শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

এবার কাতার এয়ারওয়েজের বিমান ঝোড়ো বাতাসের কবলে, আহত ১২

আপডেট : ২৭ মে ২০২৪, ০০:৩৫

তুরস্কের আকাশে বিরূপ বায়ু প্রবাহের মুখে পড়ে কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইট। ছবি: সংগৃহীত লন্ডন থেকে সিঙ্গাপুরে যাওয়ার পথে প্রচণ্ড কাঁপুনিতে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের একটি ফ্লাইটে একজন যাত্রী নিহত এবং ডজন খানেক আহত হওয়ার পাঁচ দিন পর ফের একই ধরনের বিপত্তি ঘটল। এবার দোহা থেকে ডাবলিন যাওয়ার সময় কাতার এয়ারওয়েজের একটি উড়োজাহাজে প্রচণ্ড কাঁপুনিতে ছয়জন ক্রু সদস্যসহ বারো জন আরোহী আহত হয়েছেন।

ডাবলিন বিমানবন্দরের এক্স (সাবেক টুইটার) পোস্টে এ তথ্য নিশ্চিত করা হয়েছে। পোস্টে বলা হয়েছে, তুরস্কের আকাশ দিয়ে উড়ে যাওয়ার সময় উড়োজাহাজটি বিরূপ বায়ু প্রবাহের কবলে পড়ে। এতে ছয় যাত্রী এবং ছয়জন ক্রু সদস্য আহত হয়েছেন।

ডাবলিন বিমানবন্দর এক বিবৃতিতে বলেছে, দোহা থেকে কাতার এয়ারওয়েজের ফ্লাইট স্থানীয় সময় রোববার বেলা ১টার কিছু আগে নির্ধারিত সময় অনুযায়ী নিরাপদে ডাবলিন বিমানবন্দরে অবতরণ করে। অবতরণ করার পরে বিমানবন্দর পুলিশ এবং আমাদের ফায়ার অ্যান্ড রেসকিউ বিভাগসহ জরুরি পরিষেবাগুলো বিমানটি পরীক্ষা নিরীক্ষা করে। তুরস্কের ওপর দিয়ে উড্ডয়নের সময় উড়োজাহাজটি ঝড়ের মুখে পড়ে এবং ৬ যাত্রী এবং ৬ জন ক্রু আহত হন।

কাতার এয়ারওয়েজ বলেছে, ঘটনাটি এখন ‘অভ্যন্তরীণ তদন্তের’ বিষয়। আমাদের যাত্রী এবং ক্রুদের নিরাপত্তা আমাদের কাছে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার।

এর আগে ২১১ জন যাত্রী নিয়ে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনসের ফ্লাইটটি ঝড়ের মুখে ব্যাংককে অবতরণ করতে বাধ্য হয়। এতে ৭৩ বছর বয়সী এক ব্রিটিশ মারা যান। ২০ জনকে আরোহী নিবিড় পরিচর্যায় রাখতে হয়। ফ্লাইটের যাত্রী এবং ক্রুদের মাথার খুলি, মস্তিষ্ক এবং মেরুদণ্ডে আঘাত লেগেছে। কারণ প্রচণ্ড কাঁপুনির সময় আরোহীরা কেবিনের চারপাশে ছিটকে পড়েছিলেন।

সিঙ্গাপুরের পরিবহন মন্ত্রী বলেছেন, তদন্তকারীরা ককপিট ভয়েস রেকর্ডার এবং ফ্লাইট ডেটা রেকর্ডার বিশ্লেষণ করছেন। ফ্লাইট ট্র্যাকিং ডেটা দেখায়, বোয়িং ৭৭৭–৩০০ ইআর উড়োজাহাজটি কয়েক মিনিটের মধ্যে ১ হাজার ৮০০ মিটার নেমে এসেছিল। যাত্রীরা বলেছেন, এটি হঠাৎ করেই ঘটেছে তাই অনেকে সিটবেল্ট বাঁধার সময় পাননি।

এই ঘটনার পর, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইনস ফ্লাইটে সিট বেল্ট বাঁধার নিয়ম কঠোর করেছে।

ইউএস ন্যাশনাল ট্রান্সপোর্টেশন সেফটি বোর্ডের ২০২১ সালের সমীক্ষা অনুসারে, আকাশে বিরূপ বায়ু প্রবাহের মুখে পড়ার মতো বিমান দুর্ঘটনা খুবই সাধারণ ঘটনা। দেখা গেছে, ২০০৯ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বিমান দুর্ঘটনার এক-তৃতীয়াংশেরও বেশি ঘটেছে এ ধরনের সমস্যার কারণে। এতে বড় কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    শপথের পরদিনই সিকিমের বিধানসভা থেকে মুখ্যমন্ত্রীর স্ত্রীর পদত্যাগ, নানা প্রশ্ন

    কেন অস্ট্রেলিয়ায় পাড়ি জমাচ্ছেন নিউজিল্যান্ডের মানুষ

    মার্কিন যুদ্ধবিরতি প্রস্তাবে যেসব সংশোধন এনেছে হামাস

    মিয়ানমারের জান্তা সরকারকে ৬ পেট্রল বোট দিল চীন 

    কঙ্গোয় নৌকাডুবে ২১ শিশুসহ ৮৬ জন নিহত

    টিকটকারদের মেকআপ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে একটি থাই সিনেমা দেখে

    পশুর হাটে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেল দুটি গরু, শিশুসহ আহত খামারি

    ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কে ২১ কিলোমিটারজুড়ে যানজট 

    জাপানি ব্যান্ডের মিউজিক ভিডিও নিয়ে আপত্তি, কোক স্টুডিও থেকে প্রত্যাহার

    ঘরে বসেই কোরবানির পশু কেনা যাবে নগদে

    ঈদের আগমুহূর্তে জমজমাট ওয়ালটন ফ্রিজের বিক্রি

    বিশ্বকাপ থেকে পাকিস্তানের বিদায়, সুপার এইটে যুক্তরাষ্ট্র