শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

নেতানিয়াহুর ওপর আইসিসির গ্রেপ্তারি পরোয়ানায় বিভক্ত পশ্চিমা বিশ্ব

আপডেট : ২৩ মে ২০২৪, ১২:৫৯

আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালত (আইসিসি)। ছবি: আইসিসি। ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্টসহ হামাসের তিনজন শীর্ষ নেতার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের (আইসিসি) গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বিভক্ত হয়ে পড়েছে পশ্চিমা বিশ্ব। যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য আইসিসির এই আবেদনে সমালোচনা করেছে। অন্যদিকে নরওয়ে, ডেনমার্ক, সুইজারল্যান্ডসহ বেশ কিছু পশ্চিমা দেশ এই উদ্যোগকে সমর্থন দিয়েছে। তুরস্কভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সি এক প্রতিবেদনে খবরটি দিয়েছে।

আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি করিম খান গত সোমবার আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে যুদ্ধাপরাধ ও মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে ইসরায়েল ও হামাসের পাঁচজনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন জানান। তাঁরা হলেন—ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্ট, গাজা উপত্যকার হামাস প্রধান ইয়াহিয়া সিনাওয়ার, আল ক্বাসাম ব্রিগেডের প্রধান মোহাম্মদ দাইফ এবং হামাসের রাজনৈতিক শাখার প্রধান ইসমাইল হানিয়া।

আইসিসির গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদনকে ‘ইহুদিবিদ্বেষের নতুন ধরন’ বলে আখ্যা দিয়েছেন নেতানিয়াহু। তাঁর মতে, ইহুদিবিদ্বেষের এই ঢেউ যুক্তরাষ্ট্রের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো থেকে আইসিসিতেও পৌঁছেছে।

আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি করিম খান এই আবেদনের মাধ্যমে সীমা লঙ্ঘন করেছেন বলে মন্তব্য করেন ইসরায়েলি প্রেসিডেন্ট আইজ্যাক হারজগ। তার মতে, পতনের হুমকির সম্মুখীন আন্তর্জাতিক বিচারব্যবস্থা।

আইসিসির এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদনে রয়েছে ইসরায়েলের প্রতিরক্ষামন্ত্রী ইয়োভ গ্যালান্টের নামও। আবেদনটি মোকাবিলায় বিশেষ কমিটি গঠনের ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেছেন, আইসিসি তার দেশকে যে ‘ঐতিহাসিক অসম্মান’ করল, তা চিরকাল মনে রাখা হবে। গ্যালান্ট বলেন, তিনি নিজের এবং নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদনের পর আর আন্তর্জাতিক আদালতের কর্তৃত্ব মানেন না।

ইসরায়েলের ঐতিহাসিক মিত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও অনুমিতভাবে আইসিসির এই পদক্ষেপের সমালোচনা করেছেন। বাইডেনের মতে, আইসিসির এই আবেদন রীতিমতো লজ্জাজনক। মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেনও এই আবেদন প্রত্যাখ্যান করেছেন।

নেতানিয়াহু ও গ্যালান্টের নামে জারি না করে আইসিসিকে রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের দায়ে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করতে বলেছেন বাইডেন। আইসিসির সব সদস্য রাষ্ট্রকে পুতিনকে গ্রেপ্তারের আবেদন কার্যকর করার আহ্বান জানান অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন।

যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী ঋষি সুনাকও আইসিসির গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদনের সমালোচনা করে বলেছেন যে, এতে মধ্যপ্রাচ্যে সংঘর্ষ, জিম্মি পরিস্থিতি এবং মানবিক সহায়তা পৌঁছানোর অবস্থার কোনো সমাধান হবে না।

অস্ট্রিয়ার চ্যান্সেলর কার্ল নেহামার সামাজিক প্ল্যাটফরম এক্সে দেওয়া পোস্টে বলেন, অস্ট্রিয়া আইসিসির স্বাধীনতাকে সম্পূর্ণভাবে সম্মান করলেও হামাস নেতাসহ নেতানিয়াহু ও গ্যালান্টের বিরুদ্ধে একযোগে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার অনুরোধ তাদের কাছে বোধগম্য নয়। তবে দেশটির বিচারবিষয়ক মন্ত্রী আলমা জাডিক রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিনের বিরুদ্ধে আইসিসির গ্রেপ্তারি পরোয়ানার প্রতি সমর্থন জানিয়েছেন।

চেক প্রধানমন্ত্রী পেত্র ফিয়ালা তিন হামাস নেতাসহ নেতানিয়াহু ও গ্যালান্টের গ্রেপ্তারি পরোয়ানার অনুরোধকে ‘ভয়াবহ এবং একেবারেই অগ্রহণযোগ্য’ বলে বর্ণনা করেছেন। তবে পুতিনের গ্রেপ্তারি পরোয়ানার ব্যাপারে আইসিসির প্রচেষ্টার প্রতি পূর্ণ সমর্থন ব্যক্ত করেছেন তিনি।

হাঙ্গেরির প্রধানমন্ত্রী ভিক্টর অরবান নেতানিয়াহুকে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে করিম খানের অনুরোধকে ‘হাস্যকর ও লজ্জাজনক’ বলে আখ্যা দিয়েছেন।

আইসিসির আবেদনের ব্যাপারে মন্তব্য প্রকাশ থেকে বিরত থাকলেও সমর্থন জানিয়েছে ইউরোপীয় ইউনিয়নের বেশ কিছু সদস্য রাষ্ট্র। ইইউর বেশ কয়েকটি দেশ পুতিনকে গ্রেপ্তারের ব্যাপারে প্রকাশ্যে তাদের সমর্থন জানালেও চুপ রয়েছে নেতানিয়াহুর বিষয়ে।

জার্মানির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আইসিসির স্বাধীনতা এবং কার্যকারিতার প্রতি সম্মান প্রকাশ করার সঙ্গে এটাও উল্লেখ করেছে যে, একই আবেদনে হামাস নেতা এবং ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের উভয়ের জন্য গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা মিথ্যা বার্তা দিচ্ছে।

জার্মান বিচারবিষয়ক মন্ত্রী মার্কো বুশম্যান পুতিনের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার আবেদনকে মানবতাবিরোধী অপরাধের বিরুদ্ধে আইসিসির সংকল্পের চিহ্ন বলে অভিহিত করেছেন। তিনি বলেন, কেউ আন্তর্জাতিক আইন লঙ্ঘন করলে তাকে অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

আইরিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী মাইকেল মার্টিন আদালতের স্বাধীনতা ও নিরপেক্ষতাকে সম্মান করার ওপর গুরুত্বারোপ করেছেন। তিনি আইসিসি এবং এর কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক হুমকিরও নিন্দা করেছেন।

ফ্রান্সের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আইসিসির স্বাধীনতা এবং সব ক্ষেত্রে দায়মুক্তির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রতি সমর্থন নিশ্চিত করেছে।

একইভাবে সামাজিক প্ল্যাটফরম এক্সে দেওয়া এক বিবৃতিতে স্পেনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় আইসিসির স্বাধীনতা এবং নিরপেক্ষতার প্রতি তার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করেছে। স্পেন জোর দিয়ে বলেছে যে, আদালতকে অবশ্যই স্বাধীনভাবে এবং হস্তক্ষেপ ছাড়াই কাজ করতে হবে।

জাতিসংঘে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের প্রতিনিধি প্যাস্কেল বেইরিসউইল নিরাপত্তা পরিষদে দেওয়া বক্তৃতায় গ্রেপ্তারি পরোয়ানার অনুরোধের উল্লেখ করে আইসিসিকে সমর্থন করা এবং আদালতের স্বাধীনতাকে সম্মান করার ওপর জোর দিয়েছে।

ডেনমার্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লার্স লোককে রাসমুসেন গ্রেপ্তারি পরোয়ানার অনুরোধের প্রতি সমর্থন জানিয়ে আইসিসির স্বাধীনতার প্রতি গুরুত্বসহকারে সম্মান জানানোর প্রয়োজনীয়তা তুলে ধরেছেন।

নরওয়ের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এসপেন বার্থ ইডে স্থানীয় গণমাধ্যমের কাছে নেতানিয়াহু ও গ্যালান্টের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার জন্য আইসিসির অনুরোধের বিষয়ে আলোচনা করেছেন। তিনি ইঙ্গিত দিয়েছেন যে, নরওয়ের ভূখণ্ডে তিন হামাস নেতা বা নেতানিয়াহু ও গ্যালান্ট প্রবেশ করলে একইভাবে তাঁদের গ্রেপ্তার করতে বাধ্য থাকবেন তাঁরা।

অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা আইসিসি এবং এর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকার প্রতি সম্মান প্রকাশ করেছেন।

করিম খানের গ্রেপ্তারি পরোয়ানার অনুরোধ সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে আইসিসির কর্তৃত্ব ও স্বাধীনতার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়েছেন কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেলানি জোলি।

নেতানিয়াহুকে গ্রেপ্তারের জন্য করিম খানের আবেদনকে ন্যায়বিচারের জন্য একটি ইতিবাচক পদক্ষেপ হিসেবে দেখছেন বেলজিয়ামের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাদজা লাহবিব। আইসিসির প্রতি সমর্থনের প্রতিশ্রুতি দিয়ে তিনি বলেন, গাজায় অপরাধীদের অবশ্যই সর্বোচ্চ পর্যায়ে বিচার হওয়া উচিত।

স্লোভেনিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক্সে দেওয়া পোস্টে নেতানিয়াহু ও গ্যালান্টের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানার অনুরোধকে স্বাগত জানিয়েছে। আইসিসির প্রতি স্লোভেনিয়ার অবিচল সমর্থন পুনর্নিশ্চিত করে ফিলিস্তিনের পরিস্থিতির ব্যাপারে তদন্তের অগ্রগতিতে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে দেশটি।

পশ্চিমা বিশ্বের বাইরেও নেতানিয়াহু ও গ্যালান্টের বিরুদ্ধে আইসিসির গ্রেপ্তারি পরোয়ানার অনুরোধের ব্যাপারে সমর্থন রয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকার আন্তর্জাতিক সম্পর্ক ও সহযোগিতা বিভাগ নেতানিয়াহু এবং গ্যালান্টের বিরুদ্ধে আইসিসির অনুরোধে ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে।

চিলির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি লিখিত বিবৃতিতে উল্লেখ করা হয়েছে যে, চিলি আইসিসির এই গ্রেপ্তারি পরোয়ানাকে স্বীকৃতি দেয় এবং এর বিচার প্রক্রিয়ায় সহায়তার জন্য সব রাষ্ট্রের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন তারা।

কলম্বিয়ার প্রেসিডেন্ট গুস্তাভো পেট্রো আইসিসির প্রধান কৌঁসুলি করিম খানের অনুরোধকে সঠিক পদক্ষেপ বলে বর্ণনা করেছেন এবং আস্থা প্রকাশ করেছেন যে, আদালত গ্রেপ্তারি পরোয়ানার জন্য খানের অনুরোধ গ্রহণ করবে।

মালদ্বীপের প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুইজ্জু নেতানিয়াহু এবং গ্যালান্টের বিরুদ্ধে আইসিসির উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন। এক্সে তিনি বলেন, অধিকৃত ফিলিস্তিনি অঞ্চলে যুদ্ধাপরাধের জন্য দায়ীদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

ওমানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বদর বিন হামাদ আল-বুসাইদি করিম খানের অনুরোধকে স্বাগত জানিয়েছেন। জর্ডানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আয়মান সাফাদি আইসিসির প্রচেষ্টাকে সম্মান করার প্রয়োজনীয়তার ওপর জোর দিয়েছেন।

আফ্রিকান ইউনিয়ন কমিশনের চেয়ারপারসন মুসা ফাকি মাহামত ইসরায়েলি কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অনুরোধটিকে অত্যন্ত যুক্তিসংগত বলে মনে করেন। তবে এ নিয়ে বিলম্বের সমালোচনা করে তিনি বলেন যে, এটি আরও আগে করা উচিত ছিল।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    ডাকাতি করতে গিয়ে গৃহকর্ত্রীর সঙ্গে খোশগল্প, একজন ঘুমিয়েও পড়লেন

    অজানা খুনি, রাষ্ট্র যেখানে দোসর

    ইসরায়েলের বিরুদ্ধে ‘গুরুতর’ অস্ত্রের ব্যবহার বাড়াচ্ছে হিজবুল্লাহ, বড় সংঘাতের আশঙ্কা

    ইসরায়েলি জিম্মিদের আর কতজন জীবিত আছে জানে না হামাসের কেউ 

    দুঃসহ স্মৃতি তাড়া করছে বাদশাহর আমন্ত্রণে হজে আসা ফিলিস্তিনিদের

    লোহিত সাগরে গ্রিক মালিকানাধীন জাহাজে হুতিদের হামলা

    পশুর হাটে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেল দুটি গরু, শিশুসহ আহত খামারি

    ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কে ২১ কিলোমিটারজুড়ে যানজট 

    জাপানি ব্যান্ডের মিউজিক ভিডিও নিয়ে আপত্তি, কোক স্টুডিও থেকে প্রত্যাহার

    ঘরে বসেই কোরবানির পশু কেনা যাবে নগদে

    ঈদের আগমুহূর্তে জমজমাট ওয়ালটন ফ্রিজের বিক্রি

    বিশ্বকাপ থেকে পাকিস্তানের বিদায়, সুপার এইটে যুক্তরাষ্ট্র