বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

ভারতে বিরোধী মুখ নিয়েই বিরোধিতা তুঙ্গে

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০২:৪০

ভারতে ২০২৪ সালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বিরোধিতায় বিরোধীদের সম্মিলিত মুখ কে হবেন তা নিয়ে এখন থেকেই শুরু হয়েছে দড়ি টানাটানি। কংগ্রেসের অঘোষিত প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী রাহুল গান্ধী। কিন্তু তাঁকে মানতে চাইছে না মমতা ব্যানার্জির তৃণমূল থেকে শুরু করে বিভিন্ন বিরোধী দল। তৃণমূলের তরফে সম্মিলিত বিরোধী দলের মুখ হিসাবে মমতাকেই তুলে ধরার চেষ্টা হচ্ছে। তৃণমূল মুখপাত্র কুণাল ঘোষের মতে, মমতাই একমাত্র হারাতে পারেন বিজেপিকে। এটা প্রমাণিত। রাহুল গান্ধী ২০১৪ ও ২০১৯ সালে ব্যর্থ। তাই বিজেপিকে হারাতে হলে মমতাকেই চাই বলে মনে করেন তৃণমূল নেতারা। 

নরেন্দ্র মোদীর বিরোধিতায় বিরোধীদের সম্মিলিত মুখ কে হবেন তা নিয়ে এখন থেকেই শুরু হয়েছে দড়ি টানাটানি। ছবি: সংগৃহীত ২০২৪ সালেও শাসক দল বিজেপির প্রধানমন্ত্রী পদপ্রার্থী হবেন নরেন্দ্র মোদি, মোটামুটি নিশ্চিত ভারতের রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে বিরোধীদের সম্মিলিত প্রার্থী কে হবেন, তা নিয়ে শুরু হয়েছে চরম বিরোধিতা। প্রকাশ্যে কংগ্রেস নেতারা মুখ না খুললেও তাঁরা যে অন্য দলের কাউকে প্রধানমন্ত্রীর মুখ হিসাবে চান না​, সেটা ঘরোয়া আলোচনায় বারবার বলছেন। তবে প্রকাশ্যে এখনই মুখ খুলে তৃণমূলকে চটাতে চাইছে না কংগ্রেস। 

লোকসভায় কংগ্রেস নেতা অধীররঞ্জন চৌধুরী বলেন, এখনো বিষয়টি নিয়ে চর্চা করার সময় আসেনি। সবে ২০২১ এখন। ভোট হবে ২০২৪। তার আগেই বিরোধী দলের নেতারা আলোচনার মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর মুখ ঠিক করে নেবেন। 

বর্তমানে তৃণমূল একমাত্র পশ্চিমবঙ্গেই ক্ষমতায় রয়েছে। সর্বভারতীয় রাজনীতিতে তেমন অস্তিত্বও নেই তাঁদের। তবু দলের মুখপত্র জাগো বাংলা-য় রাহুলের বদলে মমতাকেই প্রধানমন্ত্রীর মুখ হিসাবে তুলে ধরা হয়। ২০২১ সালে মমতা বিজেপিকে হারিয়ে মুখ্যমন্ত্রী হিসাবে হ্যাটট্রিক করার পরই তৃণমূলের দাবি আরও জোরদার হয়। দলের প্রবীণ নেতা, সাংসদ সৌগত রায়ের মতে, মমতার লড়াকু ইমেজ, সততা ও অতিসাধারণ জীবনযাপনের পাশাপাশি সাধারণ মানুষের কল্যাণে বিভিন্ন কর্মসূচি তাঁকে সর্বভারতীয় স্তরে বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ স্থানে নিয়ে গিয়েছে। ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারেরও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব সামলেছেন মমতা। তাই তাঁকে প্রধানমন্ত্রীর মুখ হিসাবে তুলে ধরলে বিরোধীরাই উপকৃত হবেন। 

সামনেই উত্তর প্রদেশসহ ৫ রাজ্যে বিধানসভার নির্বাচন। এই ৫ রাজ্যের মধ্যে কংগ্রেস শাসিত পাঞ্জাবও রয়েছে। পাঞ্জাবে কংগ্রেস নিজেদের গোষ্ঠী কোন্দলে জেরবার। এরই মধ্যে শনিবার মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দার সিং ইস্তফা দিয়েছেন। এই অবস্থায় পাঞ্জাব হাত ছাড়া হলে কংগ্রেসের অবস্থা ভারতীয় রাজনীতিতে আরও করুণ হবে। অন্যদিকে, ত্রিপুরা-সহ বিভিন্ন রাজ্যে নিজেদের ক্ষমতা বিস্তারে ঝাঁপিয়ে পড়েছে তৃণমূল। এখন দেখার পালা মমতা নিজেকে সর্বভারতীয় রাজনীতিতে তুলে ধরতে পারেন কিনা। অন্যদিকে, কংগ্রেসের তরফ থেকে রাহুলকে ফের দলের সভাপতি করে সংগঠনকে চাঙা করার চেষ্টা শুরু হয়েছে। তবে বিজেপি বিরোধীদের গুরুত্ব দিতেই নারাজ।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    নেপালে বন্যা ও ভূমিধসে কমপক্ষে ৭৭ জনের প্রাণহানি

    রাশিয়ায় টানা দুদিন করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড

    করোনার সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে রাশিয়াতে এক সপ্তাহের ছুটি

    ভারতের দুই রাজ্যে ভারী বৃষ্টির প্রভাবে ৮৫ জনের প্রাণহানি

    আত্মঘাতী হামলায় নিহতদের পরিবারকে পুরস্কৃত করল তালেবান

    মডার্না ও জনসনের বুস্টার ডোজের অনুমোদন দিল যুক্তরাষ্ট্র

    বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ ও ভিডিও ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগ

    সিদ্ধিরগঞ্জে 'ভুয়া' চিকিৎসক আটক

    মাধবপুরে ভিমরুলের কামড়ে ১০ দিন পর মৃত্যু

    ধর্মান্ধ রাজনীতির বলি হচ্ছে সংখ্যালঘুরা: জাফরউল্লাহ চৌধুরী

    সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী