শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

দেড় হাজার কোটি টাকার লাইনে চলে একটি ট্রেন

  • ৭৮ কিলোমিটার রেলপথে চলে একটি ট্রেন।
  • মার্চে টিকিট বিক্রি হয়েছে ৩৫ লাখ টাকার।
  • রেলপথের ১০টি স্টেশন অরক্ষিত পড়ে আছে।
  • চুক্তিভিত্তিক জনবলে চলছে স্টেশনের কার্যক্রম।
আপডেট : ২২ মে ২০২৪, ১১:৪৬

ফাইল ছবি রেললাইন নতুন। স্টেশনও নতুন। এসব করতে সরকারের খরচ হয়েছে দেড় হাজার কোটি টাকার বেশি। এত টাকা ব্যয়ে নির্মিত এই রেলপথে ট্রেন চলে মাত্র একটি। এই রেলরুটের ১০টি স্টেশন পড়ে আছে অরক্ষিত। রেল কর্তৃপক্ষ বলছে, চাহিদা থাকলেও সামর্থ্য না থাকায় একটির বেশি ট্রেন দেওয়া যাচ্ছে না।

এই চিত্র পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের অধীনে পাবনা থেকে ঢালারচর পর্যন্ত ৭৮ কিলোমিটার রেলপথের। পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, ‘বাংলাদেশ রেলওয়ের ঈশ্বরদী থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত নতুন লাইন নির্মাণ’ শীর্ষক এই প্রকল্পে ব্যয় হয়েছে ১ হাজার ৭১৪ কোটি টাকার বেশি। ২০১৮ সালে ঈশ্বরদী থেকে পাবনা পর্যন্ত ৩০ কিলোমিটার রেলপথের কাজ শেষ হয়। ওই বছরে এই ৩০ কিলোমিটারে রাজশাহী-পাবনা রুটের ‘পাবনা এক্সপ্রেস’ ট্রেনটি চালু করা হয়। পুরো কাজ শেষে ২০২০ সালের ২৬ জানুয়ারি রেলপথটি চালু করা হয়। তখন ‘পাবনা এক্সপ্রেস’ ট্রেনের নাম পরিবর্তন করে ‘ঢালারচর এক্সপ্রেস’ রাখা হয়। তবে করোনাকালে ট্রেনটি ছয় মাসের জন্য বন্ধ রাখা হয়েছিল।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, ঢালারচর এক্সপ্রেস ট্রেনটি সকাল ৭টা ২৫ মিনিটে ঢালারচর থেকে ছেড়ে বেলা ১১টায় রাজশাহী পৌঁছায়। একই ট্রেন বিকেল সাড়ে ৪টায় রাজশাহী থেকে ছেড়ে রাত ৮টা ১৫ মিনিটে ঢালারচরে পৌঁছায়। ট্রেনটি চলে সপ্তাহে ছয় দিন। এক দিন এ রেলপথে কোনো ট্রেনই চলাচল করে না।

ওই প্রকল্পের অধীনে পাবনা থেকে ঢালারচর পর্যন্ত নতুন ১০টি স্টেশন নির্মাণ করা হয়। লেভেল ক্রসিং নির্মাণ করতে হয়েছে ৬০টি। এ ছাড়া ছোট-বড় ৯১টি সেতুও নির্মাণ করতে হয়েছে। চুক্তিভিত্তিক অস্থায়ী জনবল দিয়ে স্টেশনগুলো চালানো হয়।

এসব স্টেশনে নিরাপত্তাকর্মীও থাকেন না। ফলে স্টেশনে থাকে বখাটেদের উৎপাত। বসে মাদকের আড্ডা।

এই রেলপথের রাঘবপুর স্টেশনের পাশেই বাড়ি ব্যবসায়ী সরকার সারোয়ার জাহানের। তিনি বলেন, দিনে মাত্র একটা ট্রেন চলে এই পথে। স্টেশনগুলো প্রায় পরিত্যক্ত অবস্থায় পড়ে আছে। এসব দেখভাল করার জন্য প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা প্রহরীও নেই।

পাবনা সদর উপজেলার সাদুল্লাপুর ইউনিয়নের ভেতর দিয়ে এই রেললাইন চলে গেছে। সাদুল্লাপুর ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান আব্দুল আলীম মোল্লা রোববার বলেন, ‘এখন এই লাইনে খুব বেশি উপকার হচ্ছে না। শুধু পাবনার তিনটি উপজেলার মানুষ চিকিৎসার জন্য একটি ট্রেনে রাজশাহী যাওয়া-আসা করছেন। ঢাকার সাথে ট্রেন চলাচল শুরু হলে নতুন রেলপথটায় উপকার পাওয়া যাবে।’

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের প্রধান বাণিজ্যিক কর্মকর্তার কার্যালয়ের তথ্যমতে, রেলপথটি দিয়ে একটি ট্রেনে এখন মাসে প্রায় ৫০ হাজার জন যাত্রী পরিবহন করা হয়। সবশেষ গত মার্চ মাসের হিসাব অনুযায়ী ঢালারচর এক্সপ্রেস ৪৭ হাজার ৬৯৫ জন যাত্রী পরিবহন করেছে। এতে ৩৫ লাখ ৭ হাজার ৬২ টাকার টিকিট বিক্রি করা হয়। রেল সূত্র বলছে, ট্রেনটির পরিচালনব্যয় এর চেয়ে বেশি।

বিপুল টাকা খরচ করে রেলপথটিতে মাত্র একটি ট্রেন চালানোর সমালোচনা করছেন বিশেষজ্ঞরা। এ প্রসঙ্গে রাজশাহী প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবান অ্যান্ড রিজিওনাল প্ল্যানিং বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক কামরুজ্জামান রিপন বলেন, ‘এটা আসলেই দুর্ভাগ্যজনক। আসলে প্রতিটি প্রকল্প বাস্তবায়নের আগে এর কস্ট ইফেকটিভ অ্যানালাইসিস করা দরকার। কত খরচ করলে রিটার্ন কত আসবে, সেটা হিসাব করতে হবে। রিটার্ন আনার পরিকল্পনা থাকতে হবে। তা না হলে অর্থ ব্যয়ই হবে, ভালো রিটার্ন আসবে না।’ 

কেন এই রেলপথ
প্রকল্প প্রস্তাবে রেল কর্তৃপক্ষ বলেছিল, ঈশ্বরদী থেকে পাবনা হয়ে ঢালারচর পর্যন্ত নতুন রেলপথ নির্মাণ করলে এটিকে আঞ্চলিক সংযোগ ও ট্রান্স এশিয়ান রেলওয়ের বিকল্প রুট হিসেবে কাজে লাগানো যাবে। এ রেলপথের মাধ্যমে মানিকগঞ্জ জেলাকে রেলের আওতায় আনা যাবে। রাজশাহীর সঙ্গে পাবনার প্রত্যন্ত অঞ্চলের যোগাযোগও সহজ হবে। এ লক্ষ্য পূরণ হলেও অন্যগুলোর কিছুই হয়নি এখনো।

পশ্চিমাঞ্চল রেলওয়ের মহাব্যবস্থাপক অসীম কুমার তালুকদার বলেন, ‘এই রেলপথে আরও ট্রেনের দরকার আছে। কয়টা দরকার, সেটা আমরা এখনো হিসাব করে দেখিনি। কারণ, আমাদের সামর্থ্যই নেই। একটা ট্রেন চালানোর সামর্থ্য আছে, সেটাই দিয়েছি।’

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    এলাকার খবর

     

    বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি নিয়ে ঢাকায় ৬ ছাত্রলীগ নেতা

    নদীর দুঃখ

    নাউতারার বুকে এখন সবুজ খেত

    এক আইএমইআই নম্বরে দেড় লাখ মোবাইল ফোন

    ঈদযাত্রায় সড়কে চাপ, যানবাহনের ধীরগতি দিনভর

    জন্মনিয়ন্ত্রণ সামগ্রীর তীব্র সংকট সারা দেশে

    গানে-সুরে ঈদ আনন্দ

    পশুর হাটে বিদ্যুতায়িত হয়ে মারা গেল দুটি গরু, শিশুসহ আহত খামারি

    ঢাকা–চট্টগ্রাম মহাসড়কে ২১ কিলোমিটারজুড়ে যানজট 

    জাপানি ব্যান্ডের মিউজিক ভিডিও নিয়ে আপত্তি, কোক স্টুডিও থেকে প্রত্যাহার

    ঘরে বসেই কোরবানির পশু কেনা যাবে নগদে

    ঈদের আগমুহূর্তে জমজমাট ওয়ালটন ফ্রিজের বিক্রি

    বিশ্বকাপ থেকে পাকিস্তানের বিদায়, সুপার এইটে যুক্তরাষ্ট্র