মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

মেরুপথের দুই অভিযাত্রী

আপডেট : ৩০ মে ২০২৪, ০৮:৩২

লিভ আর্নেসেন হেঁটে কিংবা সাইকেলে চেপে অনেকেই পাড়ি দিয়েছেন পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে। আবার কেউ পাড়ি দিয়েছেন একেবারে আটলান্টিক আর অ্যান্টার্কটিকাও। সমতলের তুলনায় উত্তরের মেরুপথ পাড়ি দেওয়ার গল্পে ভিন্নতা আছে। ফলে এ গল্পের চরিত্রগুলোও ভিন্ন মানসিক গড়নের হয়ে থাকে। এমনই দুজন অভিযাত্রী অ্যান ব্যানক্রফট ও লিভ আর্নেসেন।

অ্যান ব্যানক্রফট আর্কটিক ও অ্যান্টার্কটিকা অভিযান সম্পন্ন করা প্রথম নারী। এমনকি হেঁটে ও স্লেজে উত্তর মেরু পৌঁছানো প্রথম নারীর খেতাবও তাঁরই ঝুলিতে। অন্যদিকে লিভ আর্নেসেন এককভাবে দক্ষিণ মেরুতে অভিযান করা প্রথম নারী। লিভ ৭৪৫ মাইল স্কি করে ৫০ দিনে দক্ষিণ মেরু পৌঁছেছিলেন।

১৯৫৩ সালের ১ জুন নরওয়েতে জন্মেছিলেন লিভ আর্নেসেন। সেখানেই বেড়ে উঠেছেন। ছোটবেলা থেকে তাঁর মা-বাবা তাঁকে ক্রস কান্ট্রি স্কিইং সম্পর্কে আগ্রহী করে তোলেন। এটি স্কিইংয়ের একটি ফর্ম, যেখানে স্কাইয়াররা স্কি লিফট বা অন্যান্য সাহায্য ছাড়াই তুষার আচ্ছাদিত ভূখণ্ড অতিক্রম করেন। আর্নেসেন স্কিংয়ের মধ্যেই বড় হয়েছেন বলা চলে। তাঁর জীবনে অ্যাডভেঞ্চারের অনুপ্রেরণা ছিলেন দক্ষিণ মেরুতে অভিযানকারী রোয়াল্ড আমুন্ডসেন।

অন্যদিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটার মেন্ডোটা হাইটসে ১৯৫৫ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর জন্মেছিলেন অ্যান ব্যানক্রফট। তাঁর ২ বছর কেটেছে কেনিয়ায়। ৮ বছর বয়স থেকে কাজিনদের সঙ্গে মরুভূমি অভিযানের নেতৃত্ব দিতেন তিনি। ১৯৮৬ সালে উইল স্টেগার ইন্টারন্যাশনাল নর্থ পোল এক্সপিডিশনে অংশগ্রহণের জন্য তিনি শিক্ষকতা পেশা ছেড়ে দেন। স্লেজ গাড়িতে ৫৬ দিন চলার পর পাঁচ সদস্যের সঙ্গে উত্তর মেরুতে পৌঁছান এই আমেরিকান পোলার এক্সপ্লোরার। ১৯৯২-৯৩ সালে দক্ষিণ মেরুতে চার নারীকে নিয়ে অভিযানের নেতৃত্ব দেন ব্যানক্রফট। এই অভিযানটি ছিল দক্ষিণ মেরু অভিযানকারী নারীদের প্রথম দল।

অ্যান ব্যানক্রফট ও লিভ আর্নেসেন একসঙ্গে বেশ কিছু অভিযানে অংশ নিয়েছিলেন। তাঁরা ইতিহাসের প্রথম দুই নারী, যাঁরা অ্যান্টার্কটিকা অভিযান করেছিলেন স্কি করে। ২০০১ সালের এই অভিযানে তাঁরা ১ হাজার ৭১৭ মাইল বা ২ হাজার ৭৪৭ কিলোমিটারের ট্র্যাক সম্পন্ন করেছিলেন ৯৪ দিনে। এরপর ২০০৫ সালে লিভ ও অ্যান আর্কটিক মহাসাগর পাড়ি দেওয়ার একটি ঐতিহাসিক অভিযাত্রায় নেমেছিলেন। কিন্তু সে বছর আর্কটিক মহাসাগরে অভিযানে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয় বলে সে প্রচেষ্টা বাতিল করতে বাধ্য হন তাঁরা।

অ্যান ব্যানক্রফট ২০০৭ সালের মার্চ মাসে অ্যান ও লিভ আবারও আর্কটিক মহাসাগর পাড়ি দেওয়ার পরিকল্পনা করেন। এর উদ্দেশ্য ছিল, বৈশ্বিক উষ্ণতার সমস্যার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করা। তবে পরে অভিযানটি বাতিল করা হয়েছিল প্রচণ্ড ঠান্ডায় তাঁদের কিছু ইলেকট্রনিক সরঞ্জাম নষ্ট হয়ে যাওয়া এবং তুষারপাতে লিভের পায়ের তিনটি আঙুলে সমস্যা দেখা দেওয়ায়।

অ্যান ব্যানক্রফট ও লিভ আর্নেসেনের মতো মানুষেরা শুধু মেরু অভিযানে নিজেদের সীমাবদ্ধ রাখেননি, তাঁরা জলবায়ু ও পরিবেশ নিয়েও প্রতিনিয়ত মানুষকে সচেতন করে তোলার কাজ করেন। তাঁরা দুজনই মোটিভেশনাল স্পিকার, শিক্ষক এবং অ্যাডভেঞ্চার গাইড। বলে বেড়ান বেঁচে থাকার গল্প, অনুপ্রেরণা আর অ্যাডভেঞ্চারের কথা। আবার এটাও বলেন, কীভাবে ধ্বংস হচ্ছে বৈশ্বিক আবহাওয়া ও জলবায়ু।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    বাদল দিনে বাইরে বের হওয়ার আগে

    একটু খিচুড়ি হয়ে যাক আষাঢ়ে

    নোনা ইলিশের মুখরোচক ঝাল রসা

    ফ্রোজেন জলপাই দিয়ে ইলিশের ঝাল

    ইলিশের ভর্তা

    দেশি মিষ্টান্নের স্বাদ

    অস্ট্রেলিয়াকে অপেক্ষায় রেখে সেমিতে ভারত

    পাসপোর্ট অফিসের কর্মচারী ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

    যুক্তরাষ্ট্রের মানবপাচার প্রতিবেদনে বাংলাদেশ আগের অবস্থানেই, বেড়েছে প্রচেষ্টা

    ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার দিয়ে মালদ্বীপে ১৮ লাখ নতুন পর্যটক, পেছনে পড়ল সেশেলস 

    শরীফার গল্প: জেন্ডার বিশেষজ্ঞদের মত নিয়ে নতুন গল্প যুক্ত করার নির্দেশ 

    বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তার পানি ভাগাভাগি সম্ভব নয়, মমতার কড়া বার্তা