বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে ওএমএসের আটা

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১৩

ফাইল ছবি রাজধানীতে বাড়তি দামে বিক্রি হচ্ছে ওপেন মার্কেট সেলের (ওএমএস) আটা। সরকার নির্ধারিত মূল্য কেজি প্রতি ১৮ টাকা হলেও নেওয়া হচ্ছে ২০ টাকা। জনপ্রতি ৫ কেজি আটায় নেওয়া হচ্ছে ১০০ টাকা। 

বিক্রেতারা বলছেন, অতিরিক্ত অর্থ নেওয়া হচ্ছে একটা পলিথিনের দাম হিসেবে। অন্যদিকে ক্রেতাদের অভিযোগ সর্বোচ্চ ২ টাকা মূল্যের ১টি পলিথিন ব্যাগের জন্য তারা হাতিয়ে নিচ্ছে ১০ টাকা। এ নিয়ে প্রায়ই ক্রেতা-বিক্রেতাদের মধ্যে তর্কের সৃষ্টি হচ্ছে। দাম অনুযায়ী পণ্যগুলো হিসাব  করলে দেখা যায়, প্রতিদিন একেকটি ডিলার বিক্রি ভেদে বাড়তি দাম ধরে হাতিয়ে নিচ্ছেন ২ থেকে ৩ হাজার টাকা। 

খাদ্য অধিদপ্তরের তথ্যানুযায়ী রাজধানীতে ওএমএস-এর ডিলার রয়েছে মোট ২৪৬ জন। রাজধানীর এসব ডিলারদের অঞ্চলকে ৮ ভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। যাদের ডি-১ থেকে ডি-৮ পর্যন্ত ভাগ করা হয়েছে। এর মধ্যে রাজধানীর শ্যামপুর, কদমতলী, ডেমরা ও যাত্রাবাড়ী এলাকার ডি-১ এ রয়েছে ২৮টি ডিলার। 

সরেজমিনে রাজধানীর জুরাইন, পোস্তগোলা, ধলপুর, মীরহাজীরবাগ, শনির আখড়া, ভাঙ্গাপ্রেস, কাজলা ও যাত্রাবাড়ীসহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে অনিয়মের এ চিত্র দেখা যায়। জুরাইন মাজারের কাছে ট্রাকে করে বিক্রি হচ্ছে জনপ্রতি ৫ কেজি ৯০ টাকার আটা ১০০ টাকায়। এখানে আটা নিতে আসা ফারজানাসহ কয়েকজন নারী জানান, আমরা ৫ কেজি আটা ১০০ টাকা দিয়ে নিলাম। কেন বেশি দিচ্ছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তারা জানান, কিছুই বলার নাই। পলিথিন ব্যাগের বিনিময়ে তারা ১০ টাকা বেশি নিচ্ছেন। তবে এ কথা মুঠোফোনে অস্বীকার করেন ডিলার সাহেদ আলী। একই চিত্র দেখা যায় যাত্রাবাড়ী কাজলার পাড়। 

পোস্তগোলা শিল্প এলাকার ওএমএস-এর দোকানে আসেন সোলায়মান নামের এক বৃদ্ধ। আটা কত করে কিনলেন জিজ্ঞাসা করতেই হতাশ কণ্ঠে এই বৃদ্ধ লোক বললেন-৫ কেজি আটা ৯০ টাকার বদলে কিনলাম ১০০ টাকা দিয়া। তিনি আরও জানান, সামান্য একটা পলিথিন ব্যাগের জন্য তারা অতিরিক্ত ১০ টাকা নিচ্ছে। ২-৪ টাকা নিলেও একটা কথা ছিল। 

এখানকার ডিলার শাহজাহানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'সরকার আমাদের ব্যাগ দিতে বলেনি। তবুও আমরা পলিথিনের ব্যাগ দিচ্ছি। ক্রেতারা ব্যাগ নিয়ে আসে না । এর বিনিময়ে যে যা দেয় তাই নেই।' 

তিনি আরও জানান, দৈনিক ৫০ কেজি বস্তার ২৫ থেকে ৩০ বস্তা আটা বিক্রি হয়। যাতে পলিথিনের খরচ বাদে অতিরিক্ত দাম আসে ২ হাজার থেকে ২ হাজার ৪০০ টাকা। 

গেন্ডারিয়া গেলে রোকেয়া নামের এক বৃদ্ধা ক্ষুব্ধ স্বরে জানালেন তার ক্ষোভের কথা। তিনি বলেন, 'এইখানে ১৮ টাকা কেজি দরের আটা ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি করতাছে। হের লাইগা রাগ কইরা আটা না কিনাই চইলা আইছি। গরিবের ওপর জুলুম করে সবাই।' 

এদিকে জুরাইন খন্দকার রোডের ওএমএস-এর একটি দোকানে একই চিত্র চোখে পড়ে। সেখানেও ৫ কেজি আটা পলিথিন ব্যাগে ভরে ৯০ টাকার বদলে ১০০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। এখানে আটা নিতে আসা ফাতেমা নামের এক নারী জানান, পলিথিনসহ ৫ কেজি আটার দাম নিয়েছে ১০০ টাকা। 

এই দোকানের ডিলার শাহাআলম জানান, যারা ব্যাগ আনে তাদের কাছে থেকে ৫ কেজি আটা ৯০ টাকা নেওয়া হয়। যারা ব্যাগ নিয়ে আসেন না তাদের কাছে থেকে বেশি টাকা নেওয়ার বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে আমি আমার প্রতিনিধিকে বেশি টাকা নিতে মানা করে দেব। 

এ ছাড়া বেশির ভাগ ওএমএস-এর দোকান ও ট্রাকে আটা বিক্রিতে বাড়তি দাম নেওয়ার  অভিযোগ রয়েছে। 

এ ব্যাপারে জুরাইন কমিশনার রোডের ওএমএস-এর আটা বিক্রেতা হাবিব ও মেডিকেল রোডের আক্কাস জানান, সবকিছুর খরচ বেড়ে গেছে। অন্যদিকে ৫০ কেজি বস্তার আটা শুকিয়ে ওজনে কমে যায় ১ থেকে ২ কেজি। 

অন্যদিকে কদমতলীর মোহম্মদবাগে একটি দোকানে দেখা যায় ভিন্ন চিত্র। এখানে পলিথিনে কোনো আটা বিক্রি করা হয় না। 

এই দোকানের ডিলার মো. খালেক জানান, আমরা পলিথিনও দিই না দামও বেশি নিই না। এখানকার ক্রেতারা ব্যাগ নিয়ে আসেন। 

বিভিন্ন ওএমএস-এর দোকানে আসা অনেক ক্রেতারা বলেন, ভাই আমাদের দরকার আটা। বাজারের থেকে ওএমএস এর দোকানে কম দামে পাচ্ছি। তাই ওদের সঙ্গে বেশি তর্ক করি না । এদিকে এসব অনিয়ম দেখার জন্য থাকা পরিদর্শকদের সামনেই চলে এই অনিয়ম। 

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, বাজারে ১০ কেজি ওজনের পণ্যের পলিথিনের বিক্রয় মূল্য কেজি প্রতি ১৮০ টাকা। এক কেজিতে পাওয়া যায় ৯০ থেকে ১০০ পিস পলিথিন ব্যাগ। অর্থাৎ প্রতিটি পলিথিন ব্যাগের গড় মূল্য দাঁড়ায় প্রায় ১ টাকা ৮০ পয়সা। 

এ প্রসঙ্গে খাদ্য অধিদপ্তরের ঢাকা রেশনিং-এর প্রধান নিয়ন্ত্রক মোহাম্মদ আমিনুল এহসান জানান, 'কোনো  ডিলারের দাম বেশি নেওয়ার এখতিয়ার নাই। পলিথিন দিলেও ১০ টাকা নিতে পারবে না। এটা আইন পরিপন্থী। যদি কেউ বেশি দাম নিয়ে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ কাজ দেখার জন্য আমাদের তদারকি কর্মকর্তা রয়েছে।' 

এ ব্যাপারে খাদ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক শেখ মুজিবর রহমান আজকের পত্রিকাকে জানান, ' দাম বেশি নেওয়া চরম অপরাধ। যা ক্ষমার অযোগ্য। আমরা এদের বিরুদ্ধে অবশ্যই ব্যবস্থা নেব।'

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    সিদ্ধিরগঞ্জে 'ভুয়া' চিকিৎসক আটক

    মাধবপুরে ভিমরুলের কামড়ে ১০ দিন পর মৃত্যু

    গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানালেন সেই ইকবালের মা

    বিদ্যুতের খুঁটি থেকে পড়ে শ্রমিকের মৃত্যু

    গোমস্তাপুরে অজ্ঞাত ব্যক্তিদের হামলায় দুধ বিক্রেতা নিহত

    সিদ্ধিরগঞ্জে 'ভুয়া' চিকিৎসক আটক

    মাধবপুরে ভিমরুলের কামড়ে ১০ দিন পর মৃত্যু

    ধর্মান্ধ রাজনীতির বলি হচ্ছে সংখ্যালঘুরা: জাফরউল্লাহ চৌধুরী

    সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে সামাজিক প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে: শিক্ষামন্ত্রী

    গ্রেপ্তার ও বিচারের দাবি জানালেন সেই ইকবালের মা

    সুপার টুয়েলভসের টিকিট পেল শ্রীলঙ্কা