মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

অচল বিমানবন্দরগুলো চালুর সময় এসেছে

আপডেট : ১২ অক্টোবর ২০২১, ০৮:০০

মানুষের ক্রয়ক্ষমতা বাড়লে জীবনযাত্রায় তার প্রভাব পড়ে। এর সঙ্গে রুচি ও আভিজাত্যেও পরিবর্তন আসে। এক যুগের বেশি সময়ে দেশের আর্থসামাজিক অবস্থায় ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। মানুষের গড় মাথাপিছু আয় ২ হাজার ডলার ছাড়িয়ে গেছে বেশ আগেই। সরকারি-বেসরকারি খাতে বিনিয়োগ বাড়ায় এর প্রভাব পড়েছে মানুষের আয়ে, কর্মসংস্থানে। বলা যায়, দেশের অর্থনীতিতে একটা রূপান্তর চলছে। রূপান্তরপর্বের এ পর্যায়ে অচল পড়ে থাকা দেশের কয়েকটি বিমানবন্দর চালুর ব্যাপারে নতুন করে ভাবার সময় এসেছে। কারণ, কাজের প্রয়োজনেই দেশের ভেতরে দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারী, সাধারণ মানুষের চলাচল বেড়েছে।

আজকের পত্রিকায় প্রকাশিত একটি খবরে বলা হয়, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় পাবনার ঈশ্বরদী, কুমিল্লা, ঠাকুরগাঁও, মৌলভীবাজারের শমশেরনগর, বগুড়া ও লালমনিরহাটে ছয়টি বিমানবন্দর নির্মাণ করা হয়। পরে কয়েকটি বিমানবন্দরে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালু হলেও যাত্রীসংকটে তা বন্ধ হয়ে যায়। কিন্তু সময়ের সঙ্গে বাস্তবতায় আমূল পরিবর্তন এসেছে। মানুষ এখন সময়কে মূল্য দিচ্ছেন। সড়কপথে যানজটের কারণে জরুরি কাজে তাঁরা এখন বিমানে চলাচল বাড়িয়ে দিয়েছেন। বেশিসংখ্যক মানুষের বিমানে চড়ার সক্ষমতা যেমন বেড়েছে, তেমনি বিমান সংস্থাগুলোর প্রতিযোগিতার কারণে সড়ক আর বিমানপথে খরচের দিক থেকেও তুলনামূলক সুবিধাও পাওয়া যাচ্ছে। ফলে একসময় যাত্রীসংকটে বিমান চলাচল বন্ধ হলেও এখন আর সেই পরিস্থিতি নেই। সচল বিমানবন্দরগুলোর দিকে তাকালেই বিষয়টি বোঝা যায়।  

আর অচল পড়ে থাকা বিমানবন্দরগুলোর প্রায় সবগুলোই ভৌগোলিক কারণে গুরুত্বপূর্ণ। যেমন মৌলভীবাজারের শমশেরনগর আশপাশের প্রবাসী-অধ্যুষিত হওয়ায় এখানে যাত্রীর সংকট হওয়ার কথা নয়। পর্যটনের দিক থেকেও এ অঞ্চল বেশ আকর্ষণীয়। কুমিল্লা বিমানবন্দরটিও গুরুত্বপূর্ণ। অনেক দিন থেকেই এটি চালুর ব্যাপারে স্থানীয় ব্যবসায়ী, প্রবাসী ও ইপিজেডে বিনিয়োগকারীদের পক্ষ থেকে দাবি জানানো হয়। এ ছাড়া ঈশ্বরদী, ঠাকুরগাঁও, বগুড়া ও লালমনিরহাটের বিমানবন্দরগুলোও এখন কাজে লাগানোর সময় হয়েছে। কারণ, এসব অঞ্চলে নানান রকম অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ডের প্রসার ঘটছে। মানুষেরও সময় বাঁচানোর তাগিদে বিমানে চড়ার প্রবণতা বেড়েছে।

অচল পড়ে থাকা প্রায় সবগুলো বিমানবন্দরই অবকাঠামোগত দিক থেকে প্রায় তৈরি আছে। সামান্য কিছু উন্নয়ন ও আনুষঙ্গিক কাজ করলেই এগুলো চালু করা সম্ভব বলে জানা যায়। ফলে সরকার এখন পুরো বিষয়টি নতুন করে পর্যালোচনা করে এসব বিমানবন্দর কীভাবে চালু করা যায়, তা ভাবতে পারে। এতে সাধারণ মানুষ, প্রবাসী, মুমূর্ষু রোগী, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারী ও ব্যবসায়ীদের যেমন লাভ হবে; তাঁদের সময়ের অপচয় রোধ হবে, এয়ারলাইনসগুলোর বিনিয়োগ বাড়বে, তাদের মধ্যে প্রতিযোগিতা তৈরি হবে, মানুষের কর্মসংস্থান হবে, পর্যটন ও ব্যবসার প্রসার ঘটবে। সবচেয়ে বড় কথা হলো, সরকারও এ থেকে রাজস্ব পাবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ২০১১ সালের পর থেকে হামলা তীব্রতর হচ্ছে

    মন্দির-মণ্ডপে হামলা পরিষ্কার ষড়যন্ত্র

    কুমিল্লায় ব্যবস্থা নিলে সারা দেশে ছড়াত না

    ইস্যু এবং ইস্যু; আপনার কোনটি?

    প্রান্তিক সংস্কৃতি ও আমাদের দায়

    ধর্মকে পুঁজি করে আর কত?

    শিবগঞ্জ সীমান্ত থেকে কোটি টাকার ইয়াবা উদ্ধার 

    হাগের আডির মতো ২০-২৫ টেহায় বেচতাছে বন

    ভারত-পাকিস্তান সেমিফাইনালে খেলবে, বলছেন পাকিস্তানি সাবেক 

    তফসিল ঘোষণার সাত দিন পরও মনোনয়ন ফরম না পাওয়ায় প্রার্থীদের ক্ষোভ 

    পিএসসির প্রশ্ন ফাঁস করলে সর্বোচ্চ ১০ বছর জেল

    ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মেয়র আতিকুলের বিরুদ্ধে মামলা