মঙ্গলবার, ২৬ অক্টোবর ২০২১

সেকশন

 

কাজের ফাঁকে মাছ ধরছেন যমুনা চরের নারীরা

আপডেট : ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১৭:১৭

বাড়তি আয় করতে যমুনা চরের নারীরা হাত দিয়েই মাছ ধরছেন। ছবিটি বগুড়ার ধুনট উপজেলার রাধানগর চর থেকে গত মঙ্গলবার তোলা। আজকের পত্রিকা বগুড়ার ধুনট উপজেলায় যমুনা নদীর চর এলাকায় পানি বেড়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত চর এলাকায় এখন কাজের সুযোগ নেই। তাই পুরুষেরা শহর কিংবা অন্য গ্রামে কাজ করতে যাচ্ছেন। কিন্তু চরের নারীদের পক্ষে কাজের সন্ধানে বাইরে যাওয়া হয় না। তাই গৃহস্থালি কাজের ফাঁকে যমুনায় মাছ ধরে বাড়তি আয়ের পথ খুঁজে পেয়েছেন তাঁরা।

বাড়ি থেকে পাতিল নিয়ে বের হয়ে নদীর কূলে একত্রিত হন তাঁরা। দল বেঁধে যমুনার পানিতে নামেন মাছ ধরতে। হাত দিয়েই শিকার করেন নানা ধরনের মাছ। যমুনা চরের নারীদের নিত্যদিনের এই চিত্র। এভাবে মাছ ধরেই তাঁরা অভাব অনটনের সংসারে বাড়তি আয়ের চেষ্টা করেন।

উপজেলার বৈশাখি চর এলাকার বাসিন্দা কুলসুম বেওয়া। তিনি বলেন, ‘এক সময় আমাদের সবকিছু ছিল। গোলা ভরা ধান, মাঠ ভরা জমি, গোয়াল ভরা গরু, পুকুর ভরা মাছ। প্রতি বছর ভাঙনে যমুনা নদী সবকিছু গিলে খায়। সবকিছু হারিয়ে তাঁরা আজ নিঃস্ব।’

অভাবের কারণে ছোট হয়ে এসেছে ঘর-সংসার। দু’বেলা ভাতের জন্য কাজের সন্ধানে ঘুরতে হয়। তাই অন্যের বাড়ি কিংবা জমিতে কাজ করার সুযোগ এখন নেই। তাই যমুনার পানিতে মাছ ধরার কাজটাই বেছে নিয়েছেন। এমনটাই জানালেন ওই চরের জেলাতন খাতুন।

সরেজমিনে দেখা যায়, নদীর কুলে অল্প পানিতে হাঁটু গেড়ে বসেছে এক দল নারী। সবার সামনে একটি করে পাতিল ভাসছে। পানির নিচে হাতিয়ে হাতিয়ে এগিয়ে চলে সামনের দিকে। এভাবেই হাতের নিচে ধরা পড়ছে বালিয়া, টাকি, পুঁটি, ট্যাংরা, শিং, চিংড়ি, ঘাড়িয়াসহ নানা প্রজাতির মাছ।

রাধানগর চরের মাছ শিকারি খাদিজা খাতুন আজকের পত্রিকাকে বলেন, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত এ কাজ করি। একজন কমপক্ষে দেড় থেকে দুই কেজি করে মাছ ধরি। এই মাছ নিজেদের খাবার চাহিদা মিটিয়ে বিক্রিও করি। এতে প্রতিদিন অন্তত গড়ে ২৫০-৩০০ টাকার মাছ বিক্রি করা যায়।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

    জেলায় শনাক্ত ও মৃত্যুহীন একদিন

    মাসে অর্ধকোটি টাকা কেনাবেচা

    ফেরেনি ৩ হাজার শিক্ষার্থী

    গান্ধী পরিবারের হাতে ভরসা কমছে কংগ্রেসের

    তাণ্ডবে আশ্রয় মিলেছিল ধানখেত ও মুসলিম প্রতিবেশীর ঘরে

    ‘স্পিড মানি’র গতি

    স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ডেঙ্গুপ্রতিবেদন নিয়ে প্রশ্ন

    ছানার পুডিং

    অভিনয়ের নেশা