শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

মন্ত্রণালয়-ইসি দ্বন্দ্বের অবসান, ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা’ লেখা স্মার্টকার্ড বিতরণ শুরু

আপডেট : ২৩ মে ২০২৪, ১৮:৫৪

বৃহস্পতিবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে ১০৪ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা’ লেখা সংবলিত স্মার্টকার্ড দেওয়া হয়। ছবি: আজকের পত্রিকা বীর মুক্তিযোদ্ধা লেখা সংবলিত স্মার্টকার্ড। ছবি: সংগৃহীত বীর মুক্তিযোদ্ধা খচিত স্মার্টকার্ড বিতরণ কার্যক্রম হাতে নেওয়ায় নির্বাচন কমিশনের (ইসি) সঙ্গে মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের মধ্যে মতানৈক্য ও ভুল বোঝাবুঝি হয়। সেই ভুল বোঝাবুঝির অবসান ঘটিয়ে দীর্ঘ দুই বছরের বেশি সময় পর, বীর মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে আবার স্মার্টকার্ড বিতরণ শুরু করল কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশন। 

আজ বৃহস্পতিবার আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে ১০৪ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা’ লেখা সংবলিত স্মার্টকার্ড দেওয়া হয়। এ দিন ১১ জন বীর মুক্তিযোদ্ধাকে মঞ্চে ডেকে এবং বাকিদের হাতে হাতে পৌঁছে দেওয়া হয়। 

 ২০২২ সালে বিদায়ী কেএম নূরুল হুদা কমিশনের এ উদ্যোগ আটকে ছিল মন্ত্রণালয় ও কমিশনের রেষারেষিতে। যা দুজন নির্বাচন কমিশনারের বক্তব্যেও উঠে আসে। 

মুক্তিযুদ্ধের তাৎপর্য অসীম উল্লেখ করে প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘সংগ্রামের মাধ্যমেই একটি দেশ স্বাধীনতা অর্জন করে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধে যে পরিমাণ ত্যাগ বাঙালি জাতিকে করতে হয়েছে, তা বিশ্বের ইতিহাসে স্মরণীয়। মুক্তিযুদ্ধ বেঁচে থাকে গল্পে, কাব্যে, নাটকের মাধ্যমে। মুক্তিযুদ্ধের ঝান্ডা প্রজন্ম থেকে প্রজন্ম সঞ্চারিত করতে হয়।’ 

বীর মুক্তিযোদ্ধা লেখা সংবলিত স্মার্টকার্ড। ছবি: সংগৃহীত তিনি আরও বলেন, ‘যে চেতনার মূল্যবোধে ত্রিশ লক্ষ বাঙালি শহীদ হয়েছে, নির্বাচনের মাধ্যমে, আর্থিক উন্নয়নে বিশ্বের দরবারে যাতে দাঁড়াতে পারি।’ 

মুক্তিযোদ্ধাদের এই কার্ড না হারানোর পরামর্শ দিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘এই কার্ড হারাবেন না। এটা বীরত্বের একটি স্মারক। হয়তো আপনি থাকবেন না, আপনার কার্ডটা থেকে যাবে।’ 

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে নির্বাচন কমিশনের মতানৈক্য হওয়ায় এই কার্যক্রম বিলম্বিত হওয়ার কথা স্বীকার করে নির্বাচন কমিশনার মো. আনিছুর রহমান বলেন, ‘আমি মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তান। আমার দুঃখ আমার বয়স তখন ১০। আমি যেতে পারিনি। এই দুঃখ থাকবে আজীবন।’ 

মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কমিশনের দূরত্বের কথা জানিয়ে নির্বাচন কমিশনার মো. আলমগীর বলেন, ‘এই বিষয় গত কমিশন থেকে শুরু হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। তারা আপত্তি দিয়ে এটা বন্ধ করে দিয়েছিলেন।’ 
 
তিনি আরও বলেন, ‘আনিছ সাহেবের মতন আমার বয়সও তখন ১০। মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিতে পারিনি, এই দুঃখ আজীবন থাকবে।’ 

অনুষ্ঠানে বীর মুক্তিযোদ্ধা ও সাবেক সচিব শফিক আলম মেহেদী বলেন, ‘জাতির শ্রেষ্ঠ সন্তানদের ‘বীর মুক্তিযোদ্ধা’ খচিত স্মার্ট কার্ড দেওয়া নির্বাচন কমিশনের অনন্য উদ্যোগ।’ 

মানবাধিকার কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান ও বীর মুক্তিযোদ্ধা কাজী রিয়াজুল হক বলেন, ‘বর্তমান সরকার বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য অনেক কাজ করেছেন। এই সরকারের অধীনেই নির্বাচন কমিশন মুক্তিযোদ্ধাদের এই কার্ড দিয়েছে। তারা শুধু সম্মানটুকু পেতে চায়। এইটাই তাদের (মুক্তিযোদ্ধাদের) দাবি, বেশি না।’ 

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ও অবসরপ্রাপ্ত ব্রিগেডিয়ার জেনারেল জাবেদ আলী বলেন, ‘মুক্তিযোদ্ধাকে সম্মানিত করার মাধ্যমে কমিশনও সম্মানিত হয়েছে।’ 

ইসি সচিব মো. জাহাংগীর আলমের সভাপতিত্বে নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) মো. আহসান হাবিব খান, মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রণালয়ের সচিব ইশরাত চৌধুরী, জাতীয় পরিচয় নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক মাহবুবুর রহমান, ইসির অতিরিক্ত সচিব ফরহাদ আহাম্মদ খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দিয়ে টিকিট বিক্রি করেন কালোবাজারিরা

    ঘূর্ণিঝড় রিমালে ক্ষতিগ্রস্ত ১ হাজারের বেশি স্কুল-কলেজ

    গোয়েন্দা তথ্য না থাকলে ঈদযাত্রায় যানবাহনে তল্লাশি নয় 

    ইউনিফর্মে পুলিশ টিকটক করলে কঠোর ব্যবস্থা

    বেনজীরের অবৈধ সম্পদের প্রমাণ মিলেছে, দুদকের মামলা শিগগির

    দেশে আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ প্রায় ৫৯ শতাংশ: কৃষিমন্ত্রী 

    পশুর হাটে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেল দুটি গরু, শিশুসহ আহত খামারি

    ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কে ২১ কিলোমিটারজুড়ে যানজট 

    জাপানি ব্যান্ডের মিউজিক ভিডিও নিয়ে আপত্তি, কোক স্টুডিও থেকে প্রত্যাহার

    ঘরে বসেই কোরবানির পশু কেনা যাবে নগদে

    ঈদের আগমুহূর্তে জমজমাট ওয়ালটন ফ্রিজের বিক্রি

    বিশ্বকাপ থেকে পাকিস্তানের বিদায়, সুপার এইটে যুক্তরাষ্ট্র