শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 
বিশেষজ্ঞ মত

পরিকল্পনা-নকশা দুটোতেই ত্রুটি

আপডেট : ২৩ মে ২০২৪, ০৮:৩২

ড. মো. হাদিউজ্জামান এই করিডরে এই প্রকল্প নির্মাণ করাটাই মস্ত বড় ভুল। কারণ, এটা একটা ক্যাপটিভ (বন্দী) করিডর। ময়মনসিংহ, শেরপুর, জামালপুর—এই জেলাগুলোতে ভবিষ্যতে ১০টি অর্থনৈতিক অঞ্চল চালু হবে। এই করিডরে দুই পাশে অনেক শিল্পকারখানা। এখানে ভারী যানবাহন চলাচল অনেক বেশি। ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গের ১৬ জেলার প্রধান গেটওয়েও এটি।

এটা একটা জাতীয় মহাসড়ক। আরবান ট্রান্সপোর্টকে গুরুত্ব দিতে গিয়ে জাতীয় মহাসড়কের ভবিষ্যৎকে সংকুচিত করলাম। ভবিষ্যতে এই মহাসড়ক প্রসারিত করতে চাইলে সেই সুযোগটা আর থাকবে না। 

আমি বলব, প্রকল্প পরিকল্পনায় ত্রুটি আছে। এই পরিকল্পনা আরও সুদূরপ্রসারী হওয়া উচিত ছিল। একটা জাতীয় মহাসড়কের অর্ধেকের বেশি দেওয়া হচ্ছে ঢাকা-গাজীপুর যাতায়াতের জন্য। যদি জ্যামিতিকভাবে ধরা হয়, তাহলে কাকে কতটুকু দেব, সেই জায়গাটায় মস্ত বড় ভুল। এখানে গুরুত্ব পাওয়া উচিত ছিল দূরপাল্লার যানবাহনের। তাই পরিকল্পনা ও নকশা দুটোতেই ত্রুটি আছে। 

এরপরও যদি এই প্রকল্পের প্রকৌশলগত দিক থেকে বিবেচনা করি তাহলে দেখা যাবে, ছোট অনেকগুলো ফ্লাইওভার করা হয়েছে; উঠালাম আর নামালাম। অনেকটা রোলার কোস্টারের মতো। এটা দিয়ে ২০ কিলোমিটারের অর্ধেক চলে আসছিলাম। বাকি অর্ধেক যদি শুধু ফ্লাইওভার করতাম তাহলে নিচের সড়ক অনেকটা ফাঁকা থাকত। 

বাংলাদেশ ছোট দেশ, অনেক ঘনবসতিপূর্ণ। তাই করিডরের সঠিক ব্যবহার করতে হবে। চাইলেই এলিভেটেড করে দিতে পারতাম। জাতীয় মহাসড়কে যেখানে দূরপাল্লার যাত্রাকে গুরুতে দিতে হবে, সেখানে ঢাকা-গাজীপুরকে গুরুত্ব দিলাম। এর চেয়ে ঢাকা-জয়দেবপুর আলাদা লাইন করে দুটো কমিউটার ট্রেন চালাতাম, সেটা বেশি উপকার দিত। রেলের সেই জায়গা আছে। এখন যে ভুল হয়েছে এটা কখনোই ফেরানো যাবে না। 

এখানে ঠিকাদার নিয়েও প্রশ্ন আছে। অভিযোগ আছে, তাদের আর্থিক সামর্থ্য ছিল না। এটা বিদেশি অর্থায়নে, তাই এখানে একটা সময় থাকে। এরপর তো সুদ দিতে হবে। এটাও ঠিক, এই করিডরে কাজ করা খুব চ্যালেঞ্জিং।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি নিয়ে ঢাকায় ৬ ছাত্রলীগ নেতা

    নদীর দুঃখ

    নাউতারার বুকে এখন সবুজ খেত

    এক আইএমইআই নম্বরে দেড় লাখ মোবাইল ফোন

    ঈদযাত্রায় সড়কে চাপ, যানবাহনের ধীরগতি দিনভর

    জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রীর তীব্র সংকট সারা দেশে

    গানে-সুরে ঈদ আনন্দ

    পশুর হাটে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেল দুটি গরু, শিশুসহ আহত খামারি

    ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কে ২১ কিলোমিটারজুড়ে যানজট 

    জাপানি ব্যান্ডের মিউজিক ভিডিও নিয়ে আপত্তি, কোক স্টুডিও থেকে প্রত্যাহার

    ঘরে বসেই কোরবানির পশু কেনা যাবে নগদে

    ঈদের আগমুহূর্তে জমজমাট ওয়ালটন ফ্রিজের বিক্রি

    বিশ্বকাপ থেকে পাকিস্তানের বিদায়, সুপার এইটে যুক্তরাষ্ট্র