রহুল আমিন।

শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে শাখা ছাত্রলীগের দুই পক্ষের মধ্যে আবারও হামলা-পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটেছে। এতে সংগঠনটির সভাপতি ‘লাঞ্ছিত’ হয়েছেন বলে জানা গেছে।।

তবে শাহপরান হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, ‘হলের রুম দখলকে কেন্দ্র মঙ্গলবার দিবাগত রাতে ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মৃন্ময় দাস ঝুটন ও ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রুহুল আমীনের অনুসারী কর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়ালে এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে রূপ নেয়।’

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বঙ্গবন্ধু হলের ৪০২২ নম্বর রুমের দখল নিয়ে ঝুটন ও রুহুল আমীনের অনুসারীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়ালে এক পর্যায়ে সেই উত্তেজনা শাহপরান হলেও দুই পক্ষের অনুসারীদের মধ্যেও ছড়িয়ে পড়ে। উত্তেজনা চলাকালে মৃন্ময় দাস ঝুটনের অনুসারী কর্মীরা রুহুল আমীনকে শাহপরান হলের নিচে লাঞ্ছিত করেন করেন।

যদিও শাবি ছাত্রলীগের সভাপতি রুহুল আমিন লাঞ্ছিত হওয়ার মতো কিছু ঘটেনি দাবি করে বলেন, উত্তেজনার খবর পেয়ে তাদের শান্ত করতে আমি ঘটনাস্থলে যাই। এ ঘটনার পেছনে দায়ীদের বিরুদ্ধে আমি সাংগঠনিকভাবে ব্যবস্থা গ্রহণ করব।

রুহুল আমীন বলেন, আমার এক কর্মী ভর্তি হয়ে ৪০২২ নম্বর রুমে থেকে আসছে। সেই রুমের নিয়ন্ত্রণ নিতে বিশৃঙ্খল পরিবেশ তৈরি করে ঝুটনের অনুসারী কর্মীরা। ঝুটনের নির্দেশে তারা হামলা চালায়।

তবে মৃন্ময় দাস ঝুটন বলেন, আমি তখন বাসায় ছিলাম। শুনেছি, এই রুমে আমার এক কর্মী থাকত। কিন্তু রুমের দখল নিতে রুহুলের অনুসারীরা রাতে হামলা চালায়। এ সময় উত্তেজনাকর পরিবেশ তৈরি হয়।

এমএআরএস/শাবি