রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

তালেবানের সঙ্গে ‘পেশাদার’ আলোচনা হয়েছে: যুক্তরাষ্ট্র

আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২১, ১০:৪৯

তালেবানের সঙ্গে মার্কিন প্রতিনিধিদলের বৈঠক। ছবি: রয়টার্স  কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের দুই দিনের বৈঠকের প্রথম দিনের আলোচনাকে ‘সম্পর্কের নতুন অধ্যায়’ বলে আখ্যা দেন আফগানিস্তানের ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোল্লা আমির খান মুত্তাকি। অন্যদিকে দ্বিতীয় দিনের বৈঠককে ‘প্রাণবন্ত ও পেশাদার’ বলে আখ্যা দিল যুক্তরাষ্ট্র। আন্তর্জাতিক বার্তা সংস্থা রয়টার্সের একটি প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গত শনিবার ও রোববার দুই দিনের এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। গত আগস্টে আফগানিস্তানের ক্ষমতা দখলের পর যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে এটিই প্রথম আনুষ্ঠানিক বৈঠক তালেবানের।

মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস গত রোববার এক বিবৃতিতে বলেন, 'তালেবানের সঙ্গে মার্কিন প্রতিনিধিদলের আলোচনার মূলে ছিল নিরাপত্তা ও সন্ত্রাসবাদ নিয়ে উদ্বেগের বিষয়গুলো। যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য বিদেশি নাগরিক ও আফগানদের নিরাপদে দেশত্যাগের সুযোগের বিষয়টিও ছিল। এ ছাড়া আলোচনার অন্যতম বিষয়বস্তু ছিল, আফগান নারীদের সমাজের সর্বস্তরে অর্থপূর্ণভাবে সম্পৃক্ত করা এবং মানবাধিকার পরিস্থিতির উন্নয়ন।

বিবৃতিতে তিনি বলেন, 'শুধু কথায় নয়, তালেবানকে কাজের মাধ্যমেই বিচার করা হবে।'

তবে আলোচনার পর তালেবানেদের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্র কোনো সমঝোতায় পৌঁছেছে কি না, সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের মানবিক সহায়তার প্রস্তাবকে স্বাগত জানিয়ে দুই দিনের বৈঠক ‘সফল’ হয়েছে বলে দাবি করেছে আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে এই সহায়তা কার্যক্রমের সঙ্গে রাজনীতি মেশানো উচিত হবে না বলেও যুক্তরাষ্ট্রকে সতর্ক করেছেন তাঁরা।

আফগান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, ‘দোহা বৈঠকে সব প্রাসঙ্গিক বিষয় নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। উভয় পক্ষেরই কূটনৈতিক সম্পর্ক ভালো অবস্থানে ফিরিয়ে নেওয়ার প্রচেষ্টা চালানো উচিত।’ বিবৃতিতে উল্লেখ করে বলা হয়, 'প্রয়োজন হলে ভবিষ্যতে আবারও এ ধরনের বৈঠকের আয়োজন করা হবে।'

এর আগে গত শনিবার আফগান পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘বৈঠকে আফগানিস্তানের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের রিজার্ভের ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে আহ্বান জানানো হয়েছে।’

এ ছাড়া মানবিক সহায়তার পাশাপাশি তাঁদের আলোচনার মূল বিষয় ছিল গত বছরে ওয়াশিংটনের সঙ্গে তালেবানের স্বাক্ষরিত চুক্তির বাস্তবায়ন। গত বছরের ওই চুক্তির মধ্য দিয়েই চূড়ান্তভাবে আফগানিস্তান থেকে মার্কিন সেনা প্রত্যাহারের পথ সুগম হয়েছে বলে তিনি জানান।

প্রসঙ্গত, আফগানিস্তানের ক্ষমতা তালেবানদের হাতে যাওয়ার পর দেশটিতে দেখা দিয়েছে গুরুতর মানবিক সংকট। দেশটিতে আফগান নাগরিকদের জীবন বাঁচানোর যুদ্ধ হয়ে উঠেছে আরও বেশি কঠিন।

এমন অবস্থায় সরাসরি দেশটির সাধারণ মানুষের হাতে মানবিক সহায়তা পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করছে যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন পশ্চিমা দেশ। এ ক্ষেত্রে সহায়তা দিতে আগ্রহী তালেবান নেতারাও, তবে বিনিময়ে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি চায় কট্টর মৌলবাদী এই গোষ্ঠী। আর বিশ্বনেতাদের চাওয়া, তালেবান সরকারকে স্বীকৃতি না দিয়েই তাদের সঙ্গে কাজ করা। এ নিয়ে সম্প্রতি কাতারের রাজধানী দোহায় তালেবানের সঙ্গে দুই দিনের বৈঠকে বসে যুক্তরাষ্ট্র।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    রাশিয়াতে করোনায় একদিনে ৯৯৭ জনের মৃত্যু

    হাইতিতে মার্কিন খ্রিষ্টান ধর্মপ্রচারকসহ ১৭ জনকে অপহরণ

    সুখবর

    লকডাউনে কিশোরীর আঁকা ছবি বিক্রি হচ্ছে হাজার হাজার ডলারে

    ব্রিটিশ এমপি খুনের ঘটনায় সন্ত্রাসবাদ আইনে যুবক আটক

    রাশিয়ায় বিষাক্ত মদপানে ১৮ জনের মৃত্যু, গ্রেপ্তার ২

    নবরূপে এল আলতাফ শাহনেওয়াজের ‘আলাদিনের গ্রামে’

    সরকারের এজেন্টরাই পূজামণ্ডপের ঘটনা ঘটিয়েছে: মির্জা ফখরুল

    গোপালগঞ্জে ৭টি দোকান পুড়ে ছাই, কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি

    অন্য রিকশাওয়ালারা আমাকে নবাব শাহজাদা বলে

    ক্লাস শুরুর প্রথম দিনেই মধুতে মুখোমুখি ছাত্রলীগ-ছাত্রদল

    বিজ্ঞাপন ছাড়া সম্প্রচারে ফিরলো স্টার জলসাও