Alexa
শনিবার, ০৪ ডিসেম্বর ২০২১

সেকশন

 
মানসিক স্বাস্থ্য দিবস

১৫ অদ্ভুত ও বিপজ্জনক মানসিক রোগ

আপডেট : ০৯ নভেম্বর ২০২১, ১৩:৩৪

সব দেশের মানুষের মধ্যেই মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা রয়েছে। লাখ লাখ মানুষ নানা ধরনের মানসিক সমস্যায় ভোগেন। কিন্তু অনেক মানুষই নিজের রোগ সম্পর্কে সচেতন থাকেন না। ফলে তাঁরা চিকিৎসকের কাছেও যান না। আবার বাংলাদেশের মতো কিছু দেশে সাধারণ মানুষের অসচেতনতার পাশাপাশি স্বাস্থ্য অবকাঠামোও অত্যন্ত অপ্রতুল।

গবেষণা বলছে, দেশের ৯২ শতাংশ মানুষই মানসিক স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত। মাত্র ৮ শতাংশ মানুষ এই সেবার আওতায় রয়েছে। আর বর্তমানে মানসিক সমস্যায় ভুগছেন দেশের ১৭ শতাংশ মানুষ। 

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল অ্যালায়েন্স অন মেন্টাল ইলনেসের তথ্য অনুসারে, যুক্তরাষ্ট্রে প্রতি পাঁচজন প্রাপ্তবয়স্কের মধ্যে একজন প্রতি বছর মানসিক অসুস্থতার সম্মুখীন হন। এ ছাড়া, যুক্তরাষ্ট্রে ১ শতাংশের বেশি প্রাপ্তবয়স্ক সিজোফ্রেনিয়া এবং প্রায় ২ দশমিক ৬ শতাংশ বাইপোলার ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত। 

এই ধরনের ব্যাধিগুলো তুলনামূলক ভাবে স্পষ্ট। চিকিৎসক এবং অন্য মানসিক স্বাস্থ্য পেশাদাররা সাধারণ নির্ণয় পদ্ধতি ব্যবহার করেই রোগগুলো শনাক্ত করতে পারেন। কিন্তু এমন কিছু মানসিক সমস্যা রয়েছে যেগুলো অত্যন্ত বিরল এবং সুনির্দিষ্ট ভাবে শনাক্ত করা বেশ কঠিন। কিন্তু রোগগুলো ভয়ংকর। এতে আক্রান্ত ব্যক্তির পাশাপাশি তার আশপাশের অন্যরাও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারেন। 

এ রকম ১৫টি রোগের বর্ণনা নিচে দেওয়া হলো: 

স্টেনডাল সিনড্রোম
স্টেনডাল সিনড্রোম যাদের আছে তাঁদের ক্ষেত্রে শারীরিক এবং মানসিক উদ্বেগের পাশাপাশি প্যানিক অ্যাটাক, বিচ্ছিন্ন অভিজ্ঞতা, বিভ্রান্তি এবং কোনো শিল্পকর্ম দেখার পর হ্যালুসিনেশনের মতো ঘটনা ঘটতে পারে।  সাধারণত যে শিল্পকে বিশেষভাবে সুন্দর বলে মনে করা হয় বা যখন একটি স্থানে বিপুল পরিমাণে শিল্পকর্ম রাখা থাকে সেখানে গেলে এমন অভিজ্ঞতা হতে পারে। যেমন জাদুঘর বা আর্ট গ্যালারিতে অতিমাত্রায় স্নায়ু উদ্দীপনা তৈরি হতে পারে। মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েবসাইট মেডস্কেপে বলা হচ্ছে, এসবের পাশাপাশি প্রকৃতির সৌন্দর্য দেখেও একই ধরনের প্রতিক্রিয়া হতে পারে। উনিশ শতকের ফরাসি লেখকের নামে এই সমস্যার নামকরণ করা হয়েছে। ১৮১৭ সালে ফ্লোরেন্স ভ্রমণের সময় লেখক এমন উপসর্গ অনুভব করেছিলেন। স্টেনডাল সিনড্রোম আবার হাইপার কালচারেমিয়া বা ফ্লোরেন্স সিনড্রোম নামেও পরিচিত। 

অ্যাপোটেমনোফিলিয়া
শরীরের অখণ্ডতার ধারণা বিকার নামেও পরিচিত। অ্যাপোটেমনোফিলিয়া আক্রান্ত ব্যক্তি দেহের কোনো সুস্থ অঙ্গ শরীর থেকে বিচ্ছিন্ন করার প্রবল ইচ্ছা পোষণ করেন। অবশ্য এই মানসিক সমস্যা সম্পর্কে খুব একটা জানা যায় না। মনোবিদেরা এটিকে স্নায়বিক ব্যাধি বলেই মনে করেন। আক্রান্ত ব্যক্তি নিজের অঙ্গ কেটে ফেলার চেষ্টা করতে পারেন বা এমন ভাবে কোনো অঙ্গের ক্ষতি করতে পারেন যে সেটি সারাতে অস্ত্রোপচার জরুরি হয়ে পড়ে। 

মস্তিষ্কের ডান প্যারিয়েটাল লোব কোনো কারণে ক্ষতিগ্রস্ত হলে অ্যাপোটেমনোফিলিয়ার মতো উপসর্গ দেখা দেয়। এ ধরনের রোগের চিকিৎসা বেশ চ্যালেঞ্জিং, কারণ আক্রান্ত ব্যক্তি সাধারণত চিকিৎসকের কাছে যান না। কগনিটিভ বিহ্যাভিওরাল থেরাপি এবং অ্যাভারসন থেরাপির মাধ্যমে অ্যাপোটেমেনোফিলিয়ার চিকিৎসা করা হয়। 

এলিয়েন হ্যান্ড সিনড্রোম
এই সিনড্রোমে আক্রান্ত ব্যক্তি মনে করেন তাঁর হাত আসলে তাঁর নয়। হাতের যেন আলাদা জীবন আছে। এলিয়েন হ্যান্ড সিনড্রোমে আক্রান্ত ব্যক্তির অন্যান্য স্বাভাবিক অনুভূতি আছে। কিন্তু তাঁরা মনে করেন, তাঁদের হাত যেন এক স্বাধীন জীবন্ত বস্তু, হাতের নিজস্ব ইচ্ছা অনুভূতি আছে। আক্রান্ত ব্যক্তিরা অঙ্গটিকে একটি পৃথক সত্তা হিসেবে বিবেচনা করতে শুরু করেন। হাত তার নিয়ন্ত্রণে থাকে না। আক্রান্ত হাতের নিজস্ব এজেন্ডা থাকে! 

কর্পাস ক্যালোসামের ক্ষতি হলে এমন সমস্যা দেখা দেয়। এই অংশটি মস্তিষ্কের দুটি সেরিব্রাল গোলার্ধকে সংযুক্ত করে। অন্য কারণগুলোর মধ্যে রয়েছে-স্ট্রোক এবং প্যারিয়েটাল লোবের ক্ষতি। হাতগুলোর মধ্যে তখন ‘আন্তঃব্যক্তিক দ্বন্দ্ব’ বা ‘আইডিওমোটর অ্যাপ্রাক্সিয়া’ আছে বলে মনে হয়। অর্থাৎ মনে হয় যেন একটি হাত আরেক হাতের বিরুদ্ধে লড়ছে। 

ক্যাপগ্রাস সিনড্রোম
এই সিনড্রোমের নাম রাখা হয়েছে জোসেফ ক্যাপগ্রাস নামে এক ফরাসি মনোরোগ বিশেষজ্ঞের নামে। তিনি ক্যারিয়ারের একটি উল্লেখযোগ্য অংশ দ্বিত্বের বিভ্রম অন্বেষণে ব্যয় করেছেন। ক্যাপগ্রাস সিনড্রোমে আক্রান্ত ব্যক্তির মনে হয় যেন তাঁর কোনো এক প্রিয়জনের স্থলে একইরকম দেখতে আরেক খারাপ লোক ছদ্মবেশ ধরে ঢুকে পড়েছে। এটি স্বামী, স্ত্রী, ঘনিষ্ঠ বন্ধু বা পরিবারের সদস্যের ক্ষেত্রে হতে পারে। অর্থাৎ কোনো এক প্রিয় জনকে অন্য ব্যক্তি বলে ধারণা হওয়ার বিভ্রমের মধ্যে থাকেন তিনি। মনে হয় যেন, তার স্বামী আর আগের ব্যক্তিটি নেই। তিনি তাঁর ক্ষতি বা তাঁকে খুন করার ষড়যন্ত্র করছেন। এটি সিজোফ্রেনিয়া, নিদ্রাহীনতা, মৃগীরোগে আক্রান্ত এবং মস্তিষ্কে আঘাত পাওয়া ব্যক্তির মধ্যে দেখা দিতে পারে। 

অ্যালিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড সিনড্রোম
অ্যালিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড সিনড্রোম (এআইডব্লিউএস), টড সিনড্রোম নামেও পরিচিত। এটি একটি স্নায়বিক বিকার জনিত সমস্যা। আক্রান্ত ব্যক্তির মনে হয় তার দেহের ছবি, স্থান এবং/অথবা সময় যেন বিচ্যুত বা বিকৃত হচ্ছে। তাঁরা চারপাশের পরিবেশ বিকৃত ভাবে দেখে। 

অ্যালিস যেমন বাড়ির উচ্চতার চেয়েও অনেক লম্বা হয়ে যায়, অ্যালিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড সিনড্রোমে আক্রান্ত ব্যক্তিরও এ ধরনের অনুভূতি হয়। তাঁরা শান্ত বা জোরে শব্দ শুনতে পান, বস্তুর আকার প্রকৃত আকারের চেয়ে ছোট বা বড় দেখেন। এমনকি সঠিক বেগ বা টেক্সচারের অনুভূতিও হারান। আক্রান্ত ব্যক্তি তার শরীরের বিভিন্ন অঙ্গের আকার আকৃতি নিয়ে বিভ্রান্তির মধ্যে থাকেন। 

এই উপসর্গগুলো আতঙ্ক ও ভয়ের প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করতে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তি ঘন ঘন মাইগ্রেন, মস্তিষ্কের টিউমার আক্রান্ত বা ড্রাগ আসক্ত হয়ে যেতে পারেন। ৫ থেকে ১০ বছর বয়সী শিশুদের মধ্যে এমন সমস্যা দেখা দিতে পারে। 

এ ধরনের ব্যক্তির হ্যালুসিনেশন, সংবেদের বিকার এবং গতি বেগের পরিবর্তিত অনুভূতি হতে পারে। 

সৌভাগ্যবশত, এলিস ইন ওয়ান্ডারল্যান্ড সিনড্রোম অত্যন্ত বিরল। বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তাঁদের ২০-এর দশকে যাদের ব্রেন টিউমার বা ড্রাগ নেওয়ার ইতিহাস আছে তাঁদের মধ্যে দেখা গিয়েছিল। 

বোয়ানথ্রপি
খুব বিরল কিন্তু ভীতিকর মানসিক ব্যাধি এটি। বোয়ানথ্রপিতে আক্রান্ত ব্যক্তি নিজেকে গরু বলে মনে করেন। তাঁরা প্রায়শই গরুর মতো আচরণ করেন। কখনো কখনো তাঁদের মাঠে গরুর মতো চরতে দেখা যায়। গরুর পালের মধ্যে চার পায়ে হাঁটেন, ঘাস চিবান এবং নিজেকে গরুর পালেরই একজন সদস্য বলে মনে করেন। বোয়ানথ্রপি আক্রান্ত ব্যক্তি বুঝতে পারে না যে তাঁরা গরুর মতো আচরণ করছেন। গবেষকেরা মনে করেন, এই অদ্ভুত মানসিক ব্যাধি স্বপ্ন বা সম্মোহন থেকেও আরোপ করা যেতে পারে। মজার ব্যাপার হলো, বাইবেলেও বোয়ানথ্রপির কথা উল্লেখ আছে। সেখানে ব্যাবিলনের রাজা নেবুচাদনেজারকে ‘মানবগোষ্ঠী থেকে বেরিয়ে গিয়ে ষাঁড়ের মতো ঘাস খেয়েছিলেন’ বলে বর্ণনা করা হয়েছে। 

ক্লিনিক্যাল লাইক্যানথ্রোপি
বোয়ানথ্রপির মতো, যারা ক্লিনিক্যাল লাইক্যানথ্রোপিতে ভুগছেন তাঁরাও বিশ্বাস করেন যে, তাঁরা পশুতে পরিণত হতে সক্ষম। নিজেকে নেকড়ে বলে মনে করেন। কখনো অন্য প্রাণী বলেও মনে হয়। ক্লিনিক্যাল লাইক্যানথ্রোপিতে আক্রান্ত ব্যক্তি পশুর মতো আচরণ করেন। নিজেকে নেকড়ে বা বাঘ সিংহ বলে মনে হলে তিনি তখন তেমন হিংস্র আচরণ করতে শুরু করেন। প্রায়শই বনে-জঙ্গলে গিয়ে থাকেন বা কখনো বনে গিয়ে পালিয়ে থাকেন।

কোটার্ড ডিলিউশন
দ্য ওয়াকিং ডেড বা হালের হলিউডি জম্বি সিনেমা নিয়ে মানুষের আগ্রহ ব্যাপক। কিন্তু কারও কারও ক্ষেত্রে ব্যাপারটা নিয়ন্ত্রণের সীমা ছাড়িয়ে যায়। তাঁরা এটিকে সত্যি সত্যি স্বাস্থ্য সমস্যা হিসেবে ভাবতে শুরু করেন। এমনকি নিজেকেই এক সময় ওয়াকিং ডেড বা জম্বি ভাবেন। একেই বলে কোটার্ড ডিলিউশন। এই ভয়ানক মানসিক ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তি বিশ্বাস করতে শুরু করেন যে, আক্ষরিক অর্থেই তিনি ওয়াকিং ডেড বা ভূত হয়ে গেছেন। শরীর ক্রমেই ক্ষয়ে যাচ্ছে এবং/অথবা শরীরের সমস্ত রক্ত এবং অভ্যন্তরীণ প্রত্যঙ্গ হারিয়ে ফেলেছেন। শরীর পচে গলে যাওয়ারও একটা অনুভূতি হতে পারে। কোটার্ড ডিলিউশনে ভোগা রোগীর বিষণ্নতার শিকার হওয়া স্বাভাবিক। কিছু ক্ষেত্রে রোগীর না খেয়ে মরার চিন্তাও আসতে পারে। 

এই ভয়ংকর ব্যাধিটি ১৮৮০ সালে প্রথম বর্ণনা করেন স্নায়ুবিদ জুলস কোটার্ড। অবশ্য কোটার্ড ডিলিউশন অত্যন্ত বিরল রোগ। কোটার্ড ডিলিউশনের সবচেয়ে আলোচিত ঘটনাটি ঘটেছিল হাইতিতে। সেখানে এক ব্যক্তি দৃঢ় ভাবে বিশ্বাস করতেন যে, তিনি এইডসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন এবং বর্তমানে জাহান্নামে আছেন। 

ডায়োজেনিস সিনড্রোম
ডায়োজেনিস সিনড্রোমকে সাধারণত এক ধরনের ‘মজুতদারি’ বোঝায়। অর্থাৎ অকারণে জিনিস পত্র জমিয়ে রাখার একটা সমস্যা। এ কারণে এই রোগ সম্পর্কে প্রায়ই ভুল বোঝাবুঝি হয়। গ্রিক দার্শনিক সিনোপের ডায়োজেনিসের নামে এই রোগের নাম রাখা হয়েছে। মজার ব্যাপার হচ্ছে, জায়োজেনিস নিজে আসলে মিনিমালিস্ট! আক্রান্ত ব্যক্তির মধ্যে অকারণে জিনিসপত্র সংগ্রহ করার প্রবণতা দেখা যায়। অনিয়ন্ত্রিত মজুত ছাড়াও, ডায়োজেনিস সিনড্রোমের সঙ্গে নিজের প্রতি চরম অবহেলা, নিজের বা অন্যদের প্রতি উদাসীনতা, সমাজকে অগ্রাহ্য করা এবং নিজের ‘বদভ্যাসের’ জন্য কখনোই লজ্জিত না হওয়ার প্রবণতা দেখা যায়। বয়স্ক, নিদ্রাহীনতায় আক্রান্ত এবং যারা জীবনের কোনো এক সময় পরিত্যক্ত হয়েছিলেন বা যারা কোনো স্থিতিশীল পরিবেশে বেড়ে ওঠেননি তাঁদের মধ্যে ডায়োজেনিস সিনড্রোম দেখা যেতে পারে। 

বিচ্ছিন্ন পরিচয় বোধের সমস্যা
ডিসোসিয়েটিভ আইডেন্টিটি ডিসঅর্ডার (ডিআইডি)। একসঙ্গে একাধিক ব্যক্তিত্ব ধারণের ব্যাধি নামেও পরিচিত। এটি একটি ভয়ংকর মানসিক রোগ। এ ধরনের সমস্যা নিয়ে অসংখ্য সিনেমা এবং টেলিভিশন শো নির্মিত হয়েছে। এ ধরনের সমস্যায় ভোগা লোকের দুতিনটি আলাদা পরিচয় থাকে। কখনো কখনো আরও বেশি। ভুক্তভোগীরা নিয়মিতভাবে ব্যক্তিত্ব পরিবর্তনের একটি চক্রের মধ্যে থাকেন। কয়েক ঘণ্টা বা কয়েক বছর পরপর তিনি আলাদা একটি পরিচয়ে বিরাজ করেন। তাঁদের আত্মপরিচয় মুহূর্তের মধ্যে বদলেও যেতে পারে। পরিচয় বদলের আগে তাঁদের মধ্যে কোনো ধরনের সতর্কতার লক্ষণও দেখা যায় না। এ ধরনের সমস্যায় যে তিনি আক্রান্ত, এটা তাকে বোঝানো প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়ে। এই কারণে, ডিসোসিয়েটিভ আইডেন্টিটি ডিসঅর্ডার যাদের আছে তাঁরা স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে অক্ষম। তাঁদের মানসিক হাসপাতালে পাঠাতে বাধ্য হন স্বজনেরা। 

ফ্যাকটিশাস ডিসঅর্ডার বা কপট বিকার
হাঁচির সঙ্গে গায়ে কাঁপুনি দেওয়া সর্দি-জ্বর বা অন্য কোনো অসুস্থতার ইঙ্গিত। কিন্তু ফ্যাকটিশাস ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ব্যক্তির ক্ষেত্রে এটা সত্য নয়। এরা অসুস্থতা নিয়ে মিথ্যা বলে, কপট আচরণ করে। আদতে এটি একটি ভয়ংকর মানসিক ব্যাধি। ফ্যাকটিশাস ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত অধিকাংশ ব্যক্তি ইচ্ছাকৃতভাবে নিজেকে অসুস্থ করে তোলেন। তাঁদের মধ্যে অসুস্থ হওয়ার একটা অবসেশন দেখা যায়। ডাক্তারের শরণাপন্ন যেন হতে হয় সেই চেষ্টাই তাঁরা সব সময় করেন। কখনো কখনো তাঁরা অসুস্থতার ভান করেন। মানুষকে বিশ্বাস করানোর জন্য নানা ভাবে চেষ্টা করেন। রোগ নিয়ে বিশাল গল্প ফেঁদে বসেন, খুঁটিয়ে খুঁটিয়ে লক্ষণ উপসর্গ বলেন এবং হাসপাতাল থেকে হাসপাতালে ছুটে বেড়ান। অসুস্থতার প্রতি এই জাতীয় আবেশ (অবসেশন) প্রায়ই অতীতের কোনো আঘাত বা গুরুতর অসুস্থতা থেকে তৈরি হতে পারে।

ক্লুভার-বুসি সিনড্রোম
হাভাতের মতো একটি বইয়ের স্বাদ কল্পনা করা বা একটি গাড়ির সঙ্গে যৌন সম্পর্কের আকাঙ্ক্ষা করা- ক্লুভার-বুসি সিনড্রোমে দ্বারা আক্রান্তরা এমন অদ্ভুত আচরণই করেন। তাঁদের মধ্যে স্মৃতিশক্তি কমে যাওয়া, অখাদ্য বস্তু খাওয়ার ইচ্ছা এবং অটোমোবাইলের মতো নির্জীব বস্তুর প্রতি যৌন আকর্ষণ অনুভব করার মতো আচরণ দেখা যায়। ক্লুভার-বুসি সিনড্রোমে আক্রান্তরা অতি পরিচিত বস্তু বা ব্যক্তিকেও চিনতে পারেন না। এই ভয়ানক মানসিক ব্যাধি শনাক্ত করা কঠিন। মস্তিষ্কের টেমপোরাল লোবে গুরুতর আঘাতের ফল এই রোগ। এই রোগের কোনো প্রতিকার নেই। ফলে আক্রান্ত ব্যক্তি হয়তো সারা জীবন এই সমস্যায় ভোগেন। 

অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার
এই সমস্যাটির কথা ব্যাপকভাবে শোনা যায়। অনেকে আক্রান্ত ব্যক্তিকে উপহাস করেন। খুব কম লোকই অবসেসিভ কম্পালসিভ ডিসঅর্ডার (ওসিডি) বুঝতে পারেন। ওসিডি বিভিন্ন ভাবে প্রকাশ পেতে পারে। তবে আতঙ্কে জড়োসরো থাকা, উদ্বেগ এবং পুনরাবৃত্তিমূলক দুশ্চিন্তা গ্রস্ত থাকা এসব লক্ষণ দেখে ওসিডি চিহ্নিত করা যেতে পারে। বারবার পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন করার মতো কাজের পুনরাবৃত্তি করে থাকেন এসব লোক। অর্থাৎ একটি নির্দিষ্ট কাজ করার অবসেশন দেখা যায় তাঁদের মধ্যে। ওসিডি আক্রান্ত ব্যক্তিরা প্রায়শই পুরোপুরি সচেতন থাকেন যে তাঁদের ভয় বা উদ্বেগ একেবারে অযৌক্তিক, এই উপলব্ধি তখন তাঁদের মধ্যে আরেক উদ্বেগের জন্ম দেয়। ফলে তিনি উদ্বেগের একটি চক্রে ঢুকে পড়েন।

প্যারিস সিনড্রোম
প্যারিস সিনড্রোম একটি অত্যন্ত অদ্ভুত অস্থায়ী মানসিক ব্যাধি। এ ধরনের ব্যক্তি প্যারিস শহরে গিয়ে অভিভূত হয়ে যান। মজার ব্যাপার হলো, এটা জাপানি পর্যটকদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি দেখা যায়। প্রতি বছর প্যারিসে আনুমানিক ৬০ লাখ জাপানি পর্যটক যান। তাঁদের মধ্যে এক থেকে দুই ডজন জাপানি অতিমাত্রায় উদ্বেগ, কোনো কিছুতে ব্যক্তিত্ব আরোপ, অবাস্তব অনুভূতি, নিপীড়নমূলক চিন্তাভাবনা, হ্যালুসিনেশন এবং ভয়ংকর ভ্রান্তিতে ভোগেন। এগুলোই প্যারিস সিনড্রোমের বৈশিষ্ট্য। দেখা গেছে, প্যারিস সিনড্রোমে আক্রান্ত বেশির ভাগ লোকের মানসিক রোগের কোনো ইতিহাস নেই। ধারণা করা হয়, ভাষাগত সীমাবদ্ধতা, শারীরিক ও মানসিক ক্লান্তি এবং কল্পনার সঙ্গে প্যারিসের বাস্তবতার পার্থক্য এই মারাত্মক মানসিক সমস্যা তৈরি করে। 

রিডুপ্লিকেটিভ অ্যামনেসিয়া
রিডুপ্লিকেটিভ অ্যামনেসিয়া, ক্যাপগ্রাস সিনড্রোমের মতোই। এখানে মানুষের ডুপ্লিকেট ভাবার বদলে আক্রান্ত ব্যক্তি স্থানের ডুপ্লিকেট ভাবে। অর্থাৎ কোনো স্থানে গিয়ে তার কাছে স্থানটি অন্য কোনো স্থানের অনুরূপ বলে মনে হয়। এই বিশ্বাসটি বিভিন্ন ভাবে প্রকাশ পেতে পারে। আক্রান্ত ব্যক্তি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করেন যে, একটি স্থান একই সঙ্গে দুই জায়গাতে বিরাজ করছে। ধরা যাক, বান্দরবানে দেখা কোনো পাহাড়কে রাঙামাটিতে গিয়ে দেখা আরেকটি পাহাড়ের অনুরূপ মনে হচ্ছে। হোটেল কক্ষকে তার মনে হচ্ছে বাড়িতে নিজের ঘর। ‘রিডুপ্লিকেটিভ অ্যামনেসিয়া’ শব্দটি প্রথম ১৯০৩ সালে ব্যবহার করেন স্নায়ুবিদ আর্নল্ড পিক। স্মৃতিভ্রংশ (আলঝেইমার) রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির ক্ষেত্রে তিনি এ শব্দ ব্যবহার করেছিলেন। টিউমার, নিদ্রাহীনতা, মস্তিষ্কের আঘাত বা অন্যান্য মানসিক রোগীদের মধ্যে এই সমস্যাটি দেখা যায়। 

আরও পড়ুন:

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    পায়ের প্রতি ভালোবাসা

    সবার জন্য মধু নয়

    অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকায় রক্ত জমাট বাঁধার সম্ভাব্য কারণ খুঁজে পেলেন বিজ্ঞানীরা

    যেভাবে শনাক্ত হয়েছিল ওমিক্রন

    টনসিলের কারণে গলাব্যথা হলে

    ডাবের পানির উপকারিতা ও অপকারিতা

    দেশে এখন উন্নয়নের মহাযজ্ঞ চলছে: মেয়র আতিকুল ইসলাম

    নিউজিল্যান্ডে যেতে না চেয়ে সাকিবের চিঠি

    হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী উপমহাদেশে রাজনীতি ও গণতন্ত্রের ইতিহাসে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র: রাষ্ট্রপতি

    পাকিস্তান সিরিজ বাতিলের অনুরোধ ছিল পাপনের কাছে

    এবার ভ্যাট নিবন্ধন নিল নেটফ্লিক্স

    ‘বাবা নেই, আমাদের ভালোবাসবে কে?’