রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

দক্ষিণাঞ্চলে হবে দ্বিতীয় পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র, রাশিয়ার সহযোগিতা চাইলেন প্রধানমন্ত্রী

আপডেট : ১১ অক্টোবর ২০২১, ১৬:৪৪

রোসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ আজ সোমবার গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন। ছবি: বাসস গতকাল রোববার পাবনার রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের (আরএনপিপি) রিয়্যাক্টর প্রেসার ভেসেল স্থাপন কাজের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাশিয়ার কারিগরি ও আর্থিক সহায়তায় বাংলাদেশ পরমাণু শক্তি কমিশন এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। এবার দক্ষিণাঞ্চলে আরেকটি পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনে রাশিয়ার সমর্থন এবং সহযোগিতা চেয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি করপোরেশন রোসাটমের মহাপরিচালক আলেক্সি লিখাচেভ আজ সোমবার সকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে সৌজন্য সাক্ষাতে যান। এ সময় প্রধানমন্ত্রী তাঁকে এ কথা বলেন। 

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বৈঠক সম্পর্কে পরে সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। 

রূপপুরে রাশিয়ার কারিগরি এবং আর্থিক সহযোগিতায় প্রথম পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণকাজ চলছে। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি করপোরেশন রোসাটম এই সহযোগিতা দিচ্ছে। নিরাপত্তার বিষয়ে সর্বাধিক গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী রোসাটমের মহাপরিচালককে স্থানীয় জনগণকে প্রশিক্ষণ দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। 

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলাপকালে আলেক্সি লিখাচেভ বলেন, বাংলাদেশ এবং রাশিয়ার পারস্পরিক সহযোগিতা পারমাণবিক ক্ষেত্রে প্রবেশ করেছে এবং ২০২৩ সালের মধ্যে বাংলাদেশ পরমাণু শক্তিধর দেশে পরিণত হবে। 

তিনি বলেন, আরএনপিপি পরিচালনার জন্য তাঁরা বাংলাদেশিদের প্রশিক্ষণ দেবেন এবং বাংলাদেশের বিদ্যুৎ খাতে তাঁদের সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে। 

স্থানীয় কর্মীদের প্রশংসা করে তিনি বলেন, ইঞ্জিনিয়ার, টেকনিশিয়ান এবং অন্যান্য জনবলসহ ২০ হাজারেরও বেশি মানুষ রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্রে কাজ করে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন। অনেক বাংলাদেশি কোম্পানিও সাব-কন্ট্রাক্টে কাজ করছে। 

রোসাটমের মহাপরিচালক রূপপুর পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র বাস্তবায়নে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ পরমাণু কমিশনের সহযোগিতার প্রশংসা করে বলেন, কিন্তু বাস্তবায়নের সময় সমন্বয় করা যেতে পারে। 

নিরাপত্তার বিষয়ে তিনি বলেন, নিরাপত্তার বিষয়টিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেবেন এবং তাঁরা প্ল্যান্টের কাছাকাছি এলাকায় সামাজিক উন্নয়নেও কাজ করছেন। 

রোসাটমের মহাপরিচালক এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সামনে আরএনপিপির কারিগরি ও নিরাপত্তার দিকগুলো উপস্থাপন করেন। আলেক্সি লিখাচেভ আরএনপিপি বাস্তবায়নে সহায়তার জন্য প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেন। 

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের সময় তৎকালীন রাশিয়ান ফেডারেশনের সমর্থনের কথাও স্মরণ করেন। তিনি মহাপরিচালককে আরও বলেন, কোভিড-১৯ মহামারি বাংলাদেশের অগ্রগতি কিছুটা থামিয়ে দিয়েছে, কিন্তু এখন তা কাটিয়ে উঠে এগিয়ে যাচ্ছে। 

রোসাটমের মহাপরিচালক স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, আরএনপিপিতে কর্মরত ৯০ শতাংশের বেশি রুশ নাগরিককে তাঁরা টিকা দিয়েছেন। 

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান, অ্যাম্বাসেডর অ্যাট লার্জ মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সচিব জিয়াউল হাসান এ সময় উপস্থিত ছিলেন। 

উল্লেখ্য, পাবনার আরএনপিপির দুটি ইউনিট রয়েছে। এর প্রত্যেকটির ক্ষমতা ১ হাজার ২০০ মেগাওয়াট। 

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    অনেক কিছু দেখছি, প্রমাণের অপেক্ষায় আছি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

    লালন সম্মাননা স্মারক পেলেন সাত লালন গবেষক ও সাধক

    দাবা খেললেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা

    সাম্প্রদায়িক সহিংসতায় ৩১ কবি-সাহিত্যিকের উদ্বেগ প্রকাশ

    বজ্রপাতের ঝুঁকি কমাতে বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে কাজ করা হচ্ছে: দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা প্রতিমন্ত্রী

    জাতীয় জাদুঘরে 'সুইজারল্যান্ড কর্নার' উদ্বোধন

    সেরা ছন্দের মোস্তাফিজকে খেলা কঠিন

    ভালো অবস্থানে আছে সাকিব

    এক যুগের আইনি লড়াই শেষে স্বপদে ফিরলেন অধ্যক্ষ

    পেশার স্বীকৃতি চান মোবাইল ফোন মেরামতকারীরা

    চোখ থাকবে যাঁদের ওপর

    একসময়ের ‘বেকার’ গোলরক্ষকই বাঁচালেন চেলসিকে