মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

রং-তুলির অপেক্ষায় প্রতিমা

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৮:৪৫

পীরগাছার আরাজি ঝিনিয়া গ্রামে নিজ বাড়িতে প্রতিমা তৈরির কাজ করছেন ছবিতা রানী। ছবি: আজকের পত্রিকা সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে পীরগাছায় এখন জোরেশোরে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। কারিগরেরা দম ফেলার ফুরসত পাচ্ছেন না। ইতিমধ্যে অধিকাংশ প্রতিমার মাটির কাজ শেষ হয়েছে। আর কয়েক দিন পরেই পড়বে রং-তুলির আঁচড়। এরপর ঢাকঢোল পিটিয়ে পাঁচ দিনব্যাপী চলবে দুর্গোৎসব।

উপজেলায় এ বছর ৮৬টি মণ্ডপে দুর্গাপূজার আয়োজন হবে। মন্দিরে মন্দিরে চলছে প্রতিমা তৈরির কাজ। তবে স্থানীয় কারিগর পাওয়া দুষ্কর হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই সঙ্গে প্রতিমাপ্রতি ১০ হাজার টাকা খরচ বেড়েছে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন।

পীরগাছাসহ আশপাশের বিভিন্ন মন্দিরের জন্য এবার প্রতিমা তৈরি করছেন উপজেলার আরাজি ঝিনিয়া গ্রামের কারিগর সুনীল চন্দ্র, পুলিন চন্দ্র ও সুশীল চন্দ্র। তাঁরা তিন ভাই মিলে নিজ বাড়িতে গড়ে তুলেছেন প্রতিমা তৈরির কারখানা। এ বছর চাহিদা বেশি থাকলেও তাঁরা অর্ডার নিয়েছেন ২০টি প্রতিমার। দিনে চুক্তিভিত্তিক বিভিন্ন মন্দিরে কাজ করে বাকি সময়ে চলে এসব প্রতিমা তৈরি।

তিন ভাইয়ের বাড়িতে গিয়ে দেখা যায়, রোদে শুকানো হচ্ছে সারি সারি প্রতিমা। এগুলোতে ছোটখাটো কাজ করছিলেন সুনীলের স্ত্রী ছবি রানী। তিনি জানান, তিন ভাই প্রতিমা তৈরির কাজে পাশের মিঠাপুকুর উপজেলায় গেছেন।

ছবি রানী জানান, প্রতিমার চাহিদা অনেক। কিন্তু কাজ করার সময় পাওয়া যাচ্ছে না। তাই বেশি অর্ডার নেওয়া হয়নি। তিন ভাই বাইরে কাজ করে বাড়িতে যেটুকু সময় পান তখন এখানে কাজ করেন।

ছবি রানীরা ভিন্ন ভিন্ন আটটি প্রতিমা মিলিয়ে এক সেটের মজুরি নিচ্ছেন ২৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা। একটি সেট তৈরিতে প্রায় ১০ দিন সময় লাগে। এতে দুর্গার সঙ্গে রয়েছে অসুর, সিংহ, মহিষ, গণেশ, সরস্বতী, কার্তিক ও লক্ষ্মীর প্রতিমা।

প্রতিমা কারিগর সুশীল চন্দ্রের স্ত্রী ছবিতা রানী বলেন, ‘এ বছর কাঠ, খড় ও মাটির দাম বেশি। প্রতিমা তৈরিতে খরচ একটু বেশি হচ্ছে। তেমন একটা লাভ থাকছে না। কোনোমতে টিকে আছে বাপ-দাদার এ পেশা। অন্য সময় দিনমজুরি করে সংসার চলে আমাদের।’

স্থানীয় ডাকুয়ার দিঘি দুর্গা মন্দিরের সভাপতি সুধীর চন্দ্র বর্মণ জানান, গত বছর প্রতিমা তৈরিতে ১৬ হাজার টাকা খরচ হলেও এ বছর লাগছে ২৬ হাজার টাকা। ইতিমধ্যে প্রতিমার কাঠামোর কাজ শেষ হয়েছে। এখন অপেক্ষা রং-তুলির আঁচড়ে রঙিন করে সাজিয়ে তোলা।

বাংলাদেশ পূজা উদ্‌যাপন পরিষদ পীরগাছা উপজেলা শাখার সভাপতি তরুণ কুমার রায় বলেন, এ বছর পীরগাছায় প্রায় ৮৬টি মণ্ডপে দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। প্রতিবছরের মতো ধর্মীয় সম্প্রতি বজায় রেখে সর্বজনীন এই উৎসব হবে। উৎসবকে কেন্দ্র করে মণ্ডপ কমিটিগুলো এখন প্রতিমা স্থাপনের কাজ করছে। এ লক্ষ্যে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রতিমা কারিগরেরা।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    জেলায় শনাক্ত ও মৃত্যুহীন একদিন

    মাসে অর্ধকোটি টাকা কেনাবেচা

    ফেরেনি ৩ হাজার শিক্ষার্থী

    স্থাপনাটি পুকুরের মাঝখানে

    ১৫ বছর ধরে দাঁড়িয়ে আছে সেতুর পিলার

    চিকেন বল যখন গোল্ডফিশ

    হজরত আলীর বিস্ময়কর সাফল্য

    কুমিল্লার ঘটনা ছড়ায় ৪ মহানগর ও ২৮ জেলায়

    চট্টগ্রাম বন্দরের সক্ষমতা বাড়াতে নতুন উদ্যোগ