সোমবার, ১৭ জুন ২০২৪

সেকশন

 

পোশাক কারখানা এলাকার পানিতে ভয়ানক রাসায়নিক: গবেষণার তথ্য

  • ঢাকা ও আশপাশের নদী, খাল, বিল, ট্যাপে বিষাক্ত রাসায়নিকের সন্ধান।
  • পোশাক কারখানা থেকে ছড়াচ্ছে রাসায়নিক।
  • বংশী নদীতে নিষিদ্ধ দুটি রাসায়নিক মিলেছে।
আপডেট : ৩০ মে ২০২৪, ১১:০১

ফাইল ছবি দেশে তৈরি পোশাক কারখানাগুলোর আশপাশের জলাশয়ে প্রতিনিয়ত মিশছে বিপজ্জনক রাসায়নিক। রাজধানী ঢাকা ও এর আশপাশের নদী, খাল, বিল, এমনকি ট্যাপের পানিতেও এসব রাসায়নিক পাওয়া গেছে। মানব ও প্রাণিস্বাস্থ্য এবং পরিবেশের জন্য ক্ষতিকর এসব রাসায়নিক এতটাই ভয়ানক যে এগুলো ভাঙে না। শতকের পর শতক একই অবস্থায় থেকে যায়। এগুলোর কারণে ক্যানসারসহ গুরুতর নানা রোগের ঝুঁকি বাড়ছে দিন দিন।

নতুন এক গবেষণায় এ তথ্য জানা গেছে। ঢাকাভিত্তিক অলাভজনক বেসরকারি প্রতিষ্ঠান এনভায়রনমেন্ট অ্যান্ড সোশ্যাল ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন (এসডো) এবং বেসরকারি সংস্থাগুলোর (এনজিও) আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্ক আইপেন যৌথভাবে গবেষণাটি পরিচালনা করেছে। বাংলাদেশে এ ধরনের গবেষণা এটিই প্রথম। গবেষণার তথ্য নিয়ে গতকাল বুধবার একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান।

গবেষণা নিবন্ধের মূল রচয়িতা শাহরিয়ার হোসাইন বলেন, বাংলাদেশে যে জলাশয়গুলো আছে, সেগুলোই কৃষিকে সচল রাখে, শিল্পোন্নয়নে ভূমিকা রাখে, পানের পানির জোগান দেয়। কিন্তু সেই জলাশয়গুলোই দূষণের শিকার হচ্ছে প্রতিনিয়ত বিষাক্ত রাসায়নিক মিশে।

গবেষণা নিবন্ধে জানানো হয়, রাজধানীতে তৈরি পোশাক কারখানার আশপাশের নদী, খাল ও ট্যাপ থেকে ২০১৯ থেকে ২০২২ সালের মধ্যে পানির নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে ২৭টি নমুনায় পার-অ্যান্ড পলিফ্লুরোঅ্যালকাইল সাবসট্যানসেস (পিএফএএস) নামের রাসায়নিক পাওয়া গেছে। পিএফএএস মূলত ১০ হাজারের মতো রাসায়নিকের একটি গোত্র। এসব রাসায়নিক না ভেঙে শতকের পর শতক টিকে থাকতে পারে বলে এই গোত্র ‘ফরএভার কেমিক্যালস’ নামে পরিচিত। এসব রাসায়নিক বেশ কয়েক ধরনের ক্যানসারসহ বহু গুরুতর রোগের কারণ হতে পারে। বিশ্বের যত পিএফএএস ব্যবহার হয়, তার ৫০ শতাংশই তৈরি পোশাক কারখানাগুলো ব্যবহার করে।

গবেষণায় জানানো হয়, গবেষণার অংশ হিসেবে সংগৃহীত অনেক নমুনায়ই ইউরোপীয় ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রে অনুমোদিত মাত্রার চেয়ে বেশি পিএফএএস রাসায়নিক পাওয়া গেছে। সবচেয়ে বেশি মাত্রার পিএফএএস পাওয়া গেছে সাভারের বংশী নদী থেকে সংগৃহীত নমুনায়। এসব নমুনায় ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রস্তাবিত মাত্রার চেয়ে ৩০০ গুণের বেশি মাত্রার রাসায়নিক পাওয়া গেছে। এসব নমুনায় পিএফএএস গোত্রের এমনও রাসায়নিক পাওয়া গেছে, যেগুলো স্টকহোম সনদ অনুসারে আন্তর্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ। বাংলাদেশও এই সনদে স্বাক্ষরকারী একটি দেশ। যদিও এই দেশে পিএফএএস রাসায়নিকের মাত্রাবিষয়ক কোনো আইনি কোনো বিধিবিধান নেই।

বংশী নদী থেকে সংগৃহীত নমুনায় পিএফএএস গোত্রের আন্তর্জাতিকভাবে নিষিদ্ধ দুটি রাসায়নিক পাওয়া গেছে। এর মধ্যে পারফ্লুরোঅকটানইক অ্যাসিডের মাত্রা ছিল নেদারল্যান্ডসে অনুমোদিত মাত্রার ১ হাজার ৭০০ গুণের বেশি। এ ছাড়া পারফ্লুরোঅকটেন সালফোনেটের মাত্রা ছিল নেদারল্যান্ডসে অনুমোদিত মাত্রার ৫৪ হাজার গুণের বেশি।

এসডোর নির্বাহী পরিচালক সিদ্দিকা সুলতানা বলেন, ‘বাংলাদেশ হলো আন্তর্জাতিক তৈরি পোশাক উৎপাদনের কেন্দ্র। এই খাত থেকে যে রাসায়নিক পরিবেশে মিশছে, তা আমাদের নাগরিকদের উচ্চ স্বাস্থ্যঝুঁকিতে ফেলছে। নদী, খাল ও ট্যাপের পানিতে যেন তৈরি পোশাক খাতের কারখানাগুলো থেকে রাসায়নিক মিশতে না পারে, সে ব্যাপারে পদক্ষেপ নিতে হবে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    ঈদে টিভি নাটক ও টেলিফিল্ম

    ঈদে টিভিতে সিনেমা

    শেষ সময়ে ইভিএম প্রকল্পের মেয়াদ বাড়ানোর তোড়জোড়

    টিভিতে ঈদের ম্যাগাজিন অনুষ্ঠান

    টিভিতে ঈদের ধারাবাহিক নাটক

    টিভিতে ঈদের সংগীতানুষ্ঠান

    পাটকেলঘাটায় বিদ্যুতায়িত হয়ে শ্রমিকনেতার মৃত্যু 

    সাবধানে মাংস কাটাকাটি করতে অনুরোধ স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

    ‘বাড়ি বদলেছি ২১ বার, ভাঙন দেখতে দেখতে চুল সাদা হয়ে গেল’

    আগামীকালের মধ্যে কোরবানি শেষ করার আহ্বান মেয়র আতিকের

    খাবারে ব্লেড পাওয়া যাত্রীকে অফার দিয়ে শান্ত করতে চাইল এয়ার ইন্ডিয়া