মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

প্রশাসনের সহযোগিতা চান খলিশাখালীর ভূমিহীনরা

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৮

দেবহাটার খলিশাখালীতে গত বৃহস্পতিবার ভূমিহীনদের প্রতিবাদ সমাবেশের একাংশ। ছবি: আজকের পত্রিকা দেবহাটার খলিশাখালীর ভূমিহীনরা সরকারি জমিতে বন্দোবস্তের উদ্যোগ নিতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন। সম্প্রতি খলিশাখালীতে প্রভাবশালীদের কাছ থেকে সরকারি জমি নিজেদের দখলে নিয়েছেন ভূমিহীনরা। সেই জমি থেকে তাঁদের উচ্ছেদ করতে বিভিন্নভাবে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তাঁরা। এর প্রতিবাদে গত বৃহস্পতিবার শত ভূমিহীন পরিবারের নারী-পুরুষের উপস্থিতিতে খলিশাখালী এলাকায় এক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ভূমিহীন পরিবারের সদস্য হরিপদ স্বর্ণকারের ছেলে সুনীল স্বর্ণকার বলেন, দেশ বিভাগের আগে গাতীদার চণ্ডীচরণ ঘোষের প্রজা ছিলেন তাঁর পূর্বপুরুষেরা। এরই সূত্র ধরে প্রজামূলে ডিএস কবলা, পাট্টা দলিল গ্রহণ করেন সেই সময়ের প্রজারা। ১৯৫২ সালে সুরেন চৌধুরী শিমুলিয়ার কাজী আব্দুল মালেকের সঙ্গে কিছু জমি বিনিময় করে। বাকি জমি ইজারা নিয়েছেন দাবি করে সে সময় প্রজাদের উচ্ছেদের চেষ্টা করতে থাকেন মালেক কাজীসহ তাঁর লোকজন। ভূমি জরিপ কর্মকর্তাদের হাত করে কাজী আব্দুল মালেকেরা এসএ রেকর্ড নিজেদের নামে করিয়ে নেন। পরবর্তীতে জালিয়াতি করে সব জমি তাঁরা তাঁদের ওয়ারিশদের নামে প্রিন্ট রেকর্ড করিয়ে নেন। এবং বিভিন্ন প্রভাবশালীর কাছে জমি বিক্রি ও তাতে মৎস্যঘের করতে থাকেন। একপর্যায়ে আমরা ভূমিহীনেরা ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমাদের জমি পুনরুদ্ধারের জন্য দখলে নিয়েছি। জমি দখলের পর থেকে খলিশাখালী জনপদের নিরীহ ভূমিহীনদের ওপর হামলাসহ তাঁদের নেতৃত্বশূন্য করতে কয়েকজনকে তুলে নিয়ে গুলি করে হত্যার হুমকিও দিয়ে যাচ্ছেন তাঁরা।’

দখল-পরবর্তী প্রভাবশালীদের নানামুখী হুমকির ঘটনায় প্রতিকার চেয়ে খলিশাখালীর ১০০.৯৮ একর জমির মালিক দাবিকারী বিল কাজলার বিজয়কৃষ্ণ মণ্ডল বাদী হয়ে ১১ জনের নাম উল্লেখসহ আরও ৩০-৩২ জনের বিরুদ্ধে সাতক্ষীরার জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে একটি মামলা করেন। গত বুধবার দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে উভয় পক্ষের মধ্যে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখা এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) তদন্তপূর্বক ওই জমির প্রকৃত মালিকানা সম্পর্কে সুস্পষ্ট মতামতসহ প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেন আদালত।

জমির মালিকানা দাবিদার ডা. নজরুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের সব কাগজপত্র রয়েছে। রেকর্ডীয় জমি তারা জোর করে দখল করেছে। আমরা ওই জমি উদ্ধার পেতে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।’

দেবহাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বিপ্লব কুমার সাহা জানান, বর্তমানে ওই জমিতে ১৪৫ ধারা জারি করেছেন আদালত। আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    জেলায় শনাক্ত ও মৃত্যুহীন একদিন

    মাসে অর্ধকোটি টাকা কেনাবেচা

    ফেরেনি ৩ হাজার শিক্ষার্থী

    বিশ্বে করোনায় শনাক্ত কমেছে, বেড়েছে মৃত্যু

    গান্ধী পরিবারের হাতে ভরসা কমছে কংগ্রেসের

    তাণ্ডবে আশ্রয় মিলেছিল ধানখেত ও মুসলিম প্রতিবেশীর ঘরে

    ‘স্পিড মানি’র গতি

    স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গুপ্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন

    ছানার পুডিং