বুধবার, ২৭ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

কয়েক ছত্র

ফেসবুক ভালো, তবে খারাপ!

আপডেট : ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০৯:০০

ফরহাদ রনি একবার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক জুনিয়র শিক্ষার্থী আমাকে অনুরোধ করছিল তার মাকে যেন বুঝিয়ে বলি, তাকে একটা মোবাইল ফোন কিনে দিতে। এ যুগে ভার্সিটি-পড়ুয়া শিক্ষার্থীর কাছে মোবাইল নেই, এটি মেনে নিতে কষ্ট হয়। আমি অবাক হয়েই সেই শিক্ষার্থীর কাছে জানতে চাইলাম, কেন তার মা-বাবা তাকে এখনো মোবাইল ফোন কিনে দেননি। সে জানাল, মোবাইল ফোন অনেক খারাপ, অনেক খারাপ ভিডিও থাকে, আর ফেসবুকের মাধ্যমে মানুষ খারাপ হয়ে যায়, তাই কিনে দেননি।

মেয়েটির সরল উত্তরে আমি কিছুটা অবাক হলাম। আমাদের দেশে ইতিবাচক দিক নিয়ে মানুষের মাথাব্যথা কম। নেতিবাচক দিক নিয়েই মানুষ বেশি মেতে ওঠে। যেমন ধরুন, এক ছেলে একটা অনুষ্ঠানে এক মেয়ের নাচ দেখে তার প্রেমে পড়ে যায়। একপর্যায়ে ছেলেটি মেয়েটিকে বিয়ে করে। কিন্তু বিয়ের পর মেয়েটিকে আর নাচের চর্চা করতে দেয়নি।

যাহোক, বিশ্ববিদ্যালয়-পড়ুয়া সে মেয়েটির মাথায় তার পরিবার মোবাইল সম্পর্কে শুধু নেতিবাচক দিকটাই ঢুকিয়ে দিয়েছেন। মেয়েটির অনুরোধ রক্ষার্থে আমি তার মাকে ফোন করে বোঝালাম, দা-বঁটি আবিষ্কার করা হয়েছিল আগাছা পরিষ্কার করতে আর শাকসবজি কাটতে। সেই দা-বঁটি দিয়ে যদি মানুষ খুন করা হয়, সেটা নিশ্চয় দা বা বঁটির দায় নয়, দায় মানুষের।

তাই মোবাইল দিয়ে যদি মানুষ খারাপ কিছু করে, সেটা মানুষের দায়, মোবাইলের নয়। সেই সঙ্গে মোবাইলের অনেক ইতিবাচক দিক বুঝিয়ে বলায় কয়দিন পরেই মেয়েটিকে মোবাইল কিনে দেওয়া হলো।

সাত দিন পর অভিযোগ এল, মেয়েটি সারাক্ষণ মোবাইল নিয়ে পড়ে থাকে। জানা গেল, মেয়েটি মোবাইলে ইউটিউবে নানা ধরনের টিউটোরিয়াল দেখে সেসব বিষয়ে শেখার চেষ্টা করছে। অথচ অভিভাবক যদি একটু সন্তানের সঙ্গে বন্ধুসুলভ আচরণ করতেন, তাহলে এত চিন্তার কারণ ছিল না। মেয়েটি তার মাকেই হয়তো ইউটিউবের ভিডিওগুলো দেখাত।

প্রযুক্তির ভালো-মন্দ দুটো দিক থাকে। এর ব্যবহার নির্ভর করে নিজের ওপর। আমরা নতুন নতুন প্রযুক্তির সঙ্গে পরিচিত হয়ে সভ্যতাকে এগিয়ে নেব অবশ্যই। আমরা তো কোনো কাজে থেমে থাকতে পারি না। সংখ্যাগরিষ্ঠ মুরব্বি সারাক্ষণ ফেসবুককেই গাল দিচ্ছেন। অথচ এই ফেসবুকের মাধ্যমে মানুষ চমৎকার কাজ করতে পারে।

আমার মা একবার রক্তশূন্যতার কারণে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। শরীরে রক্তের ঘাটতি থাকায় ডাক্তার জানান অতিদ্রুত চার ব্যাগ রক্ত লাগবে। আমি সঙ্গে সঙ্গে ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিলে আধা ঘণ্টার মধ্যে রক্ত জোগাড় হয়ে গিয়েছিল। খেয়াল রাখতে হবে, অতিমাত্রায় কোনো কিছুই ভালো নয়। অতিরিক্ত ফেসবুক ব্যবহারে সময়ের পাশাপাশি নষ্ট হতে পারে আপনার মূল্যবান জীবন।

আমাদের মন সবকিছুই বুঝে করে। কী করলে খারাপ হবে, সেটাও আমরা জানি। তাই ফেসবুকের ব্যবহারটাও সেভাবেই করা উচিত। পৃথিবীতে সবচেয়ে জঘন্য মানুষ সে, যে ভালো সাজার ভান করে এবং ভালো মানুষ সেজে বিশ্বাস অর্জন করে অন্যের ক্ষতি করে। ফেসবুকে মানুষকে ধরা বা ছোঁয়া যায় না।

তাই ফেসবুকে সখ্য খুব দ্রুতই হয়।

সে সখ্যকে পুঁজি করে অন্যের ক্ষতি ফেসবুকে খুব সহজেই করা যায়। আমি সিগারেট কীভাবে খেতে হয় সেই দৃশ্য দেখিয়ে বলতে পারব না যে মাদককে ‘না’ বলুন। কারণ, এতে কেউ সিগারেট কীভাবে খেতে হয়, তা শিখে যেতে পারেন।

তেমন ফেসবুকের নেতিবাচক দিক বলতে চাইছি না। ভালো-মন্দের জ্ঞান আমরা সমাজ থেকেই শিখি।

ফেসবুকের নেতিবাচক দিক আমরা নিজেরাই জানি। শুধু মাধ্যম, তার উপকারিতা, অপকারিতা, সমস্যা, সমাধান ও সম্ভাবনা—সবকিছু আমাদের হাতে। আমরাই করতে পারি, এর ইতিবাচক ও নেতিবাচক ব্যবহার। 

লেখক: ফ্রিল্যান্স সাংবাদিক

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    ভাতের ওপর চাপ কমান!

    কোনটি আপনার আসল বাংলাদেশ?

    গান্ধী পরিবারের হাতে ভরসা কমছে কংগ্রেসের

    ‘স্পিড মানি’র গতি

    আব্বাসউদ্দীন ও রাষ্ট্রভাষা

    ভাতের ওপর চাপ কমান!

    প্যানকেক

    আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা ভয়ডরহীন

    মস্তিষ্ক বনাম কম্পিউটার

    ইরাকে বোমা হামলায় নিহত ১১