মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

ওষুধ বন্ধ করবেন না

আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২১, ০৯:০০

ছবি: পেকজেলস মানসিক রোগের ওষুধ নিয়ে নানা বিভ্রান্তি আমাদের দেশে এই রোগের চিকিৎসার অন্যতম অন্তরায়। মানসিক রোগের ধরন অনুযায়ী ওষুধ, সাইকোথেরাপি ও অন্যান্য বিজ্ঞানসম্মত চিকিৎসাব্যবস্থা রয়েছে। কোন রোগের জন্য কোন ধরনের চিকিৎসা প্রয়োজন, তার গবেষণাভিত্তিক দিকনির্দেশনা রয়েছে। কিছু রোগের চিকিৎসায়, যেমন সাইকোথেরাপি প্রথম পছন্দ, আবার সিজোফ্রেনিয়া, ম্যানিয়া, তীব্র বিষণ্নতাসহ আরও কিছু রোগে ওষুধ অপরিহার্য।

সাইকিয়াট্রিস্ট রোগীর রোগ নির্ণয় করেন এবং তার জন্য কোন ধরনের চিকিৎসা পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে, সেই পরামর্শ দেন। মানসিক কোনো সমস্যা হলেই যে সঙ্গে সঙ্গে ওষুধ খাওয়া শুরু করতে হবে, সেটা যেমন ঠিক নয়, তেমনি সব মানসিক রোগ ওষুধ ছাড়াই ভালো করা যাবে, তা-ও সত্য নয়।

মানসিক রোগের ওষুধ দীর্ঘ মেয়াদে সেবনের উপদেশ মেনে চলতে অনেকে দ্বিধাবোধ করেন। অনেকের ধারণা, মানসিক রোগের ওষুধে আসক্তি তৈরি হয়। কিন্তু এ ধারণার সপক্ষে কোনো গবেষণালব্ধ প্রমাণ নেই। রোগ নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য চিকিৎসকের পরামর্শমতো নির্দিষ্ট মাত্রায় ওষুধ দীর্ঘদিন সেবনকে আসক্তি বলা যায় না। ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ, হাইপোথাইরয়েডিজমসহ বেশ কিছু শারীরিক রোগের ক্ষেত্রে দীর্ঘ মেয়াদে এবং অনেক ক্ষেত্রে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী আজীবন ওষুধ সেবন করতে হয়। মৃগীরোগ, বাতজ্বর প্রভৃতি রোগের উপসর্গ কমে যাওয়ার পর কয়েক বছর ওষুধ সেবনের জন্য রোগীরা মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকেন। বিভিন্ন মাধ্যম ও পর্যায়ে দীর্ঘদিনের প্রচারণা, তথ্য সরবরাহ ও শিক্ষার কারণে এসব রোগের চিকিৎসা এবং ওষুধের ব্যাপারে সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি অনেকখানিই ইতিবাচক। কিন্তু মানসিক রোগে ওষুধ দীর্ঘ মেয়াদে সেবনের ব্যাপারে সমাজের সার্বিক দৃষ্টিভঙ্গি এখনো নেতিবাচক। কিছুদিন ওষুধ সেবনের পর রোগী যখন ভালো বোধ করেন বা উপসর্গ কমে যায়, তখন রোগী বা তাঁর আত্মীয়স্বজন চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়াই ওষুধ বন্ধ করে দেন। ফলে রোগীর চিকিৎসা ব্যাহত হয়। কিছুদিন পর উপসর্গ আবার ফিরে আসে।

বাস্তবতা হচ্ছে, মানসিক রোগ চিকিৎসায় ব্যবহৃত ওষুধগুলোর ভেতর শুধু বেনজোডায়াজেপিন গ্রুপের ওষুধ চিকিৎসকের পরামর্শ ও নিয়মিত তত্ত্বাবধান ছাড়া টানা দীর্ঘদিন খেলে আসক্তির সমস্যা দেখা দিতে পারে। বিষণ্নতানাশী, আবেগ স্থিতকারী বা জটিল মানসিক রোগে ব্যবহৃত ওষুধে আসক্তির কোনো বিজ্ঞানভিত্তিক প্রমাণ নেই। দেখা যায়, আসক্তির ভ্রান্ত আশঙ্কায় প্রয়োজন ও চিকিৎসকের পরামর্শ থাকা সত্ত্বেও অ্যান্টিডিপ্রেসেন্ট বা অ্যান্টিসাইকোটিক ওষুধ সেবন করতে চান না যিনি, তিনিই মাসের পর মাস, বছরের পর বছর ঘুমের সমস্যার জন্য সেবন করে যাচ্ছেন বেনজোডায়াজেপিন গ্রুপের ওষুধ! চিকিৎসকের ব্যবস্থাপত্র ছাড়া এই গ্রুপের ওষুধ কারও কাছে বিক্রি করা নিষিদ্ধ হলেও অনেক ওষুধের দোকানেই এর ব্যত্যয় ঘটতে দেখা যায়। নেপথ্যের মানসিক রোগটি নিয়ন্ত্রণের প্রয়োজনীয় চিকিৎসাব্যবস্থা গ্রহণ না করে শুধু অনিদ্রার উপসর্গ কমাতে ওষুধ সেবনের কারণে প্রকৃত চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হন রোগী। রোগ ক্রমশ জটিল আকার ধারণ করে।

লেখক: সহকারী অধ্যাপক, সাইকিয়াট্রিস্ট, জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    মান যাচাই ছাড়াই বাজারে চিকিৎসা সরঞ্জাম

    পিত্তথলিতে পাথর

    প্রো-অ্যাকটিভ হাসপাতালে চক্ষু ইউনিটের উদ্বোধন

    ঘাড়ে ব্যথায় করণীয়

    নন্দীগ্রামে বৃদ্ধি পাচ্ছে পরিবেশ বিপর্যয়কারী ইউক্যালিপটাস গাছের উৎপাদন ও বিপণন

    করোনার টিকা কি বাধ্যতামূলক হওয়া উচিত

    সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্টের উসকানি ভারতের মুসলমানদের জীবন বিপাকে ফেলছে: কাদের

    আওয়ামী লীগকে গদি ছেড়ে রাস্তায় নামার পরামর্শ মির্জা আব্বাসের

    এ এইচ এম হাবিবুর রহমান ভূঁইয়ার দায়িত্ব গ্রহণ

    কাউখালীতে অগ্নিকাণ্ডে ৯ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ৩ বসতঘর পুড়ে ছাই