মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

ভোটকেন্দ্রে যাওয়া নিয়ে শঙ্কা

আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১০:৪৫

জালালপুর ইউনিয়নের জেঠুয়া বাজারে পথসভায় বক্তব্য দেন চেয়ারম্যান প্রার্থী এম মফিদুল হক লিটু। ছবি: আজকের পত্রিকা ২০ সেপ্টেম্বর তালা উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে অবাধ, সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ ভোট গ্রহণ নিশ্চিত করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। আজ শনিবার রাত ৮টা পর্যন্ত প্রার্থীরা প্রচারণা চালাতে পারবেন। আগামীকাল রোববার সকাল থেকে ভোটকেন্দ্রে যাবে নির্বাচনী সরঞ্জাম। ভোটে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রক্ষা করতে মাঠে রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যেরা।

তালা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, ১১টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪৯ জন, সাধারণ সদস্য পদে ৪৪৫ এবং সংরক্ষিত নারী সদস্য পদে ১৩৫ জন প্রার্থী নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। তালা সদর, খলিলনগর ও তেঁতুলিয়া—৩টি ইউনিয়নে এবার প্রথম ইলেকটোরাল (ইভিএম) ভোট দেবেন ভোটারেরা। উপজেলায় ১১টি ইউনিয়নে ২ লাখ ৩০ হাজার ৮২৪ জন ভোটার রয়েছেন।

এর মধ্যে ধানদিয়া ১৭ হাজার ২৩৭ জন, নগরঘাটা ১৫ হাজার ২৫৩, সরুলিয়া ৩০ হাজার ৫৫, তেঁতুলিয়া ২০ হাজার ৭৫৩, তালা সদর ২৬ হাজার ৫৮৩, ইসলামকাটী ১৬ হাজার ৭৩৯, মাগুরা ১৭ হাজার ৩৫৫, খলিষখালি ২১ হাজার ৯৫, খেশরা ২২ হাজার ৬২, জালালপুর ১৯ হাজার ২২১ ও খলিলনগরে ২৪ হাজার ৪৭১ জন।

উপজেলায় মোট ভোটকেন্দ্রের সংখ্যা ১০৪। এর মধ্যে ঝুঁকিপূর্ণ রয়েছে ৩২টি কেন্দ্র। সোমবার সকাল ৮টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটারেরা ভোট দিতে পারবেন।

নির্বাচনে চেয়ারম্যান, ইউপি সদস্য ও সংরক্ষিত নারী সদস্য প্রার্থীদের সব ধরনের প্রচারণা শেষ হবে আজ শনিবার রাতে। তাই চলছে শেষ মূহর্তের প্রচারণা। ব্যাপক উৎসাহ, উদ্দীপনা ও উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে। তবে কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়া নিয়ে সংশয়ে রয়েছেন ভোটারেরা।

ভোট গ্রহণ উপলক্ষে ইউনিয়ন পরিষদের সংশ্লিষ্ট এলাকায় ১৯ সেপ্টেম্বর রাত ১২টা থেকে ২০ সেপ্টেম্বর রাত ১২টা পর্যন্ত ট্রাক, পিকআপসহ ইঞ্জিনচালিত যান চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। একই সঙ্গে ইউনিয়ন পরিষদের সংশ্লিষ্ট এলাকায় ১৮ সেপ্টেম্বর রাত ১২টা থেকে ২১ সেপ্টেম্বর সকাল ৬টা পর্যন্ত মোটরসাইকেল চলাচলের ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকবে। প্রার্থী ও তাঁদের নির্বাচনী এজেন্টদের নির্বাচনী বিধিনিষেধ মেনে চলার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। তবে নির্বাচনের সংবাদ সংগ্রহের কাজে নিয়োজিত সাংবাদিক (পরিচয়পত্র থাকতে হবে), নির্বাচনের কাজে নিয়োজিত কর্মকর্তা-কর্মচারী, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, নির্বাচনের বৈধ পরিদর্শকদের চলাচলের ক্ষেত্রে ওই নিষেধাজ্ঞা প্রযোজ্য হবে না। জেলা প্রশাসকের কার্যালয় থেকে প্রকাশিত এক গণবিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

সাধারণ ভোটারেরা জানান, যোগ্য, মেধাবী ও সৎ লোক যাঁরা এলাকার উন্নয়ন করবেন, সুখে-দুঃখে যাঁদের পাশে পাওয়া যাবে, সাধারণ মানুষ উপকৃত হবে ও ভবিষ্যতে যাঁদের দ্বারা এলাকার উন্নয়ন হবে—তাঁদের ভোট দিয়ে নির্বাচিত করবেন তাঁরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ভোটার জানান, কেন্দ্রে গিয়ে ভোটাধিকার প্রয়োগ করা নিয়ে তাঁদের সংশয় রয়েছে।

জালালপুর ইউনিয়নের স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী এম মফিদুল হক লিটু গণসংযোগ, পথসভা ও মতবিনিময় করে যাচ্ছেন। তিনি বলেন, ‘আমি বিগত দুই মেয়াদে চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। নতুন করে নিজের জন্য ভোট চাওয়ার কিছু নেই। আমি আশাবাদী, চেয়ারম্যান হিসেবে এলাকার উন্নয়নে আমার কাজের মূল্যায়ন ও স্বীকৃতি আপনারা ভোটের মাধ্যমে দেবেন।’

মাগুরা ইউনিয়নের বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির মনোনীত প্রার্থী হিরণ্ময় মণ্ডল তাঁর হাতুড়ি প্রতীকে ভোট চেয়ে বলেন, ‘ভোটারেরা যাতে বিনা বাধায় ভোটকেন্দ্রে যেতে পারেন ও অবাধে ভোট দিতে পারেন, সে জন্য প্রশাসনের কাছে জোর দাবি জানাই।’

খলিশখালী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকার প্রার্থী সাংবাদিক মোজাফ্ফর রহমান বলেন, ‘গত পাঁচ বছরে আমার এলাকায় ব্যাপক উন্নয়নমূলক কাজ করেছি। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে আবারও নৌকায় ভোট দেওয়ার জন্য ইউনিয়নবাসীর কাছে আহ্বান জানাচ্ছি।’

তালা সদর ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান ও নৌকা প্রতীকের প্রার্থী সরদার জাকির হোসেন জানান, তাঁর সময়ে ইউনিয়নব্যাপী ব্যাপক উন্নয়নকাজ করা হয়েছে। এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে তিনি সব সময় কাজ করে যাবেন। তাই আগামী ২০ সেপ্টেম্বর তাঁকে নৌকা প্রতীকে ভোট দিয়ে পুনরায় বিজয়ী করতে ভোটারদের আহ্বান জানান।

খলিলনগর ইউনিয়নের নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রণব ঘোষ বাবলু জানান, গত পাঁচ বছরে খলিলনগর ইউনিয়নে তেমন কোনো উন্নয়নকাজ হয়নি। ইউনিয়নবাসী যে উন্নয়নের স্বপ্ন দেখেছে, তা পূরণ করতে ব্যর্থ হয়েছে বর্তমান চেয়ারম্যান।’

তালা উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা রাহুল রায় জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য করতে ইতিমধ্যেই প্রতিটি কেন্দ্রে নিরাপত্তাব্যবস্থা নিশ্চিত করাসহ আনুষঙ্গিক সব ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। আগামী রোববার সকাল থেকে নির্বাচনী সরঞ্জাম প্রতিটি কেন্দ্রে পৌঁছে যাবে। সব প্রার্থী ও তাঁদের এজেন্টদের নির্বাচনী বিধিনিষেধ মেনে চলার নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে প্রার্থীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

তালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মেহেদী রাসেল জানান, আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। তালা থানার ২০টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ কেন্দ্রে বিশেষ নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হবে। ভোটে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ রক্ষা করতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা সব সময় সতর্ক আছেন। কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে সঙ্গে সঙ্গে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নাজমুল হুদা জানান, পাটকেলঘাটা থানার ১২টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। কেউ বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করলে সঙ্গে সঙ্গে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    জেলায় শনাক্ত ও মৃত্যুহীন একদিন

    মাসে অর্ধকোটি টাকা কেনাবেচা

    ফেরেনি ৩ হাজার শিক্ষার্থী

    নওয়াববাড়ি এখন রিসোর্ট

    নকলায় ইউপি নির্বাচনে নৌকার মনোনয়ন ঘোষণা

    অস্ত্রোপচার বন্ধ, দুশ্চিন্তা

    ময়মনসিংহে সাজাপ্রাপ্ত আসামিসহ গ্রেপ্তার ৩ 

    বিশ্বে করোনায় শনাক্ত কমেছে, বেড়েছে মৃত্যু

    গান্ধী পরিবারের হাতে ভরসা কমছে কংগ্রেসের

    তাণ্ডবে আশ্রয় মিলেছিল ধানখেত ও মুসলিম প্রতিবেশীর ঘরে

    ‘স্পিড মানি’র গতি

    স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গুপ্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন