ টিকা নিয়েছেন। চিকিৎসকেরা তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য দেশের বাইরে নেওয়ার পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছেন। এই পরামর্শ অনুযায়ী অনুমতি নিতে সরকারের কাছে আবেদন করেছে পরিবার। কিন্তু সেই আবেদনে সাড়া মেলেনি। 

 ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় পাঁচ বছরের সাজা হয় খালেদা জিয়ার। ২০২০ সালের ২৫ মার্চ সরকারের নির্বাহী আদেশে তাঁর ছয় মাসের দণ্ড স্থগিত করা হয়। এরপর তিন দফা তাঁর সাজা স্থগিতের মেয়াদ বাড়ানো হয়। গত ২৪ সেপ্টেম্বর সেই মেয়াদ শেষ হয়। মেয়াদ বাড়াতে পরিবারের পক্ষ থেকে আবেদন করা হলে শর্তসাপেক্ষে জামিনের মেয়াদ আরও ছয় মাস বাড়িয়েছে সরকার। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    আলোচনায় মেয়র নির্বাচন, আওয়ামী লীগে অনৈক্য

    বিএনপির বক্তব্যই বলে কুমিল্লার ঘটনায় তাদের ইন্ধন আছে: তথ্যমন্ত্রী

    আ.লীগের অধীনে নির্বাচনে যাচ্ছি না: ফখরুল

    কুটিল রাজনীতির কারণে সাম্প্রদায়িক শক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে: ওয়ার্কার্স পার্টি

    ক্লাস শুরুর প্রথম দিনেই মধুতে মুখোমুখি ছাত্রলীগ-ছাত্রদল

    বিজ্ঞাপন ছাড়া সম্প্রচারে ফিরলো স্টার জলসাও

    অভিজ্ঞতা ছাড়া আইএফআইসি ব্যাংকে চাকরি

    রাশিয়াতে করোনায় একদিনে ৯৯৭ জনের মৃত্যু

    বৃদ্ধার লাশ দাফনের মুহূর্তে মৌমাছির হানা

    দুই যুগ পর মঞ্চে আফজাল হোসেন