মঙ্গলবার, ২৫ জুন ২০২৪

সেকশন

 

আইসিবির শাখায় শাখায় ঘুরেও মিলছে না টাকা

আপডেট : ২০ মে ২০২৪, ১১:১৯

আইসিবির শাখায় শাখায় ঘুরেও মিলছে না টাকা তারল্যসংকটে থাকা আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের গ্রাহকেরা টাকা পাচ্ছেন না। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সহায়তা না পেয়ে ব্যাংকটি এখন গ্রাহকদের চেক ফেরত দিচ্ছে। পরিস্থিতির এতটাই অবনতি হয়েছে যে অনেক শাখার ব্যবস্থাপক ও গুরুত্বপূর্ণ কর্মকর্তারা গা-ঢাকা দিচ্ছেন। 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ব্যাংকটির বিভিন্ন শাখায় মাসের পর মাস ঘুরেও টাকা পাচ্ছেন না আমানতকারীরা। ইতালিপ্রবাসী আফসার উদ্দিন ব্যাংকের মতিঝিল প্রিন্সিপাল শাখায় এক মাসে তিনবার গিয়েও টাকা পাননি বলে জানিয়েছেন। এমনকি ব্যাংকের ওই শাখার ম্যানেজারকেও তিনি খুঁজে পাচ্ছেন না। আফসার উদ্দিনের সঙ্গে গতকাল রোববার দুপুরে কথা হয় দিলকুশায়। তিনি বলেন, ‘আমি ১৯৮৮ সালের পর থেকে এই ব্যাংকের সঙ্গে লেনদেন করছি। আগে কুয়েতে থাকতাম, বর্তমানে ইতালিতে থাকি। আমার অ্যাকাউন্টে প্রায় ৮ লাখ টাকা রয়েছে। গত এক মাসের মধ্যে তিনবার এসেছি, তবে এখনো টাকা পাইনি।’

আফসার আরও বলেন, ‘টাকা পাব, এমনটাই বলা হচ্ছে ব্যাংক থেকে। ব্যাংকে ঝামেলা চলছে বলেও কয়েকজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। আমি যতবার এসেছি, কখনো এই শাখার ম্যানেজারকে পাইনি। যখনই আসি তখনই বলা হয়, ম্যানেজার বাইরে চলে গেছেন।’
ব্যাংকের মতিঝিল শাখার গ্রাহক শিবলি মাহমুদের সঙ্গে কথা হয় পুরানা পল্টনে। তিনি বলেন, ‘এই ব্যাংকে দুই বছর আগে ৩ লাখ টাকা রেখেছিলাম। হঠাৎ করে শুনতেছি, ব্যাংকটি গ্রাহকদের টাকা ফেরত দিতে পারছে না। তাই ১৫ দিন আগে এসেছিলাম টাকা তুলতে।

ব্যাংক থেকে বলা হয়েছিল কয়েক দিন পরে আসার জন্য। এরপর আজকে (রোববার) আবার এসেছি। তবে ব্যাংকটির এই শাখা থেকে টাকা দিতে পারছে না, শুধু আশ্বাস দিয়ে যাচ্ছে।’

ব্যাংকের কর্মকর্তারা এই সংকটের জন্য উল্টো দুষছেন বাংলাদেশ ব্যাংককে। তাঁদের দাবি, বিপৎকালীন সহায়তা চেয়েও পাওয়া যাচ্ছে না। অথচ কেন্দ্রীয় ব্যাংক অন্য ব্যাংকের বেলায় ভিন্ন আচরণ করে। চলতি হিসাবে ঘাটতি থাকার পরও টাকা পাচ্ছে কিছু বিশেষ ব্যাংক। 

আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মুহাম্মদ শফিক বিন আবদুল্লাহ জানান, তাঁরা আগে কখনো এমন সংকটে পড়েননি। তিনি অবশ্য অজুহাত দেখিয়ে বলেন, সবাই একসঙ্গে টাকা তুলতে আসছে, তাই সমস্যা আরও কঠিন হচ্ছে। 

জানা যায়, গত সপ্তাহে ব্যাংকটির মৌলভীবাজার শাখার গ্রাহক আব্দুল হামিদ মাহবুব টাকা তুলতে গেলে তাঁকে কোনো টাকা দেওয়া হয়নি। ওই শাখায় তাঁর ১ লাখ টাকা জমা ছিল। তিনি ৫৫ হাজার টাকার চেক নিয়ে গেলে শাখার ম্যানেজার জানিয়েছিলেন, তাঁদের কাছে কোনো টাকা নেই। সেদিন ওই শাখার আরও অন্তত ১৫ জন আমানতকারীর একই অভিজ্ঞতার কথা জানা যায়। আব্দুল হামিদ মাহবুব দুই দিন পর স্থানীয় সাংবাদিকদের সহায়তা নিয়ে ওই শাখা থেকে মাত্র ২০ হাজার টাকা পান।

রাজধানীর পরিস্থিতিও একই রকম। গতকাল পল্টন ও কারওয়ান বাজার শাখায় গিয়ে দেখা যায়, সেখানে টাকা তোলার জন্য আসা আমানতকারীদের ফেরত যেতে হচ্ছিল খালি হাতেই। তাঁরা কথা বলতে চেয়েও দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের দেখা পাচ্ছিলেন না। 

ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, ব্যাপক তারল্যসংকটে পড়ে গত ৩১ জানুয়ারি বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে জামানতমুক্ত তারল্য সহায়তা হিসেবে ৫০ কোটি টাকা চেয়েছিল আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক। কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে ইতিমধ্যে ব্যাংকটির ৪২৫ কোটি টাকা দেনা হয়েছে। ফলে আবেদনের দুই সপ্তাহ পরে তা প্রত্যাখ্যান করা হয়। বাংলাদেশ ব্যাংকের অফ-সাইট সুপারভিশন ডিপার্টমেন্ট ব্যাংকিং রেগুলেশন অ্যান্ড পলিসি ডিপার্টমেন্টকে আইসিবি ইসলামিক ব্যাংকের বিরুদ্ধে সংশোধনমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার অনুরোধ জানিয়েছিল। কারণ, এটি তারল্যসংকটের কারণে কার্যত বন্ধ আছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তারা বলছেন, ব্যাংকটি আমানত, মূলধনের ঘাটতি, উচ্চ খেলাপি ঋণ এবং তারল্যসংকটের কারণে পদ্ধতিগত ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

ব্যাংকটি সম্পর্কে অবগত কেন্দ্রীয় ব্যাংকের একাধিক কর্মকর্তার কাছ থেকে জানা যায়, পরিস্থিতি এতটাই ভয়াবহ হয়েছে যে ব্যাংকটির কাছে এমন কোনো জামানত নেই, যার বিপরীতে এটি অন্যান্য ইসলামি ব্যাংক বা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছ থেকে নগদ অর্থ ধার করতে পারে। এমনকি ব্যাংকটির কর্মীদের বেতনও ধাপে ধাপে পরিশোধ করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, ২০২৩ সালের শেষের দিকে ব্যাংকটি ১ হাজার ৮২৩ কোটি টাকার মূলধন ঘাটতিতে পড়ে। তাদের মোট ৭৯০ কোটি ৪০ লাখ টাকা ঋণের ৮৭ শতাংশই খারাপ ঋণ। 

আইসিবি ইসলামি ব্যাংকের কর্মকর্তারা জানান, বর্তমানে ৩৩টি শাখায় ৩৫০ কর্মী আছেন। ব্যাংকটির এমডি মুহাম্মদ শফিক বিন আবদুল্লাহ বলেন, ‘কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কাছে তারল্য সহায়তা চেয়েও পাওয়া যায়নি। তাই সমস্যা মোকাবিলা কঠিন হচ্ছে। তবে আমি আশা করি, এ মাসের মধ্যে এই সংকট কেটে যাবে।’

জানা যায়, ২০২২ সালের শেষে ব্যাংকটিতে আমানত ছিল ১ হাজার ২১২ কোটি টাকা। এর মধ্যে ৪৪৪ কোটি টাকা ফ্রোজেন ডিপোজিট। আল-বারাকা ব্যাংক নামে এটির যাত্রা ১৯৮৭ সালে। ১৯৯৪ সালে এটি ‘সমস্যাযুক্ত ব্যাংকে’ পরিণত হয়। এরপর ২০০৪ সালে এটি ওরিয়েন্টাল ব্যাংক নামে বাণিজ্যিক ব্যাংক হিসেবে কার্যক্রম শুরু করে। তবে ব্যাপক অনিয়ম ধরা পড়ার পর ২০০৬ সালে কেন্দ্রীয় ব্যাংক ওই ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ বিলুপ্ত করে দেয়। ওরিয়েন্টাল ব্যাংক থেকে ৩৪ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ২০০৫ ও ২০০৬ সালে ৩৪টি মামলা হয়েছিল। তখন বাংলাদেশ ব্যাংক এটির পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নেয় এবং আমানতকারীদের অর্থ সুরক্ষার জন্য ব্যাংকে একজন প্রশাসক নিয়োগ দেয়। ২০০৭ সালের আগস্টে ব্যাংকটির অধিকাংশ শেয়ার বিক্রির জন্য দরপত্র আহ্বান করে বাংলাদেশ ব্যাংক। ২০০৮ সালে ব্যাংকটির নাম পরিবর্তন করে আইসিবি ইসলামিক ব্যাংক রাখা হয়।

মন্তব্য

আপনার পরিচয় গোপন রাখতে
আমি নীতিমালা মেনে মন্তব্য করছি।
Show
 
    সব মন্তব্য

    ইহাতে মন্তব্য প্রদান বন্ধ রয়েছে

    পঠিতসর্বশেষ

    এলাকার খবর

     

    আইএমএফের তৃতীয় কিস্তির ১১২ কোটি ডলার ঋণ পেল বাংলাদেশ

    আজিজ আল কায়সার চেয়ারম্যান, হোসেন খালেদ সিটি ব্যাংকের ভাইস চেয়ারম্যান নির্বাচিত

    রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠানের কাছে ব্যাংকের পাওনা ৫১ হাজার কোটি টাকা, সিংহভাগ বিএডিসির

    আম সংগ্রহ ও পাল্পিং কার্যক্রম শুরু করেছে আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজ 

    মতিউরকে সরিয়ে সোনালী ব্যাংকে নতুন পরিচালক নিয়োগ

    নতুন ঠিকানায় এক্সিম ব্যাংকের সিইপিজেড শাখা

    জামিনে মুক্তি পেলেন যুব মহিলা লীগের বহিষ্কৃত নেত্রী পাপিয়া

    অস্ট্রেলিয়াকে অপেক্ষায় রেখে সেমিতে ভারত

    পাসপোর্ট অফিসের কর্মচারী ও তাঁর স্ত্রীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা

    যুক্তরাষ্ট্রের মানবপাচার প্রতিবেদনে বাংলাদেশ আগের অবস্থানেই, বেড়েছে প্রচেষ্টা

    ভিসামুক্ত প্রবেশাধিকার দিয়ে মালদ্বীপে ১৮ লাখ নতুন পর্যটক, পেছনে পড়ল সেশেলস 

    শরীফার গল্প: জেন্ডার বিশেষজ্ঞদের মত নিয়ে নতুন গল্প যুক্ত করার নির্দেশ