শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

ঝড়ের রাতে মায়ের মৃত্যু, দুই দিন ঝুলিয়ে রেখে দাফন করতে হলো পানিতে

আপডেট : ২৯ মে ২০২৪, ২৩:২০

প্রবল ঘূর্ণিঝড় রিমাল উপকূলে আঘাত হানার রাতে মারা যান উরফুল বেগম (৮১)। ছবি: সংগৃহীত প্রবল ঘূর্ণিঝড় রিমাল উপকূলে আঘাত হানার রাতে মারা যান উরফুল বেগম (৮১)। জোয়ারের পানিতে চারদিক থই থই। মায়ের মরদেহ নিয়ে বিপাকে পড়েন ছেলে। পরে গ্রাম-পুলিশের সহায়তায় মরদেহ ঘরের আড়ার সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয় দুদিন। আজ বুধবার পর্যন্ত ওই এলাকায় জমে হাঁটু পরিমাণ পানির মধ্যেও কাঠের বাক্সে ভরে দাফন করা হয় তাঁকে। 

এই ঘটনা ঘটেছে বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জ উপজেলার বারুইখালী ইউনিয়নের পায়রাতলা গ্রামে। উরফুল বেগম ওই গ্রামের হোসেন আলী হাওলাদারের স্ত্রী। 

উরফুল বেগমের ৭ ছেলে ও ৩ মেয়ে। তারা সবাই জীবিকার প্রয়োজনে বাড়ির বাইরে থাকেন। বাড়িতে শুধু দেলোয়ার হাওলাদার নামের এক ছেলে থাকেন। আজ দাফনের দিনেও তার সব ছেলে-মেয়েরা এসে উপস্থিত হতে পারেননি বলে জানা গেছে। 

দেলোয়ার হাওলাদার বলেন, ‘মা মারা যাওয়ার পরও পানির কারণে কারও সাথে যোগাযোগ করতে পারছিলাম না। বাড়িঘর সব পানিতে ভরে গেছে। তিন দিন হয়ে গেছে মাকে মাটি দিতে পারি নাই। একটু পানি কমছে, বড় কষ্টে মাকে মাটি দিয়েছি।’ 

এ বিষয়ে বারুইখালী ইউনিয়ন পরিষদের নারী ইউপি সদস্য হালিমা বেগম আজকের পত্রিকাকে বলেন, ‘ওই নারী মারা গেছে ঘূর্ণিঝড়ের প্রথম দিনে। খবর পেয়ে গ্রাম-পুলিশ ইউনুস আলী হাওলাদারের সহায়তায় মরদেহ ঘরের আড়ার সাথে বেঁধে ঝুলিয়ে রাখছিল। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে শরণখোলায় প্রচুর পানি ওঠে। আমাদের এখানে একটি সরকারি খাল আছে, সেখানে বাঁধ দেওয়ার কারণে পানি কোথাও নামতে পারে নাই। পানির জন্য দাফন দিতে পারে নাই।’ 

তিনি আরও বলেন, ‘গতকাল (মঙ্গলবার) গোসল করিয়ে বরফ দিয়ে রেখে দিয়েছিল। আজকে একটু পানি নামার পর সকালে দাফন করা হয়েছে।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ১০ ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিক

    ঈদযাত্রা: সড়কে স্বস্তি মিললেও বাড়তি ভাড়ায় অস্বস্তি

    মাধবপুরে মহাসড়কে গাড়িচাপায় পথচারী নিহত

    উজানে ভারী বৃষ্টি, কুড়িগ্রামে বন্যার শঙ্কা

    পাটুরিয়ায় ফেরিতে ভিড়, লঞ্চে যাত্রী কম

    মহাখালী টার্মিনালে দুই বাসের চাপায় টিকিট মাস্টারের মৃত্যু 

    ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে ১০ ঘণ্টা পর যান চলাচল স্বাভাবিক

    ইতিহাস গড়ে আরও এক সুখবর পেল যুক্তরাষ্ট্র

    বিচিত্র

    খাবার চুরি করতে দুই ঘণ্টায় ৫ বাড়িতে ঢুকল ভালুক

    ঈদযাত্রা: সড়কে স্বস্তি মিললেও বাড়তি ভাড়ায় অস্বস্তি

    ইউক্রেন যুদ্ধে রাশিয়ার হয়ে লড়ছে ৭ লাখ সেনা, জানালেন পুতিন

    ১৬ বছর পর টিভি সিরিয়াল হয়ে গেল সিনেমা